ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১১ ফাল্গুন ১৪২৪

2018-02-22

, ৬ জমাদিউল সানি ১৪৩৯

গাজীপুরে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে শিশু হত্যার অভিযোগ

প্রকাশিত: ০৬:৪৯ , ০৩ ডিসেম্বর ২০১৭ আপডেট: ০৬:৫১ , ০৩ ডিসেম্বর ২০১৭

গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুরের শ্রীপুরে মৌসুমী আক্তার নামে আট বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় নিহতের সৎ ভাই ইদ্রিস আলীকে আটক করেছে পুলিশ। মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহত মৌসুমী আক্তার শ্রীপুর উপজেলার গাজীপুর উত্তরপাড়া এলাকার কুদ্দুছ মিয়ার মেয়ে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, স্থানীয় গাজীপুর সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার ১ম শ্রেণিতে পড়তো মৌসুমী। রোববার সকালে শিশু মৌসুমীর মৃত্যুর খবরে এলাকাবাসি তার বাড়িতে ভিড় জমায়। এসময় নিজ কক্ষে মৃত মৌসুমীর গলায় কালো দাগ দেখে বিষয়টি তাদের সন্দেহ হয়। এরপর থানায় খবর দেওয়া হলে ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এসময় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের সৎ ভাই ইদ্রিস আলীকে আটক করা হয়।

নিহতের মা রমিজা খাতুনের আগের স্বামীর ঘরে ইদ্রিস আলী ও ইমান আলী নামে দুই ছেলে রয়েছে। ওই দুই ছেলেসহ কুদ্দুছ মিয়ার সঙ্গে তার দ্বিতীয় বিয়ে হয়। কুদ্দুছের ঘরে মৌসুমী  ও কাউছার নামে তার আরও দুই সন্তান রয়েছে। রমিজা খাতুন সপরিবারে মৌসুমীর নানা বাড়িতেই থাকতেন।

পুলিশ আরও জানায়, নিহতের গলায় ও গোপনাঙ্গে রক্তের দাগ রয়েছে। তাকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর এ বিষয়ে বিস্তারিত বলা যাবে।

 

এই বিভাগের আরো খবর

বরযাত্রীর গাড়িতে ডাকাতি

সীতাকুণ্ডে র‌্যাবের সাথে গোলাগুলিতে এক ডাকাত নিহত

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বর যাত্রীর গাড়িতে ডাকাতির সময় র‌্যাবের সাথে গোলাগুলিতে এক ডাকাত নিহত হয়েছে। ভোরে, উপজেলার...

মৌলভীবাজারে ট্রেনের ১১ বগি লাইনচ্যুতিতে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি: মৌলভীবাজারে সিলেট থেকে ছেড়ে আসা আন্তঃনগর উপবন এক্সপ্রেস ট্রেনের ১১টি বগি লাইনচ্যুত হয়েছে। এতে সিলেটের সঙ্গে...

চট্টগ্রামে জোড়া খুন

ছাত্রলীগ-যুবলীগের ৬৪ জনের বিরুদ্ধে পিবিআইয়ের অভিযোগপত্র

নিজস্ব প্রতিবেদক: চট্টগ্রামে রেলের কোটি টাকার দরপত্র নিয়ে সংঘর্ষে এক শিশুসহ দুজন গুলিতে নিহত হওয়ার মামলায় ছাত্রলীগ-যুবলীগের ৬৪ জনকে আসামি...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is