ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ জুলাই ২০১৮, ৪ শ্রাবণ ১৪২৫

2018-07-18

, ৫ জিলকদ্দ ১৪৩৯

ঘুরে আসুন আড়াইহাজার চর

প্রকাশিত: ১১:৪২ , ১২ অক্টোবর ২০১৭ আপডেট: ১১:৪২ , ১২ অক্টোবর ২০১৭

ডেস্ক প্রতিবেদন: নদীর কিনারা ছুঁয়ে বিশাল কুল বা বরইয়ের বাগান, খেজুর বাগান, এঁকেবেঁকে চলে গেছে গ্রামের মেঠোপথ। এখানে রয়েছে প্রায় ১০/১২টি চর। একেকটি চরের বৈশিষ্ট্য একেক রকম। এছাড়াও রয়েছে শত বছরের পুরোনো স্কুল এবং জমিদার বাড়ি। এসবকিছুই রয়েছে ঢাকার কাছে অবস্থিত আড়াইহাজার চর এলাকা।

এখানে নদীতে ট্রলারে সন্ধ্যাটা কাটাতে পারেন। এখানে রয়েছে বিশাল বালির চর। তার মধ্যে অর্ধেকের বেশিই কাশবন। তবে বালি অনেক শক্ত থাকায় চোরাবালির ভয় নেই। ভাটার সময় এখানে ঘুরতে যাওয়া বেশি সুবিধার। এ সময় ১০-১৫ ফিট বালির চর থাকে। দেখতে পারবেন কাশবন, খোলা আকাশে পাখির মেলা আর মাঝে মাঝে ট্রলার আর জাহাজের শব্দ।

যা যা দেখবেন

আড়াইহাজার চরে যাওয়ার পথেই পাবেন লতব্দি মোড়। সেখানে রয়েছে কাতান শাড়ি শিল্প এবং গামছা শিল্প। ইচ্ছে করলে অনেক কম দামে সেখান থেকে কাতান শাড়ি কিনে নিয়ে আসতে পারেন।

দেখতে পাবেন কয়েকশ বছরের পুরানো বটগাছ। রয়েছে শদাসদি ভূঁইয়া বাড়ি (জমিদার বাড়ি)। এছাড়াও নদীর পাশের চরগুলোর অপরূপ সৌন্দর্য তো আছেই উপভোগ করার জন্য।

কীভাবে যাবেন

প্রথমে গুলিস্তান থেকে দোয়েল বা স্বদেশ পরিবহনে মদনপুর যাবেন। ভাড়া নেবে ৪৫ টাকা।  সেখানে নেমে আড়াইহাজারের জন্য সিএনজি নেবেন। ভাড়া নেবে ৫০ টাকা।

কী খাবেন

আড়াইহাজারে পাবেন বেশকিছু মজার খাবার। দস্তরদি মোড়ে চাচার মালাই চা, আড়াইহাজার বাজারে জিয়ার ডালপুরি, গোপালদি বাজারে নাজিমুদ্দিন হোটেলের গরুর মাংস না খেয়ে ফিরলে আপনার ভ্রমণটাই থাকবে অপূর্ণ।

এই বিভাগের আরো খবর

একদিনের ট্যুর!

ডেস্ক প্রতিবেদন: কম খরচে কম সময়ে ঘুরতে যাওয়ার জন্যে চট্টগ্রেমের সীতাকুন্ড এবং মিরসরাইয়ের রেঞ্জ গুলো অনেক বেশী সুবিধাজনক। কেউ চাইলে দিনে...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is