ঢাকা, বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪ আশ্বিন ১৪২৫

2018-09-19

, ৮ মহাররম ১৪৪০

কোচিং ও গাইড বই ব্যবসার জন্য দায়ী দুর্বল শিক্ষা ব্যবস্থা

প্রকাশিত: ১১:০৫ , ১৩ অক্টোবর ২০১৭ আপডেট: ১১:৫৯ , ১৩ অক্টোবর ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক: মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে ছাত্র-ছাত্রীদের জন্যও রয়েছে বিপুল সংখ্যক বাণিজ্যিক কোচিং সেন্টার ও গাইড বই। এ ধরনের আয়োজন আছে বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজগুলোতে ভর্তি, সামরিক বাহিনীতে যোগদান ও বিসিএস পরীক্ষার জন্য। আইনত এসব অবৈধ না হলেও এগুলোর প্রয়োজনীয়তা নিয়ে আছে নানামুখী বিতর্ক।

শিক্ষার্থীদের আকর্ষণ করবার জন্য কোচিং সেন্টারগুলো চমকপ্রদ ভাষায় ও ছবি ব্যবহার করে বিজ্ঞাপনে রীতিমতো ঢেকে দেয় শহর। যদিও সেগুলোর কতোটা সত্য বা মিথ্যা তার যাচাই করে এসব কোচিং সেন্টারে ভর্তি হবার ফুরসত নেই কারো। তবে , যারা কোচিং সেন্টারের আশ্রয় নেন এবং যারা নেন না, তাদের মধ্যে এই আয়োজনের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে আছে বিতর্ক।  

বিসিএস পরীক্ষার কোচিং সেন্টার সাম্প্রতিককালে অন্যতম জনপ্রিয় ব্যবসা। প্রথম সুযোগেই বিসিএস এ উত্তীর্ণ হয়ে শিক্ষা ক্যাডারে সুযোগ পাওয়া  এই শিক্ষক কোনো ধরনের কোচিংয়ের আশ্রয় নেননি। ফলে, বিসিএস এর জন্য কোচিং করা নিয়ে এই শিক্ষকের দৃষ্টিভঙ্গি অন্য অনেকের থেকে আলাদা।

এদিকে, অভিভাবক এবং অভিজ্ঞ শিক্ষকদের দেশে শিক্ষার মান ও শিক্ষা দানের মান নিয়ে আছে কঠিন সমালোচনার জায়গা। কোচিং ও গাইড বই ব্যবসা জমে উঠার পেছনে শিক্ষা ব্যবস্থার দুর্বলতাসহ নানান ব্যর্থতাকে দায়ী করেন তারা।

একটি মজার পর্যবেক্ষণ হচ্ছে সাধারণ আধুনিক শিক্ষা ব্যবস্থায় গাইড ও কোচিং সেন্টারের বিপুল আয়োজন দেখা গেলেও মাদ্রাসা ও ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার ক্ষেত্রে এসবের তেমন একটা উদ্যোগ দেখা যায় না।

বাজারে অবাধে যে সকল গাইড বই প্রণয়ন করে বিক্রি করা হচ্ছে সেগুলোতে কি আছে, আদৌ খুব মানসম্পন্ন কি না তা দেখবার জন্য কোনো ধরনের ব্যবস্থা নেই। ফলে শিক্ষার্থীরা গাইড বইগুলো থেকে কি শিখছে তা নিয়ে অন্ধকারে আছে দেশের শিক্ষাখাত।

যতো বিতর্ক ও ভিন্নমতই থাকুক না কেন কোচিং সেন্টার ও গাইড বইয়ের বাণিজ্য ভীষণ লাভজনক। দ্রুত বিপুল পরিমাণ অর্থ আয়ের একটি দারুণ উৎস, যেখানে কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরাও রোজগারে মেতে উঠতে পারে।

 

এই বিভাগের আরো খবর

জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে সামাজিক ক্লাব প্রতিষ্ঠার চর্চা

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিদেশি ভাষা হলেও ক্লাব বললেই সবাই এর অর্থ বোঝে। দেশে নানা ধরনের ক্লাব রয়েছে। যেমন- খেলার ক্লাব, সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন...

চিংড়ি রপ্তানি মাত্র চারভাগের একভাগ, চাষে নেতিবাচক প্রভাব

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে ৩৬ প্রজাতির চিংড়ি প্রকৃতিতে পাওয়া যায়। তার মধ্যে বাগদা ও গলদাসহ মাত্র পাঁচ প্রজাতির চিংড়ি চাষ করা সম্ভব হয়। চাষ থেকে...

দেশে পাঁচ প্রজাতির চিংড়ি চাষ, আধুনিকায়ন হলে বেশি উৎপাদন সম্ভব

নিজস্ব প্রতিবেদক: চিংড়ি চাষ খুব জটিল নয়, তবে নিরিড় পরিচর্যা দারুণ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এইখানটায় দুর্বলতা চাষের চার দশকেও দূর করা যায়নি। তবে...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is