ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮, ১ কার্তিক ১৪২৫

2018-10-16

, ৫ সফর ১৪৪০

মুক্তিযুদ্ধের আদর্শিক লড়াই শেষ হয়নি আজও

প্রকাশিত: ০১:০৪ , ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ আপডেট: ০৩:৩৬ , ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশের জনগণ ও দলগুলোর মধ্যে মৌলিক ঐক্যের জায়গাটা হওয়ার কথা ছিল ‘মুক্তিযুদ্ধ’। এ দেশের কিছু দল ও ব্যাক্তি সেই মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করতে গিয়ে একাত্তরে বিভেদ সৃষ্টি করে। স্বাধীনতার পরও ভুল সংশোধন করে সেই অবস্থান থেকে সরে না এসে সেই বিভেদ তারা জিইয়ে রেখেছে। বিজয়ের ৪৬ বছর পরও বিভেদ বিদ্যমান। ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ, দর্শন ও চেতনার জায়গা। লড়াই শেষ হয়নি আজও। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষকদের আকক্সক্ষা-মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন বাস্তবায়নের চ্যালেঞ্জ জয় করাটাই বিজয়ের সুবর্ণ জয়ন্তীর অঙ্গীকার হোক।

একাত্তরের বিভেদ থেকেই মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে মুছে ফেলা, এর গৌরবের ইতিহাসকে বিকৃত, বিতর্কিত করার অপচেষ্টা বরাবরই দেশে-বিদেশে করে এসেছে বাংলাদেশ বিরোধীরা। ফলে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস নিয়ে স্বাধীনতাত্তোর নতুন প্রজন্ম দুঃখজনকভাবে বিভ্রান্তি ও বিভক্তি বেড়াজালে আটকে পড়েছে। যার কুফল আজ ভোগ করতে হচ্ছে সমাজকে।

গবেষকদের মতে, স্বাধীনতার পক্ষ-বিপক্ষ বলে কোন বিতর্ক ও পার্থক্য থাকা উচিৎ নয়। সবার মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পক্ষে থাকা উচিৎ ।

যেই আদর্শ সমাজ গঠনের স্বপ্ন নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিলো, সেই সমাজ বিনির্মাণে বিজয়ের ৪৬ বছরে কতটা এগোনো সম্ভব হয়েছে, আর কতটা হয়নি, তা নিয়ে একাত্তরের লড়াকু যোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষকদের রয়েছে নানা বিশ্লেষণ, আশার জায়গাও রয়েছে তাঁদের চিন্তায়।।  

মুক্তিযোদ্ধাদের একটি সঠিক স্থায়ী তালিকা করা যায়নি বিজয়ের ৪৬ বছরেও। বরং এ তালিকা তৈরিতে দুর্নীতি ও অনিয়মের খবর শোনা যায়।

এই বরেণ্য মুক্তিযোদ্ধারা চান, অতীতের সব গ্লানি মুছে প্রাণখোলা পরিবেশে কয়েক বছর পর সুবর্ণ জয়ন্তীর আনন্দে মেতে উঠতে।

কয়েক বছর বাকি থাকলেও এখনই বিজয়ের সুবর্ণ জয়ন্তীর কথা ভেবে আবেগে যেনো একাত্তরের আবেগাপ্লুত সময়ে ফিরে যান মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক ও বিশ্লেষকরা।

এই বিভাগের আরো খবর

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is