ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ আগস্ট ২০১৮, ৬ ভাদ্র ১৪২৫

2018-08-20

, ৮ জিলহজ্জ ১৪৩৯

বিচার না হওয়ায় হতাশ সাগর-রুনির পরিবার 

প্রকাশিত: ০২:২৮ , ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ আপডেট: ০২:২৮ , ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিচার না পেয়ে ছয় বছরে সাগর-রুনির পরিবারে তৈরি হয়েছে পাহাড় সমান হতাশা। ক্ষোভে বাকরুদ্ধ মেহেরুন রুনির মা নুরুন্নাহার মির্জা গণমাধ্যমের সাথে কথা বলতে নারাজ।  প্রায় একই অভিব্যক্তি জানালেন সাগর সরওয়ারের মা সালেহা মুনিরও। কিন্তু এখনো বিচারের আশা ছাড়েননি তিনি। ছয় বছরের অভিজ্ঞতায় অনেকটা বিরক্ত রুনির ছোটভাই ও সাংবাদিক দম্পতি হত্যা মামলার বাদী নওশের আলম রোমান। 
গত ছয় বছরে এভাবেই চোখের পানি ঝরছে সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহরুন রুনির মা’য়ের। কেনো, কিভাবে এবং কারা হত্যা করেছে এই দম্পতিকে সেটা এখনো রহস্য। বিচার না পেয়ে চোখের পানি ও সন্তানের স্মৃতি নিয়েই বেঁচে আছেন পরিবারের সদস্যরা। 

নিহত সাগর সরওয়ারের মা সালেহা মুনির সময়ের পরিক্রমায় নিষ্ঠুর বাস্তবতার সাথে মানিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছেন। বললেন, চাঞ্চলকর নানা হত্যার বিচার দেশে হচ্ছে। তাই প্রার্থনা, বেঁচে থাকা অবস্থায় সাগর রুনি হত্যার বিচারও একদিন হবে। 

নিহত মেহেরুন রুনির মা নুরুন্নাহার মির্জা পুরোপুরি হতাশায় নির্বাক ও বিপর্যস্ত। তবে রুনির ছোটভাই নওশের আলম রোমান বলেন, মামলার তদন্তে হতাশা ছাড়া কিছুই নেই। 

সাগর রুনি নিহত হওয়ার পর থেকেই তাদের একমাত্র ছেলে মাহীর সরওয়ার মেঘের দায়িত্ব অনেকটা বাবা-মায়ের মতো সামলাচ্ছেন রোমান। সব কিছুতেই ছায়ার মতো মেঘের পাশে থাকেন। রোমান জানান, পড়াশোনা ও খেলাধুলা করে অন্য সাধারণ বাচ্চাদের মতো মেঘ বেড়ে উঠছে।

২০১২ সালের ১১ ফেব্র“য়ারি রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারে ভাড়া বাসায় খুন হন মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সারওয়ার ও এটিএন বাংলার জ্যৈষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন রুনি। বার বার মামলার তদন্ত সংস্থা পাল্টালেও, অধরাই থেকে গেছে খুনিরা। 

এই বিভাগের আরো খবর

তথ্য-প্রযুক্তি আইনের অবৈধ ব্যবহারের অভিযোগ সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির

নিজস্ব প্রতিবেদক: কোটা সংস্কার ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে সরকার বিতর্কিত তথ্য-প্রযুক্তি আইনের ব্যবহার...

১৫ আগস্টের পর প্রশ্নবিদ্ধ ও কলঙ্কিত করা হয় বিচার বিভাগকে

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের বিচার বিভাগ সংবিধানের রক্ষক। কিন্তু ১৯৭৫ সালের আগস্টে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর দেশের বিচার বিভাগ ও সর্বোচ্চ আদালতের...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is