ঢাকা, শনিবার, ২১ অক্টোবর ২০১৭, ৬ কার্তিক ১৪২৪, ৩০ মহাররম ১৪৩৯
শিরোনামঃ
উন্নত বাংলাদেশ গড়তে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় রাখুন: জয় বেড়িবাঁধ ভেঙে বিভিন্ন জেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, ব্যাহত ফেরি চলাচল টানা বৃষ্টিতে ডুবে গেছে ঢাকার বিভিন্ন এলাকা টানা বৃষ্টিতে দেশের বিভিন্ন বন্দরের কার্যক্রমে স্থবিরতা ডি-এইট সম্মেলনে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পেয়েছে রোহিঙ্গা ইস্যু আওয়ামী লীগে জঙ্গি-সন্ত্রাসি ও চাঁদাবাজের ঠাঁই নেই: ওবায়দুল সু চি’র নীরবতায় রোহিঙ্গাদের ওপর সেনা নিপীড়ন চলছে: ইউনূস ভারী বর্ষণে কলাপাড়ায় বেড়িবাঁধ ভেঙে ১১ গ্রাম প্লাবিত রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে সরকার সম্পূর্ণ ব্যর্থ: আমীর খসরু মালয়েশিয়ায় ৩৯ বাংলাদেশিসহ ১১৩ অভিবাসী আটক একটি গোষ্ঠী রোহিঙ্গাদের সন্ত্রাসী কাজে ব্যবহার করতে চায়: কামরুল প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার আহ্বান ইনজুরির কারণে শেষ ওয়ানডেতেও খেলতে পারছেন না তামিম দিনাজপুর ও নেত্রকোনার চাষিরা দিশাহারা স্পেনের অংশ কাতালোনিয়া আছে, থাকবে: রাজা ষষ্ঠ ফিলিপ আলফাডাঙ্গায় মধুমতির ভাঙন এলাকায় ড্রেজিং প্রকল্প উদ্বোধন আফগানিস্তানে দু’টি মসজিদে আত্মঘাতী বোমা হামলা, নিহত ৭২ হাঁস পালন করে ঝিনাইদহের শতাধিক খামারির মুখে হাসি ড্রাগন চাষে লাভবান হচ্ছেন পটুয়াখালীর চাষিরা ভারী বর্ষণে কলাপাড়ায় বেড়িবাঁধ ভেঙে ১১ গ্রাম প্লাবিত

স্কুলশিক্ষা থেকে ঝড়ে পড়ছে মেয়েশিশুরা

প্রকাশিত: ০৮:১৫ , ১১ অক্টোবর ২০১৭ আপডেট: ০৮:১৫ , ১১ অক্টোবর ২০১৭

আন্তজাতিক ডেস্ক: জাতিসংঘের এক পরিসংখ্যান বলছে- বিশ্বের দরিদ্রতম কয়েকটি দেশে স্কুলের অভাব মোকাবেলায় গত এক দশকে মেয়েদের শিক্ষা ব্যবস্থায় প্রায় শূন্য অগ্রগতি হয়েছে। আরও একটি রিপোর্টে জাতিসংঘ বলেছে ৬০০ মিলিয়নেরও বেশি শিশুদের শিক্ষার মান পরীক্ষা করা হয়েছে। এমন শিক্ষার মান নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করে তারা বলেছে সে সব শিশুরা মূলত কিছুই শিখছে না।
সমৃদ্ধ পশ্চিমা দেশে যদিও মেয়েরা একা একা একাডেমিক কৃতিত্ব অর্জন করে। তবে, বিশ্বের দরিদ্র অংশে বিশেষ করে সাহারার আফ্রিকায় স্কুল গুলোতে মেয়েশিশুদের অনুপস্থিতি অনেক বেশি লক্ষ্য করা যায়। অনেক অল্পবয়সি মেয়েরা স্কুলে যাওয়ার পরিবর্তে কাজ করার আশা করে এবং অনেক অল্প বয়স্ক ছেলে-মেয়েরা শিক্ষার সুযোগ যুদ্ধ, সহিংসতা ও অর্থনৈতিক কারণে হারাতে বাধ্য হয়।
জাতিসংঘের পরিসংখ্যান থেকে জানা যায় যে, সহিংসতাপূর্ণ অঞ্চলে মেয়েদের শিক্ষা হারানোর সম্ভাবনা বেশি থাকে। মেয়েদের শিক্ষার জন্য সবচেয়ে কঠিনতম শীর্ষ ১০টি দেশের একটি তালিকা তৈরি করেছে জাতিসংঘ।
১. দক্ষিণ সুদান: বিশ্বের সবচেয়ে নতুন এ দেশটি পাড়ি দিচ্ছে অনেক সহিংসতা ও যুদ্ধের মধ্য দিয়ে। এ দেশের প্রায় তিন-চতুর্থাংশ মেয়েশিশু প্রাথমিক স্কুলও শেষ করতে পারে না।
২. মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্র: প্রতি ৮০ জন ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য মাত্র একজন শিক্ষক।
৩. নাইজার: ১৫ থেকে ২৪ বছর বয়সী নারীর মধ্যে মাত্র ১৭% শিক্ষিত। বাকিদের স্কুলের সাথে কোনো সর্ম্পক নেই।
৪. আফগানিস্তান: ছেলে-মেয়েদের মধ্যে অনেক বড় একটি দূরত্ব তৈরি হয়েছে। স্কুলগুলোতে ছেলেদের তুলনায় মেয়েদের সংখ্যা খুবই কম।
৫. চাঁদ: মেয়েশিশু ও মেয়েদের শিক্ষার জন্য অনেক সামাজিক ও অর্থনৈতিক বাধা রয়েছে এই দেশটিতে।
৬. মালি: এই দেশটিতে শুধুমাত্র ৩৮% মেয়েরা প্রাথমিক স্কুলে যেতে দেখা মিলে ।
৭. গিনি: ২৫ বছরের বেশি বয়সের মহিলাদের মধ্যে শিক্ষার গড় সময় এক বছরেরও কম।
৮. বুরকিনা ফাসো: শুধুমাত্র ১% মেয়েরা সম্পূর্ণ মাধ্যমিক বিদ্যালয় পড়া-শোনা করছে।
৯. লাইবেরিয়া: প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ তরুণ-তরুণী প্রাথমিকস্কুলের আওতাভুক্ত নয়।
১০. ইথিওপিয়া: পাঁচটি মেয়ের মধ্যে দুটি মেয়ের বিয়ে হয় ১৮বছর বয়সের আগে।
দরিদ্র দেশগুলিতে শিক্ষকদের ঘাটতি একটি সাধারণ সমস্যা। তবে, সামাজিক, অর্থনৈতিক, সহিংসতা আর যুদ্ধের কারনে ব্যাহত হচ্ছে মেয়েদের শিক্ষা ব্যবস্থা।
গত বছর জাতিসংঘ জানায়, ২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপী নিয়োগের জন্য আরো ৬৯ মিলিয়ন শিক্ষককে নিয়োগ দেয়া প্রয়োজন।
প্রায় ১৩০ মিলিয়ন মেয়েশিশু এখনও স্কুলের বাইরে। যে ১৩০ মিলিয়ন শিক্ষার্থী হতে পারে সম্ভাব্য প্রকৌশলী, উদ্যোক্তা, শিক্ষক এবং রাজনীতিবিদ যাদের নেতৃত্ব বিশ্বের উপর এখনো অনুপস্থিত আছে।

এই সম্পর্কিত আরো খবর

ঢাবি'র ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসে জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তার ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের সাথে জড়িত সন্দেহে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতাসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is