ঢাকা, শনিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৮, ৫ কার্তিক ১৪২৫

2018-10-20

, ৯ সফর ১৪৪০

তুরস্কে ১৪ সংবাদকর্মীকে কারাদণ্ড দেওয়ায় আরএসএফের নিন্দা

প্রকাশিত: ০৬:৩৪ , ২৬ এপ্রিল ২০১৮ আপডেট: ০৬:৩৪ , ২৬ এপ্রিল ২০১৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: জুমহুরিয়েত পত্রিকাকে তুরস্কের ‘সর্বশেষ সরকারবিরোধী কণ্ঠস্বর’ আখ্যা দিয়ে পত্রিকাটির সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে সাজা ঘোষণার নিন্দা জানিয়েছে রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার-আরএসএফ। সন্ত্রাসবাদে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করে গতকাল বুধবার ওই পত্রিকার ১৪ সংবাদকর্মীকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছে তুর্কি সরকার। বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে ওই দিনটিকে তুরস্কের সাংবাদিকতার ইতিহাসে ‘অন্ধকার দিন’ আখ্যা দেয় আরএসএফ। 

সাংবাদিকদের ওই বিচার প্রক্রিয়াকে এরদোয়ান সরকারের রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত পদক্ষেপ হিসেবে দেখছে তারা। অন্যায়ভাবে বিচারের মুখোমুখি করা সকল তুর্কি সাংবাদিক ও জুমহুরিয়েত পত্রিকা ন্যায়বিচার না পাওয়া পর্যন্ত তাদের পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছে সাংবাদিকদের সুরক্ষায় নিয়োজিত অমুনাফাভিত্তিক আরএসএফ।

২০১৬ সালে তুরস্কে ব্যর্থ সামরিক অভ্যুথানের পর বিশ্লেষকদের আশঙ্কা ছিল, ওই ঘটনাকে ব্যবহার করে ক্ষমতাকে আরও সংহত করাÍ চেষ্টা করবেন তুরস্কের সরকারি দল জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি-একেপির শীর্ষ নেতা রিসেপ তায়্যিপ এরদোয়ান। বিশ্লেষকদের আশঙ্কাকে সত্য প্রমাণ করে এরদোয়ান সরকারবিরোধীদের ওপর রাষ্ট্রীয় দমনপীড়ন শুরু করেন।  গত মার্চে ব্যর্থ অভ্যুত্থান প্রচেষ্টায় মদদের অভিযোগ তুলে ২৫ তুর্কি সাংবাদিককে কারাদণ্ড দেওয়ার ধারাবাহিকতায় বুধবার ইস্তানবুলভিত্তিক আদালতে ৯৩ বছরের

পুরানো জুমহুরিয়েত পত্রিকার ১৪ জন সংবাদকর্মীকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেওয়া হয়। 
বৃহস্পতিবার আরএসএফ-এর তুর্কি প্রতিনিধি এক বিবৃতিতে এ সাজা ঘোষণার দিনটিকে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার প্রশ্নে আরেকটি

অন্ধকার দিন আখ্যা দিয়ে বলা হয়, ‘‘ওই সাংবাদিকদের আট বছর ছয় সপ্তাহ মেয়াদ পর্যন্ত সাজা ঘোষণার ঘটনা তুরস্কে সাংবাদিকতাকে অপরাধ হিসেবে সাব্যস্ত করার সর্বশেষ উদাহরণ।’’

আদালতে এই সকল সংবাদকর্মীদের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। প্রধান সম্পাদক  মুরাত সাবুনচুকে দেওয়া হয়েছে সাড়ে সাত বছরের কারাদণ্ড। পত্রিকাটির চেয়ারম্যান আকিন আতালয় দণ্ডিত হয়েছেন সাত বছরের কারাদণ্ডে। এরইমধ্যে ৫০০ দিন জেলে কাটিয়েছেন তিনি। আরএসএফ এর তুর্কি প্রতিনিধি ওনারদেরো আরও বলেন, ‘‘গোড়া থেকে শেষ পর্যন্ত এ বিচার প্রক্রিয়া যেমন করে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ছিল, সাজা ঘোষণাও সেই ধারাবাহিক প্রক্রিয়ারই অংশ।’’ 

আরএসএফ এর এই সাংবাদিকের অভিযোগ, রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে তুর্কি সরকার সাংবাদিকদের ভয়-ভীতি প্রদর্শন করতে চায়, তুরস্কের সর্বশেষ সরকারবিরোধী সংবাদমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করতে চায়। তিনি বলেন, ‘‘অন্যায়ভাবে বিচারের মুখোমুখি করা তুর্কি সাংবাদিকরা ন্যায়বিচার না পাওয়া পর্যন্ত আমরা তাদের সমর্থন দিয়ে যাব।’’

এই বিভাগের আরো খবর

ব্যারিস্টার মঈনুলকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে বললেন বিশিষ্ট নাগরিকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক: একটি বেসরকারি টেলিভিশনের টকশোতে প্রকাশ্যে সাংবাদিক, কলামিস্ট- মাসুদা ভাট্টিকে ‘চরিত্রহীন’ বলায় সাবেক...

সাংবাদিক খাসোগির লাশ টুকরো করা হয়

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: তুরস্কে নিখোঁজ সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে হত্যার পর তাঁর লাশ টুকরো টুকরো করা হয়েছে। তুরস্ক সরকারের উচ্চপদস্থ এক...

অনুসন্ধানী প্রতিবেদন চায় দুদক

নিজস্ব প্রতিবেদক: ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের কিছু ধারা অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশের পথ বন্ধ করে দিয়েছে-সংবাদকর্মীদের এমন অভিযোগের মধ্যেই...

মাদকের সংবাদ প্রকাশ করাতেই স্বপনের ওপর সন্ত্রাসী হামলা

ডেস্ক প্রতিবেদন : মাদক, সন্ত্রাস ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করায় সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছেন বৈশাখী টেলিভিশনের পাবনা জেলা...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is