ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭, ১ পৌষ ১৪২৪, ২৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯
শিরোনামঃ
শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস আজ  রায়েরবাজার বধ্যভূমিতে সকল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দাবি ওয়ান প্লানেট সম্মেলন শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী জলবায়ু খাতে ৭ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের পরিকল্পনা সরকারের সৌদি আরবে জিয়া পরিবারের বিপুল অর্থ, তদন্ত করবে দুদক পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচন দাবিতে সোচ্চার হোন থার্টিফার্স্ট নাইটে উন্মুক্ত স্থানে কোনো অনুষ্ঠান নয়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শিক্ষা অধিদপ্তর-বোর্ড ও বিজি প্রেস থেকে প্রশ্ন ফাঁস হয়: দুদক বিএনপি নির্বাচনে না আসলে গণতন্ত্র বাধাগ্রস্ত হবে না পল্লী বিদ্যুতে অতিরিক্ত ইলেকট্রিশিয়ান নিয়োগ দেওয়ায় মানববন্ধন রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা তুঙ্গে হাইকোর্টে লক্ষ্মীপুরের ইউএনওর ক্ষমা প্রার্থনা খাগড়াছড়িতে ৬ সশস্ত্র যুবক আটক চট্টগ্রামের সেবা সমূহ ডিজিটালাইজড হওয়ার তাগিদ দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে সারা দেশে বিএনপির বিক্ষোভ আকায়েদের বিরুদ্ধে মার্কিন পুলিশের তিন অভিযোগ আশুগঞ্জে আমন চাল সংগ্রহ অভিযান শুরু ভূমিমন্ত্রীর ছেলে তমালকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ গাইবান্ধায় যুবলীগ নেতার ও বরগুনায় জেলের মরদেহ উদ্ধার ঢামেক হাসপাতাল দিচ্ছে ডিজিটাল ডেথ সার্টিফিকেট

খেলারামের কোঠায় একদিন

প্রকাশিত: ০৮:০১ , ১০ অক্টোবর ২০১৭ আপডেট: ০৮:০১ , ১০ অক্টোবর ২০১৭

ডেস্ক প্রতিবেদন: ঢাকার কাছেই নবাবগঞ্জ প্রাচীন স্থাপত্যের নিদর্শনে সমৃদ্ধ। তার মধ্যে একটি স্থাপনা হচ্ছে খেলারামদার কোঠা। নবাবগঞ্জের বান্দুরার কলাকোপায় অবস্থিত খেলারামের এই কোঠাটি কালের সাক্ষী। প্রায় ২০০ বছরের পুরনো শৈল্পিক কারুকার্যে নির্মিত এ ভবনটি একনজর দেখার জন্য প্রতিদিন দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে যান অনেক দর্শনার্থী। এই কোঠাটি নিয়ে অনেক কাহিনী কথিত আছে।

প্রচলন আছে, ১৮০০ খ্রিস্টাব্দের মাঝামাঝি সময়ে বর্তমান ময়মনসিংহ জেলার তৎকালীন জমিদার খেলারাম তাঁর বংশীয় লোকজনের সাথে দেখা করতে নবাবগঞ্জের কলাকোপায় আসতেন। আসা-যাওয়ার মাঝে এ স্থানটি তাঁর পছন্দ হয়ে যায়। পরবর্তীকালে অস্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য একটি দ্বিতল পাকা ভবন নির্মাণ করেন। পরবর্তীতে এটি খেলারামের কোঠা নামে পরিচিতি লাভ করে। তিনি এ অঞ্চলের মানুষকে অনেক সাহায্য-সহযোগিতা করতেন, যার জন্য তাঁর নামের সাথে দাতা শব্দটি যুক্ত হয়ে খেলারাম দাতা হিসেবে পরিচিতি পায়। বর্তমানে খেলারাম দাতার কোঠা বললে সবাই একনামে চেনে-জানে।

প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য খোলা রাখা হয় খেলারামের কোঠাটি। তবে ভবনের ভেতরে প্রবেশের জন্য কোনো ফি ধার্য করা হয়নি।

যা দেখবেন

খেলারামের দোতল এ বাড়িটির দৈর্ঘ্য-প্রস্থ প্রায় সমান। ভবনের নিচতলায় ছোট-বড় মিলিয়ে ২০টির মতো সুরম্য কক্ষ রয়েছে। দোতলায় মোট ৯টি গম্বুজ রয়েছে। মাঝখানের গম্বুজটি আকারে অনেক বড়। প্রতিটি গম্বুজের ভেতরের অংশে চীনামাটির কারুকার্যে তৈরি করা হয়েছে বলে সহজেই সবার দৃষ্টি কাড়ে। ভবনটির মাটির নিচে একটি গোপন কক্ষ রয়েছে। কথিত রয়েছে গোপন কক্ষটিতে জমিদার খেলারাম ও তার ভক্তবৃন্দরা আরাম-আয়েশ ও আরাধনা করতেন।

কীভাবে যাবেন

ঢাকার গুলিস্তান ও নয়াবাজার থেকে যমুনা, শিশির ও নবাবগঞ্জ পরিবহনের বাস চলাচল করে এই রুটে। ভাড়া জনপ্রতি ৫০ টাকা। নবাগঞ্জ নেমে রিকশা নিয়ে যেতে পারবেন খেলারামের কোঠায়।

এই বিভাগের আরো খবর

রোহিঙ্গা সংকটে নেপিদোর পাশে থাকবে বেইজিং

মিয়ানমারের সেনাপ্রধানের সাথে চীনের প্রেসিডেন্টের বৈঠক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মিয়ানমারের সীমান্ত এলাকায় নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে গঠনমূলক অবদান রাখার আশ্বাস দিয়েছে চীন। শুক্রবার সফররত...

বিদেশী পর্যটক খুব কম

পর্যটন শিল্পের বিকাশে প্রয়োজন সুপরিকল্পিত উদ্যোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক : পর্যটন কেন্দ্র ও পর্যটকের সংখ্যা সিলেট অঞ্চলে বাড়লেও বিদেশী পর্যটক খুব কম। তবে পর্যবেক্ষকদের মতে, সকল সীমাবদ্ধতা দূর...

সিলেটের পর্যটন নিয়ে আগ্রহ বাড়ছে

প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা তেমনটা বাড়েনি

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সিলেট অঞ্চলের সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো।  এই অঞ্চলের অধীবাসীদের অনেকে প্রবাসী, ফলে আর্থিক...

ব্যক্তিগত প্রচারণায় বাড়ছে পর্যটন

অনুসন্ধিৎসু পর্যটকরাই খুঁজে বের করছে নতুন দর্শনীয় স্থান

নিজস্ব প্রতিবেদক : মাত্র কয়েক দশক আগেও যেকানে সিলেট অঞ্চলের অল্প কয়েকটি এলাকা পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত ছিল সেখানে এখন একশ এগারোটি...

পর্যটকদের ভিড় বেড়েছে সিলেট অঞ্চলে

এক দশকে পর্যটন কেন্দ্রের সংখ্যা একশ ছাড়িয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : পর্যটনের জন্য বৃহত্তর সিলেটের বিশেষ সমাদর বহু কালের হলেও বিগত এক দশকে এর বি¯তৃতি নজরকাড়া। চা-বাগান ও হযরত শাহজালালের...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is