ঢাকা, বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৮, ৪ মাঘ ১৪২৪, ২৯ রবিউস সানি ১৪৩৯

স্বাধীনতার ৪৬ বছর

স্বাস্থ্য সেবার মান নিয়ে আছে বঞ্চনার দীর্ঘশ্বাস

প্রকাশিত: ১০:১৫ , ০৭ ডিসেম্বর ২০১৭ আপডেট: ০৫:৪২ , ০৭ ডিসেম্বর ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিজয়ের ৪৬ বছরে স্বাস্থ্য খাতে অনেক কিছু জয় করেছে দেশ, শুধু পারেনি স্বাস্থ্য সেবার মান নিয়ে সাধারণ মানুষের মন জয় করতে। নানা পরিসংখ্যান, সূচকে সাফল্যের তালিকা দীর্ঘ, কিন্তু শুধু বিস্তৃত গ্রামীণ জনপদেই নয় নগরেও আছে বহুমুখী বঞ্চনার দীর্ঘশ্বাস। স্বাস্থ্য সেবা খাত নিয়ে জীবন উৎসর্গকারী ক'জন মূল্যায়ন করলেন আমাদের গুরুত্বপূর্ণ অর্জন ও ব্যর্থতার জায়গাগুলো। বিজয়ের সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের আগের ক'বছরে স্বাস্থ্য খাতের সুনাম চান তারা।
 
৩০ লক্ষ শহীদের প্রাণ আর এক সাগর রক্তে পাওয়া বাহাত্তরের মূল সংবিধানে স্বাস্থ্য সেবা দেশের মানুষের মৌলিক অধিকার। তখন ছিল সাড়ে সাত কোটি মানুষ, এখন ১৬ কোটি। একাত্তরে মানুষের গড় আয়ু ছিল ৩৭, এখন ৭৩। এছাড়াও আরও নানা পরিসংখ্যান ও সূচকে আছে সফলতার বিশাল তালিকা।  

৪৬ বছরে স্বভাবতই রোগীর সংখ্যা বেড়েছে, সরকারি-বেসরকারি খাতে বেড়েছে হাসপাতাল, স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র, চিকিৎসকের সংখ্যা। হয়েছে নিজস্ব ওষুধ উৎপাদন শিল্প। কিন্তু কত মানুষ প্রয়োজনের সময় যথার্থ চিকিৎসকের কাছে যেতে পারেন ? স্বাস্থ্য সচেতনতা তাদের মধ্যে কেমন সেটাও জরুরি বিষয় বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

বহু অর্জনের  পরও বিজয়ের ৪৬ বছরেও স্বাস্থ্য খাতের বিদ্যমান বাস্তবতা সন্তোষজনক নয় বিশেষজ্ঞদের পর্যবেক্ষণে। সবচেয়ে বঞ্চিত দেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠী। আর মাত্র তিন বছর পর বিজয়ের সুবর্ণ জয়ন্তীর আনুষ্ঠানিক উৎসবের আগে মানুষের দোরগোড়ায় সঠিক চিকিৎসা ও স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছে দেয়া গেলে সেই উৎসব স্থায়ীভাবে ছড়িয়ে পড়বে ঘরে ঘরে।

দেশে এখন হাসপাতাল ৩ হাজার ৫৭৫টি, এর মধ্যে সরকারি ৫৯২টি। ইউনিয়ন পর্যায়ে আছে ১৩ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক। এত বড় পরিসংখ্যানের আড়ালে যথাযথ ভাবে মানুষ সেবা পাচ্ছে কিনা সেটার নিশ্চয়তা সুবর্ণ জয়ন্তীর আগে চান স্বাস্থ্য খাত বিশেষজ্ঞরা।

 

এই বিভাগের আরো খবর

নিরাপত্তার জন্য সংসদ ভবন পরিদর্শনের সুযোগ কম সাধারণ মানুষের

নিজস্ব প্রতিবেদক : দূর থেকে দেখে অভিভূত হওয়া ছাড়া জাতীয় সংসদ ভবনের ভেতরে গিয়ে দেখবার সুযোগ সাধারণের জন্য নেই বললেই চলে। অধিবেশন চলার সময়...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is