ঢাকা, বুধবার, ১৮ জুলাই ২০১৮, ৩ শ্রাবণ ১৪২৫

2018-07-17

, ৪ জিলকদ্দ ১৪৩৯

তামাবিল স্থলবন্দরে বাণিজ্য-যাতায়াত বাড়লেও বাড়েনি সুযোগ-সুবিধা

প্রকাশিত: ১০:১১ , ১৫ এপ্রিল ২০১৮ আপডেট: ০১:৩৬ , ১৫ এপ্রিল ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশের সাথে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলোর ব্যবসা-বাণিজ্য ও যাতায়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে সিলেটের তামাবিল স্থল বন্দর। কিন্তু বাণিজ্য ও যাতায়াত বাড়লেও বাড়ছে না স্থল বন্দরের সুযোগসুবিধা। একই চিত্র তামাবিল স্থলবন্দরের অন্যপাশে ভারতের ডাউকি স্থলবন্দরেও। আধুনিক প্রযুক্তির ছোঁয়া না লাগা আর আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় প্রতিদিন ভোগান্তির শিকার হতে হয় যাত্রীদের। দু’পাশেই আটকে থাকতে হয় দীর্ঘসময়।

বাংলাদেশের সাথে ভারতের উত্তর পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলোয় যাতায়াতের একমাত্র স্থলবন্দরটি তামাবিল-ডাউকি সীমান্তে অবস্থিত। প্রতিদিনই পাথর, কয়লা ও চুনাপাথর বোঝাই আটশ’রও বেশি পণ্যবাহী গাড়ি এই স্থলবন্দর দিয়ে পারাপার হচ্ছে। আর প্রতিদিন যাতায়াত করছেন এক হাজারেরও বেশি মানুষ। কিন্তু নানা কারণে প্রতিদিনই দুর্ভোগের শিকার হতে হয় এই স্থলবন্দর ব্যবহারকারীদের।

বাংলাদেশের তামাবিল স্থলবন্দরে এখনো আধুনিক প্রযুক্তির ছোঁয়া লাগেনি। রয়েছে আমলাতান্ত্রিক জটিলতা। ফলে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষায় থাকতে হয় যাত্রীদের।

একই চিত্র ওপারে ভারতের ডাউকি স্থলবন্দরেও। সাবেকি হালে চলছে কার্যক্রম। হাতেই লেখা হয় ইমিগ্রেশনের যাবতীয় তথ্য। রয়েছে জনবল সংকটও। সংকট সমাধানে দু’দেশকে কার্যকরী উদ্যোগ নেয়ার অনুরোধ এই সীমান্ত ব্যবহারকারীদের।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, যাত্রী ও পণ্য পারাপারে প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নিশ্চিত করা গেলে লাভবান হবে দুই দেশই।

 

এই বিভাগের আরো খবর

ডাক্তারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থার ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধতা রয়েছে বিএমডিসি’র

নিজস্ব প্রতিবেদক : ভুল চিকিৎসা, অবহেলা ও অনিয়মের কারণে ডাক্তারদের বিরুদ্ধে জোরালো ব্যবস্থা নিতে পারে না বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is