ঢাকা, শনিবার, ২৬ মে ২০১৮, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫

2018-05-25

, ১০ রমজান ১৪৩৯

নিয়ন্ত্রণ টাওয়ারের সঙ্গে পাইলটের ভুল বোঝাবুঝি?

প্রকাশিত: ১০:১৯ , ১৩ মার্চ ২০১৮ আপডেট: ০৪:৪১ , ১৩ মার্চ ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক : নেপালের কাঠমান্ডুতে মর্মান্তিক বিমান দুর্ঘটনার সঠিক কারণ খুঁজে বের করতে ছয় সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে নেপাল সরকার। এদিকে, দুর্ঘটনার জন্য একে অপরকে দুষছে ত্রিভুবন ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্ট ও ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ। অবতরণের আগে শেষ মুহূর্তের কথোপকথন তুলে ধরে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্স বলছে, কন্ট্রোল টাওয়ার থেকে পাইলটকে ভুল বার্তা দেয়া হয়েছিলো। তবে, ত্রিভুবন কর্তৃপক্ষের দাবি, পাইলট- কন্ট্রোল টাওয়ারের নির্দেশনা মানেন নি।

বিশ্বের সবচেয়ে বিপদজনক বিমানবন্দরগুলোর অন্যতম ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সোমবারের বিমান বিধ্বস্তের সঠিক কারণ খতিয়ে দেখতে কাজ শুরু করেছে নেপাল সরকার। এরইমধ্যে ছয় সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে নেপাল সরকার। দেশটির প্রধানমন্ত্রী এবং মন্ত্রীদের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এদিকে, বিমান বিধ্বস্তের আগে কন্ট্রোল টাওয়ারের সাথে পাইলটের শেষ কথোপকোথনের অডিওতে বিমান অবতরণ নিয়ে ককপিটে বিভ্রান্তির আভাস মিলেছে। ওই কথোপকথন অনুযায়ী ইউএস বাংলা বিমান কর্তৃপক্ষ বলছে অবতরণের সময় কন্ট্রোল টাওয়ার থেকে ভুল সংকেত দেয়ার কারণেই ঘটেছে এই দুর্ঘটনা। যদিও ত্রিভুবন কর্তৃপক্ষের দাবি, পাইলট অবতরণের দিক নির্ণয়ের ক্ষেত্রে তাদের নির্দেশনা মানেননি।

পাল্টাপাল্টি এই বক্তব্যের মধ্যে কার দাবি সত্য তা সময়ই বলে দেবে। তবে, তথ্য-উপাত্ত বলছে, অপর্যাপ্ত ও দুর্বল ব্যবস্থাপনার কারণে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে কাঠমান্ডুর এই বিমানবন্দরটিতে।

বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম থেকে পাওয়া তথ্যানুযায়ী, আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হিসেবে পথচলা শুরুর পর ত্রিভুবনে এ পর্যন্ত ৭০টিরও বেশি ছোট-বড় দুর্ঘটনা ঘটেছে। যাতে প্রাণ গেছে ৬৫০ জনেরও বেশি মানুষের। কেবল বিমানই নয়, এই এয়ারপোর্টে ঘটেছে হেলিকপ্টার ক্র্যাশের ঘটনাও।

 

 

এই বিভাগের আরো খবর

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is