ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১০ ফাল্গুন ১৪২৪

2018-02-21

, ৫ জমাদিউল সানি ১৪৩৯

কমছে না চালের দাম

প্রকাশিত: ১০:১০ , ২৩ জানুয়ারী ২০১৮ আপডেট: ০৯:৩৭ , ২৩ জানুয়ারী ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: মজুদ কমে যাওয়ার খবরে মাস চারেক আগে চালের দাম সেই যে বেড়েছে তা আর কমছেই না। শুল্ক কমানো, বাজার তদারকিসহ সরকার নানা পদক্ষেপ নিলেও খুব একটা সুফল পাচ্ছে না মানুষ। খুচরা বিক্রেতারা বলছেন, মিল মালিকদের কারসাজির কারণে চালের বাজারের অস্থিরতা কাটছে না। এ অবস্থায় কম শুল্কে চাল আমদানি সুবিধার অপব্যবহার হচ্ছে কি-না তা খতিয়ে দেখার পরামর্শ সংশ্লিষ্টদের।

২০০৯ সালে যে চাল বিক্রি হতো ১৯ টাকা কেজি, নয় বছরের ব্যবধানে দ্বিগুণ বেড়ে এখন তা বিক্রি হচ্ছে ৪২ টাকা কেজি। বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, প্রতিবছর চালের দাম গড়ে দুই থেকে তিন টাকা হারে বেড়েছে। কিন্তু গতবছর সেপ্টেম্বর মাসে হঠাৎ চালের বাজারে অস্থিরতা শুরু হয়। মজুদ ঘাটতির অজুহাতে মিল মালিকরা রকম ভেদে চালের দাম কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা পর্যন্ত বাড়িয়ে দেয়।

বাজারের লাগাম টানতে চাল আমদানিতে উল্লেখযোগ্য হারে শুল্ক কমানোসহ নানা পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। কিন্তু তার পরও বাজার অস্থির।

খুচরা ব্যবসায়ীদের দাবি, পর্যাপ্ত মজুদ থাকার পরও মিল মালিকদের কারণেই চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে আসছে না।

আর মিল মালিকরা বলছেন, বন্যার কারণে আমনের ফলন কম হওয়ায় কমছে না চালের দাম।

বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারি তদারকি বাড়ানোর পাশাপাশি আমদানি শুল্ক কমানোর যথাযথ ব্যবহার হচ্ছে কি না তা খতিয়ে দেখার কথা বললেন অর্থনীতিবিদ ও বাজার বিশ্লেষকরা।

টিসিবি’র হিসাব অনুযায়ী প্রতি বছর দেশে চালের চাহিদা থাকে প্রায় সাড়ে ৩ কোটি মেট্রিক টন। যার বিপরীতে উৎপাদন চাহিদা মিটিয়েও উদ্বৃত থাকে ২ থেকে ৩ লাখ মেট্রিক টন।

 

এই বিভাগের আরো খবর

কুড়িগ্রামের সোনাহাট বন্দরে চালু হয়নি ইমিগ্রেশন ব্যবস্থা

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামের সোনাহাট স্থলবন্দর তিন বছর আগে চালু হলেও এখনো চালু হয়নি ইমিগ্রেশন ব্যবস্থা। ফলে বাংলাদেশ ও ভারতের...

ব্যক্তিস্বার্থে ব্যবহারের অভিযোগ

শেরপুরে কমিউনিটি ক্লিনিকের সোলার বিদ্যুৎ নিয়ে অনিয়ম

শেরপুর প্রতিনিধি: বিদ্যুৎবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর জন্য স্থাপন করা হলেও শেরপুরের নকলায় কমিউনিটি ক্লিনিকের সোলার প্যানেল ব্যবহার হচ্ছে...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is