ঢাকা, রবিবার, ২০ জানুয়ারী ২০১৯, ৭ মাঘ ১৪২৫

2019-01-21

, ১৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০

বৃষ্টি-পাহাড়ি ঢলে পূর্বাঞ্চলে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত

প্রকাশিত: ০৯:৪৯ , ১৪ জুন ২০১৮ আপডেট: ০৪:২৯ , ১৪ জুন ২০১৮

ন্যাশনাল ডেক্স: বৃষ্টি ও উজানের ঢলে পূর্বাঞ্চলের নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। সুরমা, কুশিয়ারা, মনু, ধলাই, মহুরীসহ ৬টি নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে বইছে। ফেনীর ফুলগাজী ও পরশুরামে বেরিবাধ ভেঙ্গে প্লাবিত হয়েছে অন্তত ২২টি গ্রাম। মনু এবং ধলাই নদীর পানি বেড়ে মৌলভীবাজারের অর্ধশতাধিক গ্রাম তলিয়ে গেছে। নতুন করে প্লাবিত হয়েছে রাঙ্গামাটি ও কক্সবাজারের নিুাঞ্চল।

টানা বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে নদ নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। ফেনীর ফুলগাজী ও পরশুরামে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। বেরিবাধের ১০টি স্থান ভেঙ্গে প্লাবিত হয়েছে ২২ টি গ্রাম। গৃহবন্দী হয়ে পড়েছে হাজারো মানুষ।

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় মনু নদের পানি বিপদ সীমার ৭৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছে। কমলগঞ্জে ধলাই নদের পানি বিপদ সীমার ৫৩ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ডুবে গেছে ছাতলাপুর স্থলবন্দরের একমাত্র সড়ক।

এদিকে, হবিগঞ্জের খোয়াই নদীর পানি বিপদসীমার ২৩৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছে। সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর পানিও বেড়েছে। সিলেটের ৪ উপজেলার ৩শতাধিক গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

উজানের ঢলে কাচালং নদীর পানি বেড়ে রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ির উপজেলার ১৬টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। কাপ্তাই হ্রদের পানি বেড়ে লংগদু, জুরাছড়িসহ নিুাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

এছাড়া, পাহাড়ী ঢলে কক্সবাজার মাতামুহুরী, বাঁকখালী ও রেজু নদী পানি বাড়ায় বন্ধ রয়েছে কক্সবাজার-টেকনাফ সড়ক যোগাযোগ।

এদিকে, পাহাড়ে ঝুকিপুণভার্বে বসবাসকারীদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিয়েছে জেলা প্রশাসন।
তবে, চেঙ্গী নদীর পানি কমায় খাগড়াছড়ির বন্যা পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি হয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর

পশু-পাখিদের রক্ষায় শিগগিরই শুরু হবে আশ্রয়ন প্রকল্পের কাজ

সাভার প্রতিনিধি: দুর্যোগে মানুষের পাশাপাশি গৃহপালিত পশু-পাখিদের রক্ষার জন্য আশ্রয়ন প্রকল্পের কাজ শিগগিরই শুরু হবে বলে জানিয়েছেন...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is