ঢাকা, রবিবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৭, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২৯ সফর ১৪৩৯
শিরোনামঃ
ইতিহাস মুছে ফেলা যায় না, বিশ্ব স্বীকৃতিই তার প্রমাণ : প্রধানমন্ত্রী ঢাকায় বাংলাদেশ ও চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে কক্সবাজারে মার্কিন প্রতিনিধিদল রোহিঙ্গা শিশুদের ১৭ হাজার মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকিতে  গাইবান্ধায় কচুর চাষে স্বাবলম্বী দুই হাজার কৃষক বান্দরবানের সড়কগুলো চলাচলের অনুপযোগি মাগুরায় শিশুদের মধ্যে ঠাণ্ডাজনিত রোগের প্রকোপ  সহায়ক সরকারের অধীনেই নির্বাচন দিতে হবে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সবাইকে যোগ দেয়ার আহ্বান পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে ফেরি চলাচলে বিঘ্ন, যাত্রীদের দুর্ভোগ রোহিঙ্গা: জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে প্রস্তাব পাস  লক্ষ্মীপুরে ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু, চিকিৎসকসহ আটক ৪  চুয়াডাঙ্গায় মুক্তিযোদ্ধা মনোয়ার হত্যা মামলায় ২জনের ফাঁসি কার্যকর রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের তাগিদ বিভিন্ন দেশের খ্যাতনামা লেখকদের নীতিমালা চূড়ান্ত হচ্ছে আগামী মাসেই প্রশাসনের সরাসরি হস্তক্ষেপের তাগিদ বাজার বিশ্লেষকদের সিন্ডিকেটকে দায়ি করছেন খুচরা বিক্রেতারা দৃশ্যমান হচ্ছে লাকসাম-আখাউড়া ডাবল রেল লাইন মিরপুরে পোষাক শ্রমিকদের বিক্ষোভ পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে ফেরি চলাচলে বিঘ্ন, যাত্রীদের দুর্ভোগ

জলাবদ্ধতা নিরসনে বাঁধ-সড়ক নির্মাণ

ঠিকাদার নিয়োগ নিয়ে সিডিএর দরপত্রে অস্বচ্ছতার অভিযোগ

প্রকাশিত: ১২:২৯ , ১২ অক্টোবর ২০১৭ আপডেট: ০৫:১৭ , ১২ অক্টোবর ২০১৭

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: চট্টগ্রামের জলাবদ্ধতা সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নিয়েছে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। এর অংশ হিসেবে কালুরঘাট থেকে শাহ আমানত সেতু পর্যন্ত সাড়ে ৮ কিলোমিটার বাঁধ ও চার লেনের সড়ক নির্মাণের দরপত্র আহবান করেছে সিডিএ। তবে শুরুতেই প্রকল্পের ঠিকাদার নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে অস্বচ্ছতার অভিযোগ উঠেছে।
চট্টগ্রাম মহানগরীর দুঃখ জলাবদ্ধতা নিরসনে শুরু হয়েছে মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ। প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে কালুরঘাট থেকে শাহ আমানত সেতু পর্যন্ত কর্ণফুলী নদীর তীর বরাবর ৮ দশমিক পাঁচ ছয় কিলোমিটার বাঁধ কাম চার লেনের সড়ক নির্মাণ করবে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ।এরসাথে থাকবে ১২টি খালের মুখে বিশেষ স্লুইস গেইট এবং পাম্প হাউজ। এ প্রকল্পে ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ২৭৫ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন জোয়ার ও অতি বৃষ্টিতে নগরীর বিভিন্ন এলাকা জলাবদ্ধ হয়ে পড়ার মূল কারণ কর্ণফুলীর তীরের প্রায় সাড়ে ৮ কিলোমিটারএলাকায় বাঁধ ও স্লুইস গেইট না থাকা।
কিন্তু অভিযোগ উঠেছে- প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসন হলেও দরপত্রে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে সড়ক নির্মাণে। বাঁধ প্রকল্পের ধরণ অনুযায়ী দরপত্র আহবান না করে সীমিত প্রতিষ্ঠানকে সুযোগ করে দেয়া হয়েছে। ফলে বাঁধ নির্মাণে অভিজ্ঞরা দরপত্রে অংশগ্রহণ থেকে বঞ্চিত হতে পারে। চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের প্রকল্পের পরিচালক প্রকৌশলী রাজিব দাশ জানান, ঠিকাদার নিয়োগের প্রাথমিক প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।
ঠিকাদার নির্বাচন প্রক্রিয়ায় কোন অস্বচ্ছতা নেই বলে দাবি করেন সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম। নিয়ম মেনেই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি।
গুরুত্বপূর্ণ এই প্রকল্প বাস্তবায়নে প্রতিযোগিতার ভিত্তিতে দক্ষ ও অভিজ্ঞ ঠিকাদার নিয়োগ হওয়া উচিত বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

 

এই সম্পর্কিত আরো খবর

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is