ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ মে ২০১৮, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫

2018-05-21

, ৬ রমজান ১৪৩৯

মেক্সিকোর স্বর্গরাজ্য মায়ান সৈকত

প্রকাশিত: ০৬:১৬ , ০২ মে ২০১৮ আপডেট: ০৬:১৬ , ০২ মে ২০১৮

ডেস্ক প্রতিবেদন: মেক্সিকোর ইউকাতান পেনিনসুলার একটি শহর তুলুম। ক্যারিবীয় উপকুল ঘেঁষা শহরটি বিশ্ব পর্যটকদের হাতছানি দেয়। সেখানকার সৈকত অপূর্ব সুন্দর। আরও আছে সেই মায়ান সভ্যতার এক বন্দর, যার নাম এল ক্যাস্টিলো। দুটো বা অন্ত একটি দিনও যদি সেখানে ঘুরে আসতে পারেন, তবে সেই স্মৃতি আজীবন ঠাঁই করে নেবে। এখানে তুলুম নিয়ে কিছু পরামর্শ।  

সকাল সকাল বেড়িয়ে পড়তে যেতে পারবেন স্থানীয় রংয়ের ছটা দেখতে। এখানকার হোটেল, রেস্টুরেন্ট বা ভবন সবই উজ্জ্বল। গোলাপি, নীল আর হলুদের অসাধারণ সমন্বয় উপভোগ্য হবে। এ কাজে সকালটাই সেরা সময়। কোনো খোলা রেস্টুরেন্টে বসে এক কাপ কফি খাওয়ার আনন্দ অন্য কোথাও মেলে না। সকালের নাস্তাও সারতে পারেন। সব খাবার দারুণ স্বাদের। 

আবহাওয়া যত গরমই থাক না কেন, মাউই এর নরম বালুর সৈকত আপনাকে অনাবিল শান্তি দেবে। তুলুুমের সৈকতে কেবলই আনন্দ আর শান্তি বিরাজ করে। এখানকার সাগরের পানি টলটলে। সৈকতে বাইক নিয়েও ঘুরে বেড়াতে পারবেন। আবার বাইক রেখে গাছপালায় ছেয়ে থাকা কোনো সরু পথে হারিয়ে যেতে মানা নেই। দেহ-মনের সব ক্লান্তি এই একদিনেই দূর হয়ে যাবে। 

সেখানে আছে গোপন সৈকত। এর কথা অবশ্য সবাই জানেন। কিন্তু গোপনেই তার অবস্থান। স্থানীয়রাও ওই গোপন সৈকতে আনন্দ করেন। তারা দারুণ বন্ধুসুলভ। সৈকতের পাশের ক্যাফেগুলো আপনার আনন্দে আরও রং চড়াবে। সেখান থেকে চলে যেতে পারেন সলিমান বে সৈকতে। 
ফ্যাশন সচেতনরা তুলুমে শপিং করতে পারবেন। হার্টউড রেস্টুরেন্টের কাছে গেলেই অনেকগুলো দোকান মিলবে। এগুলো ছোট-বড় বুটিক। নান্দনিক অলংকার, চামড়ার স্যান্ডেল আব শাল মিলবে সেখানে। 

তুলুম আসলে আপনাকে চমৎকার সময়ে ভরিয়ে দেবে। এখানে শুধু রংয়ের খেলা। এসবই মনটাকে উৎফুল্লাতায় পূর্ণ করার জন্যে। 

যারা বনে হারাতে চান তারাও হতাশ হন না তুলুমে। এই শহরটি মূলত দুই ভাগে বিভক্ত। একটি দিক সৈকতের। আরেকটি বনের। সেখানে আপ্যায়নের ব্যবস্থা আছে। অতিথির সম্মান পাবেন। ছাদখোলা রসুঁই ঘর আর মুখরোচক খাবার। সেখানে ঐতিহ্যবাহী মায়ান খাবার সরবরাহ করা হয়। 
সৈকতের ধারে ইয়োগার মাধ্যমে স্বাস্থ্যের বাড়তি যতœ নিতে পারেন। ইয়োগার জন্যে বেশ কয়েকটি স্টুডিও আছে।  

ইউকাতান পেনিনসুলা কিন্তু ছোট ছোট গুহায় ভর্তি। এসব গুহার ভেতরে সাঁতরাতে পারবেন। এক অনন্য অভিজ্ঞতা লাভ করবেন। এই গুহাগুলো ছোট থেকে বিশাল আকৃতিরও হয়ে থাকে। এন্ট্রি ফি দিয়ে নিশ্চিন্তে ঢুকে যান গুহাগুলোতে।

এই বিভাগের আরো খবর

ঘুরে আসুন মিরসরাইয়ের মহামায়া লেক

ডেস্ক প্রতিবেদন: লেক, পাহাড় ও ঝর্ণা যাঁরা ভালোবাসেন তাঁদের জন্য  বাংলাদেশ একটি অন্যতম সুন্দর পর্যটনস্থান। শহরের কোলাহল ছেড়ে একদিনের জন্য...

ঘুরে আসুন করমজল

ডেস্ক প্রতিবেদন: প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যরে লীলাভূমি, বিপুল বন্যপ্রাণীর অভয়ারণ্য, রয়েল বেঙ্গল টাইগারের আবাসস্থল সুন্দরবন ক্রমেই...

যে হোটেল পানিতে ভাসে

ডেস্ক প্রতিবেদন: সুইডেনের স্ক্যান্ডিনেভিয়ার উত্তরাঞ্চলে লিউলে নদীর ওপরে তৈরি করা হচ্ছে ‘দ্য আর্কটিক বাথ’ নামের এমন একটি হোটেল ও স্পা,...

ঘুরে আসুন ভূ-স্বর্গ কাশ্মীর

ডেস্ক প্রতিবেদন: কাশ্মীরকে বলা হয় ভূ-স্বর্গ। বিশ্বে এই স্থানটি ‘ভূ-স্বর্গ’ বলে পরিচিত।  অপরূপ সৌন্দর্যের এই স্থানটির কথা ভ্রমণ...

প্রাচীন নিদর্শন বজরা শাহী মসজিদ

ডেস্ক প্রতিবেদন: মোঘল সম্রাটগণ অবিভক্ত ভারতবর্ষ শাসনকালে নানা স্থানে দৃষ্টিনন্দন স্থাপত্য নির্মাণ করে গেছেন। নোয়াখালীর বজরা শাহী মসজিদ...

ঘুরে আসুন বাংলার তাজমহল

ডেস্ক প্রতিবেদন: মোঘল সম্রাট শাহজাহান তার স্ত্রীর প্রতি ভালোবাসার নিদর্শন স্বরূপ নির্মাণ করেন তাজমহল। এই তাজমহলকে ভালোবাসার প্রতীক...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is