ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারী ২০১৮, ১০ মাঘ ১৪২৪, ৬ জুমাদিউল আউয়াল ১৪৩৯

অপেক্ষায় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল

শুরু হতে যাচ্ছে পদ্মাসেতুর রেলসংযোগ প্রকল্পের কাজ

প্রকাশিত: ১১:১৫ , ২২ ডিসেম্বর ২০১৭ আপডেট: ০২:৪১ , ২২ ডিসেম্বর ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক: শুরু হওয়ার অপেক্ষায় পদ্মা সেতুর রেলসংযোগ প্রকল্পের মূল কাজ। কমলাপুর থেকে যশোর পর্যন্ত ১৭২ কিলোমিটার দীর্ঘ এই মেগা প্রজেক্টের মাধ্যমে রেলপথে ঢাকার সাথে যুক্ত হবে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল। এরই মধ্যে শুরু হয়েছে ভূমি অধিগ্রহণ ও পুনর্বাসনের কাজ। প্রকল্পটির পরামর্শক ও তত্ত্বাবধায়ক হিসেবে কাজ করছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কনস্ট্রাকশন সুপারভিশন কনসালট্যান্ড- সিএসসি সেল। 
    
পদ্মা সেতুর মূল প্রকল্পের সাথেই রয়েছে রেল সংযোগ প্রকল্প। এর আওতায় ঢাকা থেকে কেরানীগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ ও ফরিদপুরের ভাঙ্গা হয়ে যশোর পর্যন্ত নির্মাণ করা হবে ১৭২ কিলোমিটার রেলপথ। যুক্ত করা হবে পদ্মার দু’পারের মানুষকে। 

দেশের রেল যোগাযোগ খাতের সবচেয়ে বড় এই প্রকল্পের নির্মাণ ব্যয় প্রায় পঁয়ত্রিশ হাজার কোটি টাকা। দেশী অর্থায়নের পাশাপাশি সহযোগিতা করবে চীন। মোট ব্যয় ৩৪ হাজার ৯৯০ কোটি টাকা। এরমধ্যে চীন সরকার দিবে ২৪ হাজার ৭৪৯ কোটি টাকা। বাংলাদেশ সরকার ব্যয় করবে ১০ হাজার ২৪০ কোটি টাকা।

ঢাকা থেকে যশোর পর্যন্ত লুপসহ ২১৫ কিলোমিটার ব্রডগেজ রেললাইনের জন্য জমির এলাইনমেন্ট ও জরিপ শেষে অধিগ্রহণ ও পুর্নবাসন কাজ করছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। এরই মধ্যে জমি অধিগ্রহণ করা হচ্ছে। ব্যক্তি মালিকানাধীন এক হাজার ৬৪৪ একর, সড়ক ও জনপথ মন্ত্রণালয়ের ২০০ একর। জানালেন, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক আমজাদ হোসেন।

এই রেলপথের মাধ্যমে দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের পাশাপাশি উপআঞ্চলিক ও ট্রান্স এশিয় রেল যোগাযোগ স্থাপন সম্ভব হবে বলে জানান সিএসসি’র প্রধান সমন্বয়ক মেজর জেনারেল আবু সাইদ মোঃ মাসুদ।
    
এই মেগা প্রকল্পের মেয়াদ পাঁচ বছর হলেও আগামী বছরের শেষ নাগাদ আংশিক রেল চলাচল শুরু করা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।


 

এই বিভাগের আরো খবর

ডিসেম্বরের মধ্যে পদ্মা সেতু নির্মাণের চেষ্টা চলছে

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, পদ্মা নদীর মাটির লেয়ারের ভিন্নতার কারণে ১৪টি পিয়ার লোকেশনে পাইলের নকশা...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is