ঢাকা, বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ৫ পৌষ ১৪২৫

2018-12-19

, ১০ রবিউস সানি ১৪৪০

ব্রিজের অভাবে দুর্ভোগে গাইবান্ধার লক্ষাধিক মানুষ

প্রকাশিত: ০৮:৫০ , ১২ নভেম্বর ২০১৭ আপডেট: ০৮:৫০ , ১২ নভেম্বর ২০১৭

গাইবান্ধা প্রতিনিধি: একটি ব্রিজের অভাবে সীমাহীন দুর্ভোগে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের নাকাইহাটের প্রায় লক্ষাধিক মানুষ। বিকল্প রাস্তা না থাকায় নিজেদের তৈরি বাঁশের সাঁকোই একমাত্র ভরসা। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন এ সাঁকো পাড় হতে হয় স্কুলগামী শিশুসহ গ্রামের মানুষকে। এলজিইডির পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে বরাদ্দ পেলেই দ্রুত কাজ শুরু করা হবে। 

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার নাকাইহাট ইউনিয়নের মেঘারচর গ্রামটিকে বিভক্ত করেছে খরস্রোত নলেয়া নদী। এর দুই পাড়ে লক্ষাধিক মানুষের বাস। তাদের যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম এই বাঁশের সাঁকো। প্রতিদিন চরম ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত ও পণ্য আনা নেয়া করতে হয় দু’পাড়ের মানুষকে। শিশুদের স্কুলে যেতে হয় এর উপর দিয়ে। ফলে প্রায়ই ঘটে দুর্ঘটনা। জনপ্রতিনিধিরা ব্রিজ নির্মাণের প্রতিশ্র“তি দিলেও তার কোনো লক্ষণ এখনও দেখা যাচ্ছে না।

বাঁশের এ টানা সাঁকোর উপর দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অসুস্থ রোগীদের আনা নেয়া করতে চরম বিপাকে পড়তে হয়। 

এলাকাবাসীর দূর্ভোগের কথা স্বীকার করে ব্রিজ নির্মাণে বিশেষ প্রকল্পে তালিকা পাঠানো হয়েছে বলে জানালেন জেলা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মাকসুদুল আলম। 

আর গাইবান্ধা- ০৪ গোবিন্ধগঞ্জের সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদ আশ্বাস দিলেন যতদিন ব্রিজ তৈরি করা সম্ভব হবে না, ততদিন সাঁকোটিকে ব্যবহার উপযোগি করে রাখা হবে।

দ্রুত ব্রিজটি নির্মাণ করে মানুষের দুর্ভোগ লাগবে এগিয়ে আসতে সরকারের কাছে দাবি এলাকাবাসীর।
 

এই বিভাগের আরো খবর

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের গাফিলতিতে যাত্রী ভোগান্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের গাফিলতির কারণে ভোগান্তিতে ব্যাংককের ফিরতি ফ্লাইটের যাত্রীরা। রোববার ব্যাংকক থেকে ঢাকায়...

তাবলীগের দু’পক্ষের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া; বিমানবন্দর সড়কে যানজট

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ঢাকার বিমানবন্দর সড়কে তাবলীগ জামাতের দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। টঙ্গীসহ এয়ারর্পোট এলাকা জুড়ে...

বি.বাড়িয়ায় মনগড়া বিদ্যুৎ বিলে ভোগান্তিতে গ্রাহকরা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিদ্যুৎ বিভাগের মনগড়া বিলের কারণে ভোগান্তিতে পড়েছেন গ্রাহকরা। তারা বলছেন, মিটার রিডিং না করেই...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is