ঢাকা, শনিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৮, ৫ কার্তিক ১৪২৫

2018-10-20

, ৯ সফর ১৪৪০

দুর্নীতির মামলায় জামিন পেলেন

বিচার বিভাগ স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছে না: খালেদা জিয়া

প্রকাশিত: ১০:০৩ , ১৯ অক্টোবর ২০১৭ আপডেট: ১০:৫২ , ১৯ অক্টোবর ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক: দুর্নীতির দুই মামলায় আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন পেয়েছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। বৃহস্পতিবার বকশিবাজারে স্থাপিত অস্থায়ী বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান জামিন মঞ্জুর করেন।

আদালত তার আদেশে জানায়, ভবিষ্যতে আদালতের অনুমতি ছাড়া খালেদা জিয়া দেশের বাইরে যেতে পারবেন না। পরে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় আত্মপক্ষ সমর্থনে দেয়া বক্তব্যে খালেদা জিয়া অভিযোগ করেন, বিচার বিভাগ স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছে না।

গ্রেপ্তারি পরোয়ানা মাথায় নিয়ে বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর বকশিবাজারে স্থাপিত অস্থায়ী বিশেষ জজ আদালতে চত্বরে উপস্থিত হন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। পরে জিয়া চ্যারিটেবল ও জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় জামিন আবেদন করেন বিএনপি চেয়ারপার্সন।

তাঁর পক্ষে বক্তব্য উপস্থাপন করেন ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার। এ ব্যাপারে রাষ্ট্রপক্ষের বক্তব্য শেষে শর্তসাপেক্ষে খালেদা জিয়ার জামিন মঞ্জুর করে আদালত। এর পর আদালতের অনুমতিসাপেক্ষে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় আত্মপক্ষ সমর্থনে নিজের বক্তব্য উপস্থাপন করে বিএনপি চেয়ারপার্সন। ঘন্টাব্যাপী আংশিক বক্তব্যে এ মামলাকে বানোয়াট ও হয়রানিমূলক বলে দাবি করেন তিনি। এ সময় বিচারবিভাগ স্বাধীনভাবে কাজ করছে না বলেও লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করেন খালেদা জিয়া।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অভিযোগ করেন, গত ৮ মাস ধরে এই মামলায় আত্মপক্ষ সমর্থনে বক্তব্য উপস্থাপনে সময়ক্ষেপণ করে মামলার কার্যক্রমে বিঘ্ন সৃষ্টি করছে আসামিপক্ষ।

পরে দুর্নীতির এ দুই মামলার পরবর্তী শুনানি এবং খালেদা জিয়ার অসমাপ্ত বক্তব্য উপস্থাপনের জন্য ২৬ অক্টোবর নতুন তারিখ ধার্য করেন বিচারক।

তিন মাস পর যুক্তরাজ্য থেকে বুধবার দেশে ফেরেন বিএনপি চেয়ারপারসন। বিকেল সোয়া পাঁচটার দিকে তিনি ঢাকায় পৌঁছেন। যুক্তরাজ্যে থাকতেই ঢাকা ও কুমিল্লায় নাশকতা, দুর্নীতি ও মানহানির পাঁচটি মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়।

হঠাৎ করে দুদিনে এসব মামলায় আদালতের পরোয়ানা জারির প্রেক্ষাপটে নেতা-কর্মীদের মধ্যে কিছুটা উৎকণ্ঠা ছিল। কেউ কেউ গ্রেপ্তারের আশঙ্কাও করেছিলেন।

গত ১৫ জুলাই যুক্তরাজ্যে যান বিএনপির চেয়ারপারসন।  বড় ছেলে তারেক রহমানের বাসায় থেকে চোখ ও পায়ের চিকিৎসা নেন তিনি।

এই বিভাগের আরো খবর

বিকল্পধারা ভাঙনে রয়েছে রাজনৈতিক যড়যন্ত্র: মাহী বি. চৌধুরী 

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিকল্পধারা বাংলাদেশ পৃথক হওয়া বা ভেঙে যাওয়ার পেছনে একটি বড় রাজনৈতিক দলের ষড়যন্ত্র রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির যুগ্ম...

ব্যারিস্টার মঈনুলকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে বললেন বিশিষ্ট নাগরিকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক: একটি বেসরকারি টেলিভিশনের টকশোতে প্রকাশ্যে সাংবাদিক, কলামিস্ট- মাসুদা ভাট্টিকে ‘চরিত্রহীন’ বলায় সাবেক...

আইয়ুব বাচ্চুর কর্ম নতুন প্রজন্মকে পথ দেখাবে: ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আইয়ুব বাচ্চু মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়...

বিকল্পধারায় ভাঙন!

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, মহাসচিব মেজর (অব.) মান্নান ও যুগ্ম মহাসচিব মাহী বি. চৌধুরীকে...

জামায়াত প্রশ্নে নীরব বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক: ডক্টর কামাল হোসেনের নতুন জোটে যোগ দিলেও জামায়াত নিয়ে নীরব বিএনপি। জোটে যেতে জামায়াত ছাড়ার আলোচনা হলেও, শেষ পর্যন্ত এ...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is