ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ২৯ কার্তিক ১৪২৫

2018-11-13

, ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

আট ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল

প্রকাশিত: ০২:২৬ , ১৬ জানুয়ারী ২০১৮ আপডেট: ০২:৩৩ , ১৬ জানুয়ারী ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ রাষ্ট্রীয় আট ব্যাংকের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা পদে নিয়োগ পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে গভর্নর ফজলে কবিরের সভাপতিত্বে জরুরি সভায়  রাষ্ট্রীয় ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর নিয়োগের দায়িত্বে থাকা ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটি, ১৪টি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহীরা এ সিদ্ধান্ত নেন। পরীক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে এ সিদ্ধান্ত  নেওয়া হলো।

বাংলাদেশ ব্যাংকের আহবানে ওই সভায় পরীক্ষা ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন।

সভায় নেওয়া তিনটি সিদ্ধান্ত হচ্ছে, পরীক্ষা বাতিল, তদন্ত কমিটি গঠন, তদন্ত কমিটি দুই সপ্তাহের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল । সেই প্রতিবেদনের ভিত্তিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা বিভাগের কাছে ব্যাখ্যা চাওয়া হবে।  এরপর সিদ্ধান্ত হবে পরবর্তী সময়ে কী প্রক্রিয়ায় এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

সভা শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের সহকারী মুখপাত্র জি এম আবুল কালাম আজাদ সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, “আজকের মিটিংয়ে ওই পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত হয়েছে। পরীক্ষা কবে হবে তা পরে জানিয়ে দেওয়া হবে।”

গত শুক্রবার রাজধানীর ৬১টি কেন্দ্রে এই নিয়োগ পরীক্ষার আয়োজন করা হলেও আসন স্বল্পতার কারণে গণ্ডগোলে মিরপুরের দুটি কেন্দ্রের সাড়ে পাঁচ হাজারের বেশি চাকরিপ্রার্থী সেদিন পরীক্ষা দিতে পারেননি। অন্যান্য কেন্দ্রেও প্রশ্নপত্র দেরিতে পৌঁছানোসহ নানা অব্যবস্থাপনার অভিযোগ পাওয়া যায়।

সরকারি ব্যাংকগুলোর নিয়োগপ্রক্রিয়ায় বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৫ সালে ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটি গঠন করে সরকার। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরকে প্রধান করে সরকারি সব ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের এমডিদের এতে সদস্য করা হয়। এরপরও নিয়োগ পরীক্ষার অব্যবস্থাপনা ও প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনা ঘটছে। প্রশ্ন ফাঁসের কারণে ইতিমধ্যে দুটি ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল হয়েছে।

গত শুক্রবার রাষ্ট্রায়ত্ত তিন ব্যাংকসহ আট ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তার (সাধারণ) ১ হাজার ৬৬৩টি শূন্যপদে নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণযোগ্য পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ২ লাখ ১৩ হাজার। ৬১টি কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত ওই পরীক্ষার অনেক কেন্দ্রেই আসন-ব্যবস্থাপনা, সময়মতো প্রশ্নপত্র না পাওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগ করেছেন পরীক্ষার্থীরা।

এই বিভাগের আরো খবর

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is