ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭, ১ পৌষ ১৪২৪, ২৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯
শিরোনামঃ
বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ মহিউদ্দিন চৌধুরী আর নেই মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে চট্টগ্রামে শোকের ছায়া মানুষের অন্তরে মহিউদ্দিন চৌধুরী জননেতা হিসেবেই বেঁচে থাকবেন স্বপ্নের ফেরিওয়ালা মহিউদ্দিন চৌধুরী মহান বিজয় দিবস উদযাপনে দেশজুড়ে নানা আয়োজন  সুশাসন প্রতিষ্ঠায় বারবার হোচট খেয়েছে বাংলাদেশ নাটোরে চালু হয়নি কৃষকদের ৫টি শস্য মার্কেট কুমিল্লায় বাস চাপায় নিহত দুই রংপুর সিটি নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা শেষ মুহূর্তে জমজমাট রাজধানীর বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে দ্বিগুণ টি-টেন ক্রিকেট লিগে কেরেলা কিংসের জয় হাসপাতালে জনবল-শয্যার অভাবে চিকিৎসা বঞ্চিত ঝিনাদহের নিউমোনিয়া আক্রান্ত শিশুরা পূর্ব জেরুজালেমকে ফিলিস্তিনের রাজধানী হিসেবে সৌদি বাদশাহর স্বীকৃতি নির্বাচনের আগে সংস্কারের জন্য ৩১ প্রস্তাবনা চূড়ান্ত  নেপালে নির্বাচনে বামপন্থী জোটের জয় চট্টগ্রামে রেডকিন সমাধিতে রাশিয়ার সশস্ত্র বাহিনীর শ্রদ্ধা ত্রিদেশীয় ও বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা সিরিজের সময়সূচি ঘোষণা রংপুর সিটি নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীকে সরিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্র হচ্ছে টাঙ্গাইলে ৩০ কিলোমিটার এলাকায় যানজট  থার্টিফার্স্ট নাইটে উন্মুক্ত স্থানে কোনো অনুষ্ঠান নয়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সজিব ওয়াজেদ জয় ডিজিটাল পার্ক

প্রকাশিত: ০১:১৩ , ১৩ অক্টোবর ২০১৭ আপডেট: ০১:২২ , ১৩ অক্টোবর ২০১৭

ভোলা প্রতিনিধি: বরিশালের ভোলা জেলায় বিনোদনের নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে ‘লালমোহন সজিব ওয়াজেদ জয় ডিজিটাল পার্ক’। লালমোহন পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের সরকারি শাহাবাজপুর কলেজ মাঠে ৭ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রায় তিন একর জমির উপর পার্কটি স্থাপন করা হয়েছে। এ বছর ১৬ মার্চ বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ পার্কটির উদ্বোধন করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলের নামে পার্কটিতে দেশের সবচেয়ে বড় এলইডি টিভি, ফ্রি ওয়াইফাই সুবিধা, রেলগাড়ি, নাগরদোলাসহ ২৬টি রাইডস রয়েছে। প্রযুক্তিনির্ভর ও দৃষ্টিনন্দন ডিজিটাল এই পার্কটিতে প্রতিদিন হাজার হাজার দর্শনার্থীরা ভিড় করে। প্রতিদিন বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত পার্কটি সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকে।

স্থানীয় সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন জানান, বাংলাদেশের মধ্যে ফ্রি ওয়াইফাই সমৃদ্ধ প্রথম এই সজিব ওয়াজেদ জয় ডিজিটাল পার্ক নির্মাণ করা হলো। এখানে দেশের সবচেয়ে বড় ২০ ফিট থেকে ৩০ ফিট এলইডি টিভি স্থাপন করা হয়েছে। ফলে শুধু লালমোহন নয় সমগ্র জেলার বিনোদনের নতুন ক্ষেত্র তৈরি হয়েছে। আবার জেলার বাইরে থেকেও অনেক বিনোদনপ্রেমী ভিড় করেন এ পার্কে। বর্তমানে পার্কে থ্রিজি ইন্টানেট চালু থাকলেও অচিরেই তা আরো বাড়ানো হবে বলে জানালেন তিনি।

লালমোহন পৌর মেয়র এমদাদুল ইসলাম তুহিন বলেন, বিগত দিনে এখানে বিনোদনের কোনো ব্যবস্থা ছিলোনা। এখানকার বাসিন্দারা জেলা সদর বা অন্য উপজেলায় যেতো বেড়ানোর জন্য। তবে স্থানীয় সংসদ সদস্য নুরন্নবী চৌধুরী শাওনের উদ্যোগে পৌরসভা ও জেলা পরিষদ যৌথভাবে পার্কটি নির্মাণ করেছে। বিশেষ করে ফ্রি ইন্টারনেট অনেককেই আগ্রহী করে তোলে সজিব ওয়াজেদ জয় ডিজিটাল পার্কে বেড়াতে। এছাড়া সর্ববৃহৎ এলইডি টিভিতে মুভি, খবরসহ বিভিন্ন বিনোদনের ব্যবস্থা রয়েছে।

সরেজমিনে পার্কে গিয়ে দেখা যায়, বিশাল মাঠের চারপাশে ওয়াকওয়ে তৈরি করা হয়েছে। পাশের পুকুরের উন্নয়ন করে সৌন্দর্যমণ্ডিত করা হয়েছে। সন্ধ্যার পরে বাহারি আলো রং ছড়ায় পার্কটিতে। লাল-নীল আলোয় মায়াবী রুপ নেয় ডিজিটাল পার্কে। বিকেল হলেই দল বেঁধে হাঁটার জন্য বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ ভিড় করে। এছাড়া বিভিন্ন রাইডে বাচ্চাদের আনন্দ করতে দেখা যায়। এখানে কেউ-বা আসে নির্মল বাতাস গ্রহণের জন্য। অনেকে বেঞ্চে বসে টিভি দেখে। তবে সবচেয়ে বেশি আকর্ষণ ফ্রি ইন্টারনেট সুবিধা। তরুণ-তরুণীদের বড় একটি অংশ ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য আসে পর্কে। ইচ্ছেমত প্রযুক্তির আধুনিক সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করা যায় এখানে।

কলেজ ছাত্রী ফারহানা সুলতানা ও সাদিয়া বৃষ্টি এই পার্কটির সর্ম্পকে জানতে চাইলে বলেন, সব সময় ইন্টারনেট কিনে ব্যবহার করা যায় না। তাই স¤পূর্ণ ফ্রি ওয়াইফাই সুবিধা ভোগ করতেই পার্কে আসা। এতে করে সহজেই প্রযুক্তির মাধ্যমে সারা পৃথিবীর সাথে সম্পৃক্ত হওয়া যায়। জানা যায় বিশ্বের কোথায় কি ঘটছে। রিয়াজ রহমান, জয় দত্ত, আরিফ সাকিল ও সুমন হোসেন বলেন, এতবড় এলইডি টিভিতে ছবি দেখার মজাই আলাদা। তাই তারা বন্ধুরা মিলে বিকেল হলে পার্কে আসেন।

স্থানীয় ব্যংক কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এই শহরে বিগত দিনে হাঁটা বা অনুশীলনের কোন নির্দিষ্ট স্থান ছিল না। পার্কটি হওয়াতে ইচ্ছেমত শরির চর্চা করা যায়। একইসাথে পারিবারিক পরিবেশেও ভ্রমনের সযোগ তৈরি হয়েছে।

এ ব্যাপারে ভোলা প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক সামসুল আলম মিঠু জানান, শিক্ষার সাথে বিনোদন ও বিনোদনের সাথে শিক্ষা একটি আরেকটির পরিপূরক। আর সবচে আকর্ষনীয় শিক্ষা আধুনিক প্রযুক্তি বিষয়ক জ্ঞান। এ তথ্য ও প্রযুক্তিকে তৃনমূল পর্যায়ে পৌঁছে দিতে এবং গণমানুষের দ্বারপ্রান্তে আনতে বিশাল ভূমিকা রাখছে ‘সজিব ওয়াজেদ জয় ডিজিটাল পার্ক। বিশেষ করে বর্তমান সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণে যে পরিকল্পনা তা প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষের কাছে পৌঁছে দিচ্ছে এ পার্ক।

 

এই বিভাগের আরো খবর

তথ্যপ্রযুক্তি খাতের অন্যতম গন্তব্য হয়ে ওঠবে বাংলাদেশ

বৈচিত্র্যময় উদ্ভাবনের মধ্য দিয়ে, বিশ্বে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের অন্যতম গন্তব্য হয়ে ওঠবে বাংলাদেশ, বললেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ...

ইন্টারেস্টিং অফার পেলে বাংলাদেশি ছবিতে কাজ করবো:নাফিস

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ দুইবার অস্কারজয়ী বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক নাফিস বিন জাফর বলেছেন, ইন্টাররেস্টিং কোনো অফার পেলে তিনি...

প্রধানমন্ত্রীকে সোফিয়া: ‘আমি জানি আপনি বঙ্গবন্ধুর মেয়ে’

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশ সফররত যন্ত্রমানবী সোফিয়ার সঙ্গে কথা বললেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার দুপুরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is