ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫

2018-09-20

, ৯ মহাররম ১৪৪০

শতকোটি টাকার ইয়াবা বাণিজ্য

রাজধানীর কুইন মেরি কলেজের চেয়ারম্যানের বিশাল সিন্ডিকেট

প্রকাশিত: ১০:২৩ , ০৭ ডিসেম্বর ২০১৭ আপডেট: ০৫:৪২ , ০৭ ডিসেম্বর ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক : শিক্ষানুরাগীর পরিচয়ে রাজধানীতে ইয়াবা ব্যবসার বিশাল সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছিলো কুইন মেরি কলেজের চেয়ারম্যান শাহ জামাল। রাজধানীর ষোলটি এলাকার অন্তত ২২ জন ব্যবসায়ীকে নিয়মিত ইয়াবা সরবরাহ করত সে। অল্প সময়ে হয়েছে শত কোটি টাকার মালিক। প্রগতি স্বরণীতে কুইন মেরি কলেজের অষ্টম তলায় নিজ মালিকানাধীন ফ্ল্যাট থেকে ব্যবসা পরিচালনা করতো শাহ জামাল। সম্প্রতি ইয়াবা সরবরাহ করতে গিয়ে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের কাছে ধরা পড়ে শাহ জামাল।

রাজধানীর প্রগতি স্বরণীর কুইন মেরি কলেজের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শাহ জামাল। একজন শিক্ষানুরাগী হিসেবে তার পরিচিতি গড়ে উঠলেও এই পরিচয়ের আড়ালে দীর্ঘদিন ধরেই ইয়াবা ব্যবসা করে আসছিলো সে। গত ২ ডিসেম্বর রাতে ভাটারার জগন্নাথপুর এলাকায় ইয়াবা সরবরাহ করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়ে শাহ জামাল। তার প্রাইভেটকার তল্লাশী করে ১ হাজার ৬শ’ পিস ইয়াবা জব্দ করেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। পরে কুইন মেরি কলেজ ভবনের অষ্টমতলায় তার মালিকানাধীন ডুপ্লেক্স ফ্ল্যাটে অভিযান চালিয়ে আরো ৫ হাজার পিস ইয়াবা জব্দ করা হয়। জেল হাজতে পাঠানো হয় শাহ জামালকে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, কক্সবাজারের আইয়ুব ও আজিজ নামের দু’জন ব্যবসায়ীর মাধ্যমে ইয়াবার চালান ঢাকায় আনতো শাহ জামাল। সেগুলো রাখতো কুইন মেরি কলেজের অষ্টম তলার ফ্ল্যাটে। এরপর নিজেই বিলাসবহুল গাড়িতে করে রাজধানীর ষোলটি এলাকার ২২জন ইয়াবা ব্যবসায়ীর কাছে সরাসরি সরবরাহ করতো।

এই চক্রের সদস্যরা হল- রাজধানীর দক্ষিণ খানের হানিফ ও শিকদার, আমিন বাজারের শহিদুর রহমান, বাসাবো কদমতলার নূর মোহাম্মদ, সাভারের মোহাম্মদ জালাল, বাড্ডার সঞ্জিত মাঝি, মীরবাগের  মো. শাকিল, গেন্ডারিয়ার রাসেল, ভাটারার জামাল হোসেন, রুবেল ব্যাপারী ও সুমন মিয়া, হাজারীবাগে লিপি রহমান ও মাইনউদ্দিন, নিউমার্কেট এলাকায় আসমা আহমেদ ডালিয়া, এলিফেন্ট রোডে মো. রবিউল ইসলাম, পশ্চিম রাজাবাজারে মনোয়ার বেগম, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পাড়ার কলিমউদ্দন ওরফে হৃদয় ও কামাল হোসেন, সেগুনবাগিচার আজিম হাওলাদার, দনিয়ার মহিউদ্দিন ইসলাম এবং বংশালের নবাবপুরের দুলাল চন্দ্র শীল ও নাসির উদ্দিন।

এদের আইনের আওতায় আনতে অভিযান চলছে বলে জানিয়েছে মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। শাহ জামালের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে রাজধানীর ইয়াবা বিক্রেতা চক্রের রাঘব বোয়ালদের ব্যাপারেও খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে বলে জানান অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মুকুল জ্যোতি চাকমা।

এ ব্যাপারে কথা বলতে কুইন মেরি কলেজে গেলে দায়িত্বশীল কেউই কথা বলতে রাজি হননি। তবে শাহ জামাল, কলেজে অনিয়মিত ছিলো বলেই জানা গেছে। যদিও কলেজ ভবনের উপরের ফ্ল্যাটে ছিলো নিয়মিত যাতায়াত।
 
শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যানের এ ধরনের কার্যকলাপে জড়িত থাকাটার বিষয়টি উদ্বেগ ও লজ্জার বলে মন্তব্য করেছেন প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা-কর্মচারি এবং স্থানীয় বাসিন্দারা।

 

এই বিভাগের আরো খবর

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is