ঢাকা, সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭, ৪ পৌষ ১৪২৪, ২৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯
শিরোনামঃ
স্বাধীনতা বিরোধীদের মানুষ ভোট দেবে না : প্রধানমন্ত্রী নতুন মানচিত্র শিগগিরই প্রকাশ হবে পাঠ্যপুস্তকসহ সর্বত্র চির নিদ্রায় শায়িত হলেন প্রয়াত মন্ত্রী ছায়েদুল হক সংযুক্ত আরব আমিরাতের ব্যবসায়ীদের আরো বিনিয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর কক্সবাজারের আশ্রয়কেন্দ্রে ডিপথেরিয়া রোগী সনাক্ত, টিকাদান চলছে ৬ ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল শুরু সুষ্ঠু ও অবাধ হবে রংপুর সিটি নির্বাচন: ওবায়দুল কাদের  ডিএনসিসি উপ-নির্বাচন ফেব্রুয়ারিতে  প্রিয় নেতার বাড়িতে প্রতিনিয়ত শোকার্ত নেতাকর্মীদের ভিড় প্রশ্নপত্র ফাঁসে সরকারি লোকজন জড়িত- দুদক শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় জমজমাট রংপুর নগরী রাকসু’র নির্বাচনের দাবিতে গণস্বাক্ষর কর্মসূচি  আন্তর্জাতিক অভিবাসন দিবস সোমবার যুব গেমস উপলক্ষ্যে র‌্যালি ও আলোচনা সভা  বৈশ্বিক তাপমাত্রা ৩ ডিগ্রি পর্যন্ত বাড়ার আশঙ্কা  মুক্তিযুদ্ধের আদর্শিক লড়াই শেষ হয়নি আজও কংগ্রেসের সভাপতি হিসেবে রাহুল গান্ধীর অভিষেক সুশাসন প্রতিষ্ঠায় বারবার হোচট খেয়েছে বাংলাদেশ নাটোরে চালু হয়নি কৃষকদের ৫টি শস্য মার্কেট রাজধানীর বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে দ্বিগুণ

গোলাপ গ্রামে স্বাগতম

প্রকাশিত: ১১:৫৪ , ১২ অক্টোবর ২০১৭ আপডেট: ১১:৫৪ , ১২ অক্টোবর ২০১৭

ডেস্ক প্রতিবেদন: শহরের যান্ত্রিকতা আর কর্মব্যস্ততায় একেবারেই হাঁপিয়ে গিয়েছে জীবন। প্রয়োজন একটু শান্তিতে নিঃশ্বাস নেয়ার। প্রয়োজন গ্রামের বাতাসের, ফুলের সৌরভের। কিন্তু এতো ব্যস্ততার মাঝে দূরে কোথাও যাওয়ার সময় হয়ে উঠছে না। তাদের জন্য ঢাকার খুব কাছেই রয়েছে সাদুল্লাহপুরের গোলাপ গ্রাম।

গ্রামের বুক চিরে চলে গেছে আঁকাবাঁকা সরু পথ। দুপাশে বিস্তীর্ণ গোলাপের বাগান। যতদূর চোখ যায়, শুধু সারি সারি লাল গোলাপ। ফুটে থাকা গোলাপের সুগন্ধ আর চোখ জুড়ানো দৃশ্য নিয়ে সেজে আছে পুরো গ্রাম। লাল টকটকে গোলাপ মাথা নাড়িয়ে দর্শনার্থীদের স্বাগত জানায় এ গ্রামে।

তুরাগ নদীর তীরে সাভারের বিরুলিয়া ইউনিয়নে এই গোলাপ গ্রাম সাদুল্লাহপুরের অবস্থান।  গ্রামের প্রায় ৮০ ভাগ লোকের পেশা গোলাপ চাষ। সারা বছর ফুলের চাষ হয় এখানে। লাল গোলাপের পাশাপাশি সাদা গোলাপ, জারবেরা ও গ্ল্যাডিওলাস ফুলেরও চাষ হয় এখানে।

কীভাবে যাবেন?

 ট্রলারে করে সাদুল্লাহপুর যেতে চাইলে গাবতলী মাজার রোড কিংবা মিরপুর-১ নম্বর গোলচত্বর থেকে রিকশায় দিয়াবাড়ি বটতলা ঘাট যেতে হবে। ঘাট থেকে ৩০ মিনিট পরপর সাদুল্লাহপুরের উদ্দেশে ট্রলার ছাড়ে। জনপ্রতি ভাড়া ৩০ টাকা।  ট্রলার থেকে নেমে ৫০ গজ সামনে গেলে পাবেন বাজার। এ বাজার পার হলেই রাস্তার দুই পাশে সারি সারি গোলাপ বাগান। হেঁটে অথবা রিকশাযোগে গোলাপ গ্রাম ঘুরে দেখতে পারেন। গ্রুপ বেঁধে গেলে ট্রলার চুক্তি করেও নিতে পারেন। সেক্ষেত্রে ৮০০-১০০০ টাকা পড়বে। ৩৫ জন একসঙ্গে ওঠা যায় ট্রলারে। মোটরসাইকেল অথবা প্রাইভেট কার নিয়ে যেতে চাইলে মিরপুর বেড়িবাঁধ ধরে বিরুলিয়া সেতু হয়ে সোজা গেলে আকরান বাজার। এ বাজার থেকে একটু সামনে এগুলেই দেখা পাবেন গোলাপ গ্রামের।

কী খাবেন এবং কোথায়

দুপুরের খাবার সঙ্গে নিয়ে যেতে পারেন। তবে এখানে হোটেলেও খাওয়ার সুব্যবস্থা আছে। সাদুল্লাহপুর ঘাটের বটতলার হাটে মিরচিনি, মুরালি, দই-মিষ্টি এবং আরো অনেক খাবার পাবেন। আছে অতুলনীয় গরুর দুধের চা ও দুধমালাই।

এই বিভাগের আরো খবর

বিদেশী পর্যটক খুব কম

পর্যটন শিল্পের বিকাশে প্রয়োজন সুপরিকল্পিত উদ্যোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক : পর্যটন কেন্দ্র ও পর্যটকের সংখ্যা সিলেট অঞ্চলে বাড়লেও বিদেশী পর্যটক খুব কম। তবে পর্যবেক্ষকদের মতে, সকল সীমাবদ্ধতা দূর...

সিলেটের পর্যটন নিয়ে আগ্রহ বাড়ছে

প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা তেমনটা বাড়েনি

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সিলেট অঞ্চলের সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো।  এই অঞ্চলের অধীবাসীদের অনেকে প্রবাসী, ফলে আর্থিক...

ব্যক্তিগত প্রচারণায় বাড়ছে পর্যটন

অনুসন্ধিৎসু পর্যটকরাই খুঁজে বের করছে নতুন দর্শনীয় স্থান

নিজস্ব প্রতিবেদক : মাত্র কয়েক দশক আগেও যেকানে সিলেট অঞ্চলের অল্প কয়েকটি এলাকা পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত ছিল সেখানে এখন একশ এগারোটি...

পর্যটকদের ভিড় বেড়েছে সিলেট অঞ্চলে

এক দশকে পর্যটন কেন্দ্রের সংখ্যা একশ ছাড়িয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : পর্যটনের জন্য বৃহত্তর সিলেটের বিশেষ সমাদর বহু কালের হলেও বিগত এক দশকে এর বি¯তৃতি নজরকাড়া। চা-বাগান ও হযরত শাহজালালের...

ঠাকুরগাঁওয়ের টাঙ্গন ব্যারেজে মাছ শিকারীদের মিলনমেলা

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁওয়ের টাঙ্গন ব্যারেজে বসেছে মাছ শিকারীদের মিলনমেলা। বিভিন্ন জেলা থেকে এসেছেন কয়েক হাজার মাছ শিকারী। কেউ মাছ...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is