ঢাকা, সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

2018-11-19

, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

গ্রহণযোগ্যতা পেলেও আইনি কাঠামো ছাড়াই চলছে কমিউনিটি পুলিশ

প্রকাশিত: ০৯:২৬ , ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ আপডেট: ১১:২৫ , ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিশ্বে কমিউনিটি পুলিশের ধারণাটি প্রায় দু’শ বছরের পুরনো হলেও বাংলাদেশে মাত্র দুই দশকের। এর বি¯তৃতি ঘটেছে দেশজুড়ে। সাফল্যের নানান গল্প যেমন আছে, তেমনি আছে সমালোচনার জায়গাও। সমাজে কমিউনিটি পুলিশের গ্রহণযোগ্যতার জায়গা তৈরি হলেও এর আইনি কাঠামো হয়নি। আরও শক্তিশালী ভূমিকায় নিতে আছে নানা পরামর্শ।

১৮২৯ সালে লন্ডন মেট্রোপলিটন পুলিশের প্রতিষ্ঠাতা রর্বাট পিল আধুনিক পুলিশিংয়ের যে ধারণা বিশ্বজুড়ে প্রচলন করেছিলেন তারই সূত্র ধরে ৯০ দশকে দেশে কমিউনিটি পুলিশিংয়ের যাত্রা শুরু হয়। ১৯৯৩ সালে ময়মনসিংহের তৎকালীন জেলা পুলিশের ছত্রছায়ায় জনগণ প্রথম সংগঠিতভাবে অপরাধ দমনে কার্যকর ভূমিকা রাখে। অপরাধ দমনে সাধারণ মানুষের এই সংগঠিত ভূমিকার আদলে ১৯৯৮ সালে চাঁদপুরের তৎকালীন পুলিশ প্রশাসন কমিউনিটি পুলিশিং নিয়ে কর্ম তৎপরতা শুরু করেন। পরে ধীরে ধীরে ঢাকা ও  দেশব্যাপী বিস্তার ঘটে।

প্রবর্তনের দুদশক পর গতবছর প্রথমবারের মতো সারাদেশে উদযাপন হয় ‘কমিউনিটি পুলিশিং ডে’। পুলিশের উদ্যোগে সংগঠিত হওয়া ছাড়াও সামাজিক নিজেদের এলাকার নিরাপত্তা রক্ষায় ব্যক্তি উদ্যোগেও কমিউনিটি পুলিশিংয়ের বহু পুরোনো নজির রয়েছে।

‘পুলিশ জনতা, জনতাই পুলিশ’, এ স্লোগানে পুলিশ ও জনগণের পারস্পারিক অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে অপরাধ দমন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষা এবং সামাজিক সমস্যা সমাধানের লক্ষে দেশের প্রতি জেলা ও থানায় কমিউনিটি পুলিশিংয়ের আয়োজন হয়। এজন্য আছে সাংগঠনিক কাঠামো। স্বেচ্ছাসেবী এ সংগঠনে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, সুশীল সমাজ, শিক্ষক, সরকারি-বেসকারি কর্মকর্তাসহ সমাজের সর্বস্তরের জনগণকে অন্তর্ভুক্ত আছেন।  

সামাজিক সচেতনা বৃদ্ধিসহ অপরাধ বিরোধী জনবল তৈরি করতে প্রত্যেক এলাকার কমিউনিটি পুলিশ সহায়তা  করে রাষ্ট্রীয় পুলিশ বাহিনীকে।

অপরাধী সানাক্ত, জঙ্গি কার্যক্রম বন্ধ, যৌন হয়রানী, যৌতুক ও বাল্য বিবাহ বন্ধ, মাদক ও চোরাচালন, দুর্নীতি রোধে সাধারণ জনগণ কমিউনিটি পুলিশিংয়ের মাধ্যমে সমাজে ভূমিকা রাখছে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

এই বিভাগের আরো খবর

পোষ্টার ব্যানারে ছেয়ে গেছে ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা বিভাগীয় নির্বাচনী আসন গুলোতে, হোক তা শহরে কিংবা প্রত্যন্ত অঞ্চলে, পোষ্টার ব্যানারে ছেয়ে গেছে এরই মধ্যে। কর্মব্যস্ত...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is