ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ ২০১৯, ৭ চৈত্র ১৪২৫

2019-03-21

, ১৪ রজব ১৪৪০

নারীর রুটিন চেকআপ কতটা প্রয়োজন?

প্রকাশিত: ০২:২৬ , ১৪ জুন ২০১৮ আপডেট: ০২:২৭ , ১৪ জুন ২০১৮

স্বাস্থ্য ডেস্ক: পুরুষরা অনেক সময় অফিস থেকেই হোক অথবা কি নিজ উদ্যোগে স্বাস্থ্যের রুটিন চেকআপ করিয়ে নেন। কিন্তু বাড়িতে থাকা নারী সদস্যটি অনেক সময় থাকেন অন্ধকারে। বছর বছর কোনো রুটিন পরীক্ষা-নিরীক্ষা তাঁর করা হয়ে ওঠে না। অন্তত বয়স বেড়ে শরীর খারাপ লাগার আগ পর্যন্ত তা আর হয়ে উঠে না। তার মানে কি নারীদের রুটিন চেকআপের প্রয়োজন নেই? তা নয়। পুরুষদের মতো নারীদেরও উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, স্ট্রোক ইত্যাদি রোগের ঝুঁকি আছে। বরং নারীরা এর বাইরে আরও কিছু রোগের ঝুঁকিতে থাকেন, যেখানে রুটিন পরীক্ষার ভূমিকা আছে। যেমন স্তন ক্যানসার, জরায়ু বা জরায়ুমুখের ক্যানসার।

আবার কিছু রোগ আছে যা নারীদের বেশি হয়। যেমন-থাইরয়েডের সমস্যা বা নানা ধরনের বাত। তাই নারীদেরও রুটিন পরীক্ষার দরকার আছে। এখন জেনে নিন কী হতে পারে আপনার এই সব রুটিন পরীক্ষা থেকে।

* পূর্ণবয়স্ক নারীদের বছরে অন্তত একবার রক্তচাপ মাপা উচিত। ২০ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে রক্তে শর্করা বা চর্বি পরীক্ষা শুরু করা উচিত। যদি আপনি ওজনাধিক্য বা স্থূলতায় ভোগেন, পরিবারে ডায়াবেটিস বা হৃদরোগের ইতিহাস থাকে, তবে অল্প বয়সেই শুরু করতে হবে। আর গর্ভাবস্থায় রক্তচাপ মাপা এবং রক্তে শর্করা দেখাটা জরুরি।

* ২১ বছর বয়স থেকে জরায়ুমুখ ক্যানসার স্ক্রিনিং শুরু করা উচিত। এ জন্য চিকিৎসককে দিয়ে পরীক্ষা করা যায়, সঙ্গে প্যাপস স্মেয়ার টেস্ট। প্রতি ৩ বা ৫ বছর পরপর করলে ভালো।

* ব্রেস্ট সেলফ এক্সামিনেশন বা নিজে পরীক্ষা করা শিখে নিয়ে নিজে নিজে মাসে একবার নিজের স্তন পরীক্ষা করুন। এটা শুরু করা উচিত ২০ বছর বয়স থেকেই। যদি পরিবারে স্তন ক্যানসারের ইতিহাস থাকে বা স্তনে কোনো অস্বাভাবিকতা ধরা পড়ে, তবে আলট্রাসনোগ্রাফি বা ম্যামোগ্রাফি চিকিৎসকের পরামর্শে করতে পারেন। ৪০ বছরের আগে সাধারণত ম্যামোগ্রাফির কথা বলা হয় না।

* এ ছাড়া বছরে অন্তত একবার দাঁত ও চোখ পরীক্ষা করিয়ে নেওয়া ভালো।

* ৫০ বছরের পর কোলন ক্যানসার নির্ণয় করতে কলনোস্কোপি পরীক্ষার ওপর জোর দেওয়া হয়। তবে চিকিৎসকের সন্দেহ হলে এর আগেও করা যায়।

নিয়মিত বা রুটিন পরীক্ষা-নিরীক্ষা অনেক অনির্ণীত রোগকে আগে নির্ণয় করতে সাহায্য করে। অনেক জটিলতাও এড়ানো যায়। মনে রাখবেন, পরিবারে নানা রোগের ইতিহাস, মুটিয়ে যাওয়া, জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি সেবন ইত্যাদি আপনার নানা ধরনের রোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে। তাই সময় থাকতেই সতর্ক হওয়া উচিত।

এই বিভাগের আরো খবর

মাইগ্রেনের ব্যথায় করণীয়  

ডেস্ক প্রতিবেদন: মাইগ্রেন হলো একটি ভিন্ন ধরনের মাথাব্যথা। মেয়েদের মধ্যে এ রোগ যেমন দেখা যায় তেমনি পুরুষের বেলায়ও দেখা যায়। তবে মাইগ্রেন...

বাসি রুটিতে মিলবে উপকার!

অনলাইন ডেস্ক: বাসি খাবার খেলে শরীরে নানা অসুখ বাসা বাঁধতে পারে, এটাই সাভাবিক। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো, এটি অনেকক্ষেত্রে ঠিক নয়। বাসি রুটি...

নানা রোগ নিয়ন্ত্রণে কলার থোড়

ডেস্ক প্রতিবেদন: কলা গাছের কাণ্ডের মজ্জাকেই থোড় বলা হয়। থোড় খেতেও যেমন উপাদেয় তেমনই তা পুষ্টিগুণে ভরপুর! থোড়ে রয়েছে এমন বেশ কয়েকটি...

আগুনে পোড়াক্ষত সারায় তেলাপিয়া!

ডেস্ক প্রতিবেদন: তেলাপিয়া এমন একটি মাছ, যা সারা বছরই বাজারে পাওয়া যায়। মাছে-ভাতে বাঙালির কাছেও এটি অত্যন্ত প্রিয়। শুধু স্বাদেই নয়...

কামরাঙার পুষ্টিগুণ

ডেস্ক প্রতিবেদন: দেশি ফলের মধ্যে কামরাঙা অন্যতম। পুষ্টির জোগান আর নানা রোগ প্রতিরোধে কাজ করে। চিকিৎসকরা বলছেন, ভিটামিন বি নাইন ফলিক...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is