ঢাকা, বুধবার, ১৮ জুলাই ২০১৮, ৩ শ্রাবণ ১৪২৫

2018-07-17

, ৪ জিলকদ্দ ১৪৩৯

কোল্ড অ্যালার্জি থেকে বাঁচবেন কীভাবে?

প্রকাশিত: ০৭:০২ , ০৮ জানুয়ারী ২০১৮ আপডেট: ০৭:০২ , ০৮ জানুয়ারী ২০১৮

ডেস্ক প্রতিবেদন: শীতকাল এলেই অনেকে অ্যালার্জি আক্রান্ত হয়ে পড়ে। এর কারণ এ সময় ঠাণ্ডা বাতাস, ধুলা-বালি বেড়ে যায়। এছাড়া সিগারেটের ধোঁয়া, সুগন্ধি, তীব্র গন্ধ, পুরোনো পত্রিকা বা বইখাতার ধুলা অনেকেই একেবারে সহ্য করতে পারেন না।

কোল্ড অ্যালার্জি থেকে বাঁচার উপায়

ঠাণ্ডা বাতাস থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য একধরনের মুখোশ (ফিল্টার মাস্ক) বা মুখবন্ধনী ব্যবহার করা যেতে পারে। শ্বাসকষ্টের জন্য বহুলাংশে দায়ী যেমন ধুলাযুক্ত জীবাণু, মোল্ড, পরাগরেণু থেকে বাঁচিয়ে চলতে হবে।

বিছানা ও আসবাবপত্রে অ্যালার্জি

এই সময়ে বিছানার চাদর, বালিশের কাভার, বালিশ, লেপ, তোশক, ম্যাট, কম্বল, মশারিতে ধুলাযুক্ত জীবাণু বেশি জমে। আমাদের শরীরের ত্বক থেকে প্রতিনিয়ত ঝরে যাওয়া অসংখ্য মৃত কোষ খেয়ে বেঁচে থাকে এই জীবাণু। এরা প্রতিনিয়ত প্রচুর বিষ্ঠা ত্যাগ করে। ঘরদোর, বিছানা যখন ঝাড়ু দেওয়া হয় তখন এই বিষ্ঠাগুলো বাতাসে ভেসে বেড়ায় এবং পুরো বাড়িতে ছড়িয়ে পড়ে। ধুলাযুক্ত জীবাণুর বিষ্ঠাই আমাদের অনেকের শরীরে অ্যালার্জি আক্রান্ত হওয়ার মূল কারণ। বিছানার ধুলাযুক্ত জীবাণু থেকে পরিত্রাণ পেতে বিছানার চাদর, বালিশের কাভার, লেপের কাভার, মশারি ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিতে হবে।

কার্পেট, ম্যাট
ঘরের সৌন্দর্য বাড়িয়ে তুলতে এবং শীতের সময় ঘর উষ্ণ রাখতে মেঝেতে নামীদামি কার্পেট ও ম্যাট বিছিয়ে রাখেন অনেকে। কিন্তু এই কার্পেট ও ম্যাটে প্রতিদিন প্রচুর ধুলাবালু ও ময়লা জমে। এই ময়লা থেকে জন্ম নেওয়া ডাস্ট মাইট বিশেষ করে শিশুরা ম্যাটে ও কার্পেটে বসে থাকে, খেলাধুলা করে, যে কারণে তারা অ্যালার্জিতে আক্রান্ত হয় এবং বাধিয়ে ফেলে নানান অসুখ। ধুলা এড়াতে প্রায় প্রতিদিনই ভ্যাকুয়াম ক্লিনার দিয়ে পরিষ্কার করা দরকার। যদি ভ্যাকুয়াম ক্লিনার হাতের কাছে না থাকে তাহলে ছাদে নিয়ে ম্যাট ও কার্পেট ঝাড়ু দিয়ে পরিষ্কার করে নিতে পারেন। পরিষ্কার করা ম্যাট ও কার্পেট মেঝেতে বিছানোর আগে মেঝে ভেজা কাপড় দিয়ে মুছে নিন।

দরজা, জানালা ও পর্দা

বাসাবাড়িতে দরজা-জানালায় প্রতিদিন প্রচুর ময়লা জমে। সেই সঙ্গে দরজা, জানালার পর্দার ভাঁজে ভাঁজে জমা হতে থাকে ধুলাযুক্ত জীবাণু। পর্দা নাড়াচাড়া করার পর ধুলা নাকে-মুখে প্রবেশ করে মানুষের মধ্যে অ্যালার্জি সৃষ্টি করে। প্রায় প্রতিদিন দরজা-জানালা পরিষ্কার করা প্রয়োজন। এক সপ্তাহ পরপর ভেজা কাপড় দিয়ে মুছে নেওয়া দরকার। সেই সঙ্গে মোটা কাপড়ে তৈরি পর্দা মাঝেমধ্যে ধুয়ে নেওয়া দরকার এবং প্রতিদিন ঝেড়ে নেওয়া প্রয়োজন।

পোষা প্রাণী থেকে

অনেকেই বাসাবাড়িতে বিড়াল, কুকুর, ভেড়া, ছাগল, ময়না, টিয়া, ঘুঘুসহ নানান জাতের পশুপাখি পুষে থাকেন। অনেকে হয়তো জানেন না অতিপ্রিয় পোষা এই প্রাণীদের শরীরে প্রতিদিন ধুলাযুক্ত জীবাণু জন্মে এবং তাদের শরীরের লোম থেকে অ্যালার্জি সৃষ্টি হয়। পশুপাখির মলমূত্র ও লালা থেকেও সৃষ্টি হয় অ্যালার্জি। পশুপাখিদের প্রতিদিন না হলেও দু-এক দিন পরপরই গোসল করিয়ে দেওয়া প্রয়োজন। গোসলে যদি সাবান ব্যবহার করা যায় তাহলে অনেক ভালো হয়। পশুপাখি যখন মলমূত্র ত্যাগ করে তখন তা যেন পাত্রে করে, এই অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। পশুপাখি যে জায়গায় থাকে সেই জায়গাটা প্রতিদিন পরিষ্কার রাখা প্রয়োজন। শিশুদের খেলনা, জুতা, ফ্যান, এসি, ঝাড়বাতি ও বিভিন্ন শোপিসে ধুলোবালু জমে জন্ম নেয় অ্যালার্জি। এসব শখের জিনিস ভালোভাবে একদিন পরপর পরিষ্কার করা অত্যন্ত প্রয়োজন।

 

এই বিভাগের আরো খবর

ডাক্তারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থার ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধতা রয়েছে বিএমডিসি’র

নিজস্ব প্রতিবেদক : ভুল চিকিৎসা, অবহেলা ও অনিয়মের কারণে ডাক্তারদের বিরুদ্ধে জোরালো ব্যবস্থা নিতে পারে না বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল...

কাঁঠালের যত গুন

ডেস্ক প্রতিবেদন: ফলের পছন্দের তালিকায় কাঁঠালের নামটি অনেকেরই আছে। এটির রসালো টুকরা জ্বিহŸায় দিলে নিমিষেই মুখের ভিতর অন্যরকম স্বাদের...

ঘরে বানান ইটালিয়ান পাস্তা 

ডেস্ক প্রতিবেদন: বিদেশি খাবারের প্রতি লোভ থাকাটাই স্বাভাবিক। আর বিদেশি বিভিন্ন খাবারের জন্য  বেশিরভাগ সময় রেস্টুরেন্টে ভিড় জমায় মানুষ।...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is