ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭, ১ পৌষ ১৪২৪, ২৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯
শিরোনামঃ
শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস আজ  রায়েরবাজার বধ্যভূমিতে সকল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দাবি ওয়ান প্লানেট সম্মেলন শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী জলবায়ু খাতে ৭ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের পরিকল্পনা সরকারের সৌদি আরবে জিয়া পরিবারের বিপুল অর্থ, তদন্ত করবে দুদক পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচন দাবিতে সোচ্চার হোন থার্টিফার্স্ট নাইটে উন্মুক্ত স্থানে কোনো অনুষ্ঠান নয়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শিক্ষা অধিদপ্তর-বোর্ড ও বিজি প্রেস থেকে প্রশ্ন ফাঁস হয়: দুদক বিএনপি নির্বাচনে না আসলে গণতন্ত্র বাধাগ্রস্ত হবে না পল্লী বিদ্যুতে অতিরিক্ত ইলেকট্রিশিয়ান নিয়োগ দেওয়ায় মানববন্ধন রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা তুঙ্গে হাইকোর্টে লক্ষ্মীপুরের ইউএনওর ক্ষমা প্রার্থনা খাগড়াছড়িতে ৬ সশস্ত্র যুবক আটক চট্টগ্রামের সেবা সমূহ ডিজিটালাইজড হওয়ার তাগিদ দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে সারা দেশে বিএনপির বিক্ষোভ আকায়েদের বিরুদ্ধে মার্কিন পুলিশের তিন অভিযোগ আশুগঞ্জে আমন চাল সংগ্রহ অভিযান শুরু ভূমিমন্ত্রীর ছেলে তমালকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ গাইবান্ধায় যুবলীগ নেতার ও বরগুনায় জেলের মরদেহ উদ্ধার ঢামেক হাসপাতাল দিচ্ছে ডিজিটাল ডেথ সার্টিফিকেট

স্কুলশিক্ষা থেকে ঝড়ে পড়ছে মেয়েশিশুরা

প্রকাশিত: ০৮:১৫ , ১১ অক্টোবর ২০১৭ আপডেট: ০৮:১৫ , ১১ অক্টোবর ২০১৭

আন্তজাতিক ডেস্ক: জাতিসংঘের এক পরিসংখ্যান বলছে- বিশ্বের দরিদ্রতম কয়েকটি দেশে স্কুলের অভাব মোকাবেলায় গত এক দশকে মেয়েদের শিক্ষা ব্যবস্থায় প্রায় শূন্য অগ্রগতি হয়েছে। আরও একটি রিপোর্টে জাতিসংঘ বলেছে ৬০০ মিলিয়নেরও বেশি শিশুদের শিক্ষার মান পরীক্ষা করা হয়েছে। এমন শিক্ষার মান নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করে তারা বলেছে সে সব শিশুরা মূলত কিছুই শিখছে না।
সমৃদ্ধ পশ্চিমা দেশে যদিও মেয়েরা একা একা একাডেমিক কৃতিত্ব অর্জন করে। তবে, বিশ্বের দরিদ্র অংশে বিশেষ করে সাহারার আফ্রিকায় স্কুল গুলোতে মেয়েশিশুদের অনুপস্থিতি অনেক বেশি লক্ষ্য করা যায়। অনেক অল্পবয়সি মেয়েরা স্কুলে যাওয়ার পরিবর্তে কাজ করার আশা করে এবং অনেক অল্প বয়স্ক ছেলে-মেয়েরা শিক্ষার সুযোগ যুদ্ধ, সহিংসতা ও অর্থনৈতিক কারণে হারাতে বাধ্য হয়।
জাতিসংঘের পরিসংখ্যান থেকে জানা যায় যে, সহিংসতাপূর্ণ অঞ্চলে মেয়েদের শিক্ষা হারানোর সম্ভাবনা বেশি থাকে। মেয়েদের শিক্ষার জন্য সবচেয়ে কঠিনতম শীর্ষ ১০টি দেশের একটি তালিকা তৈরি করেছে জাতিসংঘ।
১. দক্ষিণ সুদান: বিশ্বের সবচেয়ে নতুন এ দেশটি পাড়ি দিচ্ছে অনেক সহিংসতা ও যুদ্ধের মধ্য দিয়ে। এ দেশের প্রায় তিন-চতুর্থাংশ মেয়েশিশু প্রাথমিক স্কুলও শেষ করতে পারে না।
২. মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্র: প্রতি ৮০ জন ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য মাত্র একজন শিক্ষক।
৩. নাইজার: ১৫ থেকে ২৪ বছর বয়সী নারীর মধ্যে মাত্র ১৭% শিক্ষিত। বাকিদের স্কুলের সাথে কোনো সর্ম্পক নেই।
৪. আফগানিস্তান: ছেলে-মেয়েদের মধ্যে অনেক বড় একটি দূরত্ব তৈরি হয়েছে। স্কুলগুলোতে ছেলেদের তুলনায় মেয়েদের সংখ্যা খুবই কম।
৫. চাঁদ: মেয়েশিশু ও মেয়েদের শিক্ষার জন্য অনেক সামাজিক ও অর্থনৈতিক বাধা রয়েছে এই দেশটিতে।
৬. মালি: এই দেশটিতে শুধুমাত্র ৩৮% মেয়েরা প্রাথমিক স্কুলে যেতে দেখা মিলে ।
৭. গিনি: ২৫ বছরের বেশি বয়সের মহিলাদের মধ্যে শিক্ষার গড় সময় এক বছরেরও কম।
৮. বুরকিনা ফাসো: শুধুমাত্র ১% মেয়েরা সম্পূর্ণ মাধ্যমিক বিদ্যালয় পড়া-শোনা করছে।
৯. লাইবেরিয়া: প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ তরুণ-তরুণী প্রাথমিকস্কুলের আওতাভুক্ত নয়।
১০. ইথিওপিয়া: পাঁচটি মেয়ের মধ্যে দুটি মেয়ের বিয়ে হয় ১৮বছর বয়সের আগে।
দরিদ্র দেশগুলিতে শিক্ষকদের ঘাটতি একটি সাধারণ সমস্যা। তবে, সামাজিক, অর্থনৈতিক, সহিংসতা আর যুদ্ধের কারনে ব্যাহত হচ্ছে মেয়েদের শিক্ষা ব্যবস্থা।
গত বছর জাতিসংঘ জানায়, ২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপী নিয়োগের জন্য আরো ৬৯ মিলিয়ন শিক্ষককে নিয়োগ দেয়া প্রয়োজন।
প্রায় ১৩০ মিলিয়ন মেয়েশিশু এখনও স্কুলের বাইরে। যে ১৩০ মিলিয়ন শিক্ষার্থী হতে পারে সম্ভাব্য প্রকৌশলী, উদ্যোক্তা, শিক্ষক এবং রাজনীতিবিদ যাদের নেতৃত্ব বিশ্বের উপর এখনো অনুপস্থিত আছে।

এই বিভাগের আরো খবর

শিক্ষা অধিদপ্তর-বোর্ড ও বিজি প্রেস থেকে প্রশ্ন ফাঁস হয়: দুদক

নিজস্ব প্রতিবেদক: শিক্ষা বোর্ড, বিজি প্রেস এবং মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর থেকে প্রশ্ন ফাঁস হয়। দুর্নীতি দমন কমিশনের রিপোর্টে এ তথ্য...

মুন্সীগঞ্জে প্রথমিক বিদ্যালয়ের প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় আটক ৯

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি: মুন্সীগঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় নয় জনকে আটক...

প্রশ্নপত্র ফাঁস: ২৪৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষা স্থগিত

বরগুনা প্রতিনিধি:  বরগুনায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় ২৪৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ইংরেজী পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। সোমবার...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is