ঢাকা, বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫

2018-09-26

, ১৫ মহাররম ১৪৪০

ঝিনাইদহ-নাটোরের ৩ চিনিকলের শ্রমিকদের ৪ মাসের বেতন বকেয়া

প্রকাশিত: ১০:৪০ , ১৩ জুন ২০১৮ আপডেট: ১০:৪০ , ১৩ জুন ২০১৮

ডেস্ক প্রতিবেদন : দীর্ঘ ৪ মাসের বেতন বকেয়া থাকায় মানবেতর জীবন যাপন করছে ঝিনাইদহের মোবারকগঞ্জ ও নাটোরের দুইটি চিনিকলের হাজারখানেক শ্রমিক, কর্মচারী ও কর্মকর্তা। ফলে রমজানে রোযা রাখাও কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে এই পরিবারগুলোর। দ্রুত বকেয়া বেতন না পেলে ঈদ পালন নিয়েও শংকায় আছেন তারা।

৫৫ বছর বয়সী আব্দুল হালিম ঝিনাইদহের মোবারকগঞ্জ চিনিকলের একজন সিকিউরিটি গার্ড। মাত্র ১৫ হাজার টাকা মাসিক বেতনে দুই সন্তান আর স্ত্রী নিয়ে কোন রকমে চলছে তার সংসার। আর এই বেতনই বকেয়া মাসের পর মাস। জানালেন সুদে টাকা নিয়ে সন্তানদের পড়াশোনা আর সাংসারিক খরচ চালাতে হচ্ছে।

শুধু আব্দুল হালিমই নয় এই চিনিকলে ৯ শতাধিক কর্মরত মানুষের জীবন চলছে এমন টানাটানির মধ্যে দিয়েই। তাই, এবারের ঈদ পালন নিয়েও শংকায় আছেন তারা।

সরকারী নজরদারীর অভাব, বাজার মনিটরিং না করাসহ নানা কারনে মিলের চিনি বিক্রি হচ্ছে না বলে জানায় শ্রমিক নেতারা। এদিকে, বকেয়া বেতন পরিশোধ করার ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানালেন চিনিকলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইউসুফ আলী শিকদার।

এদিকে, দীর্ঘ ৪ মাস বেতন বকেয়া থাকায় মানবেতর জীবনযাপন করছে নাটোর চিনিকল ও নর্থবেঙ্গল চিনিকলের হাজারখানেক শ্রমিক কর্মচারী ও কর্মকর্তারা। এই রমজানে রোযা রাখাও কষ্টকর হয়ে দাড়িয়েছে তাদের।

এদিকে, দ্রুত বেতন পরিশোধের চেষ্টা চলছে বলে জানালেন চিনিকলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শহিদ উল্লাহ।

এসব শ্রমিক কর্মচারীদের মানবেতর জীবনযাপনের কথা চিন্তা করে দ্রুত বকেয়া পরিশোধে কার্যকরী ব্যবস্থা নেবে সরকার এমনটাই প্রত্যাশা সংশ্লিষ্টদের।

 

এই বিভাগের আরো খবর

২৬ দখলদারের কাছে জিম্মি ডিএনডি সেচ প্রকল্প এলাকা

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জ সদরের-ডিএনডি সেচ প্রকল্প এলাকায় ২৬ দখলদারদের হাতে জিম্মি প্রায় ২২ লাখ মানুষ। অবৈধ এসব স্থাপনার জন্য পানি...

দুই ঘাটে ফেরি চলাচল ব্যহত

ডেস্ক প্রতিবেদন : পদ্মায় পানি বৃদ্ধি ও তীব্র স্রোতের কারণে শিমুলিয়া কাঠালবাড়ি নৌরুটে ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। ফলে দুর্ভোগে পড়েছেন যাত্রী...

বিভিন্নস্থানে নদী ভাঙন অব্যাহত

ডেস্ক প্রতিবেদন : উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় বেড়েই চলেছে লালমনিরহাট জেলার তিস্তা ও ধরলা নদীর ভাঙন। কোনভাবেই ঠেকানো...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is