ঢাকা, বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

2018-11-21

, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

ভুট্টা ও বোরো ধানের আবাদ সম্ভব 

কুড়িগ্রামের চরাঞ্চলে ধানের বদলে বাদাম-খেসারি 

প্রকাশিত: ০৯:২৭ , ১২ জানুয়ারী ২০১৮ আপডেট: ০৯:২৭ , ১২ জানুয়ারী ২০১৮

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: দু’দফা বন্যায় বদলে গেছে কুড়িগ্রামের চরাঞ্চলের কৃষি। চারশতাধিক চর বালুতে ঢেকে যাওয়ায় ধানের বদলে এখন চাষ হচ্ছে বাদাম, খেসারিসহ বিভিন্ন ফসল। উন্নত জাতের বীজের অভাবে প্রচলিত বীজের ওপর ভরসা করতে হচ্ছে কৃষকদের। তবে, কিছু এলাকায় সেচের ব্যবস্থা করা গেলে এখনো ভুট্টা ও বোরো ধানের আবাদ করা সম্ভব বলে জানালেন তারা। এদিকে, জেলা প্রশাসন ও কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকেও তাদেরকে সহযোগীতার কথা বলা হয়েছে। 

কুড়িগ্রামের সীমান্তবর্তী আইড়মারির চর। দু’দফা বন্যায় বালুতে ঢেকে গেছে চরের বেশির ভাগ এলাকা। ফলে, ধান চাষের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে জমি।

এই অবস্থা জেলার আরো চারশতাধিক চরের। কৃষকরা ধান আবাদ ছেড়ে সবজি চাষের পাশাপাশি বালু মাটিতে বাদাম, খেসারির চাষ করছেন। 

উন্নত জাতের বীজ না পাওয়ায় স্থানীয় বীজের ওপরই ভরসা করতে হয় কৃষকদের। তবে, সেচের ব্যবস্থা করা গেলে ভুট্টা ও বোরো ধান চাষ করা সম্ভব বলেও জানান তারা।

কৃষকদেরকে উপকরণ ও বিকল্প ফসল চাষের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে বলে জানালেন কুড়িগ্রাম কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মকবুল হোসেন।

চরের কৃষকদের উন্নয়নের সব ধরণের সহায়তা দেয়া হবে বলে জানালেন জেলা প্রশাসক আবু সালেহ মো. ফেরদৌস খান।

এদিকে, বন্যার পর চরাঞ্চলে কমেছে কাজের জায়গা, তাই বিকল্প কাজের সন্ধানে ভিটেমাটি ছেড়ে অন্যত্র চলে যাচ্ছেন অনেকে। 

এই বিভাগের আরো খবর

চট্টগ্রামে সবচেয়ে বড় জুলুস

নিজস্ব প্রতিবেদক: পবিত্র ঈদ-এ-মিলাদুন্নবী উপলক্ষে দেশের সবচেয়ে বড় জুলুস বের করা হয় চট্টগ্রামে। নগরীর ষোলশহর জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is