ঢাকা, রবিবার, ২৪ জুন ২০১৮, ১০ আষাঢ় ১৪২৫

2018-06-22

, ৮ শাউয়াল ১৪৩৯

মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে অব্যবস্থাপনায় সুফল পাচ্ছেনা রোগীরা

প্রকাশিত: ০৪:৪৭ , ০৩ ডিসেম্বর ২০১৭ আপডেট: ০৪:৪৯ , ০৩ ডিসেম্বর ২০১৭

মেহেরপুর প্রতিনিধি: অব্যবস্থাপনায় চলছে মেহেরপুরের ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের কার্যক্রম। রোগীদের অভিযোগ অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি আর পর্যাপ্ত ওষুধ মজুত থাকা সত্ত্বেও কাক্সিক্ষত চিকিৎসা সুবিধা পাচ্ছে না তারা। এছাড়া বিভিন্ন ডিপ্লোমা কোর্সের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সনদপত্রের নামে মোটা অংকের টাকা নেওয়ার অভিযোগও রয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে।

কম খরচে উন্নত চিকিৎসা নিশ্চিত করতে ১৯৯৭ সালে ১০০ শয্যা নিয়ে যাত্রা শুরু করে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতাল। ২০১৩ সালে হাসপাতালটিকে রুপান্তর করা হয় ২৫০ শয্যায়। পাশাপাশি হাসপাতালটিতে উন্নত যন্ত্রপাতিসহ সুযোগ সুবিধাও বাড়ানো হয়। কিন্তু সেই সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে রোগীরা।

অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতিগুলো হাসাপাতালে থাকলেও অব্যবহৃত হয়ে পড়ে আছে। এদিকে হাসপাতালে পর্যাপ্ত চিকিৎসক থাকলেও জরুরি বিভাগের মত গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় মেডিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্টদেরই পাওয়া যায় বেশির ভাগ সময়। এছাড়া হাসপাতাল থেকে যেসব ওষুধ বিনামূল্যে সরবরাহ করার কথা, তাও মিলছে না বলে অভিযোগ করেছেন রোগীরা।

এ বিষয়ে রোগীরা বলেন, ভালো চিকিৎসকের পাশাপাশি রয়েছে পর্যাপ্ত ওষুধের অভাব।

এদিকে বিভিন্ন ডিপ্লোমা কোর্সের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সনদপত্রের নামে মোটা অংকের টাকা নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অব্যবস্থাপনার কথা অস্বীকার করে হাসপাতালে তত্ত্ব¡াবধায়ক ডা: মিজানুর রহমান জানিয়েছেন, হাসপাতালে ওষুধ না থাকায় রোগীদের  সরবরাহ করা যাচ্ছে না। আর শিক্ষানবিশদের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি বলেন, সনদপত্র বাবদ নামমাত্র কিছু টাকা নেওয়া হচ্ছে।

দুদক কমিশনার এ.এফ.এম আমিনুল ইসলাম সকল বিষয়গুলোর সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এসব অনিয়মের বিরুদ্ধে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

হাসপাতালটির সকল অনিয়ম রুখতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দ্রুত ব্যবস্থা নিবে-এমনটাই প্রত্যাশা মেহেরপুরবাসীর।

এই বিভাগের আরো খবর

গাজীপুরের মাওনায় `জঙ্গি আস্তানা ' সন্দেহে একটি বাড়িতে অভিযান

গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুরের মাওনায় নিষিদ্ধ জঙ্গি দল জেএমবির আস্তানা সন্দেহে একটি বাড়ি ঘিরে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ। কাউন্টার টেরোরিজম...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is