ঢাকা, বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

2018-11-21

, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

সংসার বাঁচাতে বাংলাদেশে ফিরেছেন শ্রাবন্তী

প্রকাশিত: ০১:৩১ , ১৩ জুলাই ২০১৮ আপডেট: ০১:৩১ , ১৩ জুলাই ২০১৮

বিনোদন ডেস্ক: একসময়ের জনপ্রিয় মডেল ও অভিনেত্রী শ্রাবন্তী যুক্তরাষ্ট্র থেকে ঢাকায় ফিরেছেন গত ২৫ জুন। দীর্ঘদিন ধরে আমেরিকায় থাকা এই মডেল দেশে ফিরেছেন কোন বিজ্ঞাপনে বা নাটকে অভিনয়ের জন্য নয়, তার দেশে ফেরা নিজের সংসার বাঁচাতে।

জানা গেছে, গত ৭ মে শ্রাবন্তীকে তালাকের নোটিশ পাঠিয়েছেন স্বামী মোহাম্মদ খোরশেদ আলম। বগুড়া সদরের কালীতলার শিববাড়ি সড়কে শ্রাবন্তীর বাবার বাসার ঠিকানায় এই নোটিশ পাঠানো হয়। কিন্তু ওই সময় তা কেউ গ্রহণ করেননি বলে জানানো হয় খোরশেদের পক্ষ থেকে। তাই খবর পেয়ে তাড়াতাড়ি দেশে ফেরেন শ্রাবন্তী। তবে, শ্রাবন্তীর অভিযোগ-বিমানবন্দর থেকে সরাসরি স্বামীর বাসায় গেলে ঢুকতে দেওয়া হয়নি তাকে।

এ বিষয়ে শ্রাবন্তী জানান ‘দেশে এসেই বিমানবন্দর থেকে সরাসরি আমি মেয়েদের সঙ্গে নিয়ে রামপুরা বনশ্রীতে আলমের মা-বাবার সঙ্গে দেখা করতে যাই। কিন্তু আমাকে আর বাচ্চাদের বাসায় ঢুকতে দেওয়া হয়নি। ঢাকায় তেমন আত্মীয়-স্বজন না থাকায় এক মামাতো ভাইয়ের বাসায় যাই। এরপর এখন পর্যন্ত আলম আমার সঙ্গে, এমনকি বাচ্চাদের সঙ্গেও দেখা করেনি। বাচ্চাদের কোনো খোঁজ নেয়নি।’

ফেসবুকে এই অভিনেত্রী লিখেছেন ‘সত্য-মিথ্যা অনেক কথা আসবে। কিন্তু একজন মা আর একজন মানুষ হিসেবে আমার একটাই চাওয়া, আমার সঙ্গে আর আমার সন্তানদের সঙ্গে কোনো অন্যায় না হোক। আমার বাচ্চারা ব্রোকেন ফ্যামিলিতে বড় না হোক, এর ফল কখনোই ভালো হয় না। ভুল আমারও আছে, খোরশেদ আলমেরও আছে, তাই বলে ডিভোর্স করে আলম বাচ্চাদের সঙ্গে আর আমার সঙ্গে এমন অন্যায় করতে পারে না।’

জানা গেছে, স্বামীর সঙ্গে নানাভাবে যোগাযোগের চেষ্টা করে তিনি ব্যর্থ হয়েছেন। গত রোববার সকালে সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে শ্রাবন্তী বলেন, ‘প্লিজ, আমার সংসারটা বাঁচান। আমি সংসার ভাঙতে দেব না।’

শ্রাবন্তীর এমন আবেদনের পর থেকে সাংস্কৃতিক অঙ্গনের অনেকেই আলাদাভাবে যোগাযোগ করেন এই দম্পতি সাথে। তবে, এখন পর্যন্ত আশানুরূপ কোনো ফল পাননি কেউই। এবিষয়ে অভিনয়শিল্পী সংঘের সভাপতি শহিদুল আলম সাচ্চু আজ মঙ্গলবার সকালে বলেন, ‘যদিও এটা পারিবারিক ব্যাপার, তারপরও আমরা যুক্ত হয়েছি। আমাদের চেষ্টা অব্যাহত আছে।’

এ বিষয়ে স্বামী খোরশেদ আলম বলেছেন, ‘২০১০ সালের ২৯ অক্টোবর আমাদের বিয়ে হয়। অনেক ছাড় দিয়ে শ্রাবন্তীকে বিয়ে করেছিলাম। শ্রাবন্তীর যেসব ব্যাপারে ছাড় দিয়েছি, তা থেকে শ্রাবন্তী এতটুকু সরে আসেনি। এত দিন আমি ব্যাপারগুলো সামনে আনতে চাইনি, কারণ তা আমাদের কারও জন্যই ভালো হবে না। দিনে দিনে আমাদের মধ্যে মানসিক দূরত্ব অনেক বেড়ে গেছে। পারস্পরিক সম্মান, শ্রদ্ধাবোধ, বিশ্বাস নেই বললেই চলে। যতটুকু অবশিষ্ট আছে, তা শেষ হওয়ার আগেই আমি সরে এসেছি। আমি চাইনি আমাদের সম্পর্কের ক্ষতিকর প্রভাব বাচ্চাদের ওপর পড়ুক।’

 

এই বিভাগের আরো খবর

আমজাদ হোসেনের স্বাস্থ্যের অবনতি, চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী 

নিজস্ব প্রতিবেদক: লাইফ সাপোর্টে থাকা চলচ্চিত্র নির্মাতা আমজাদ হোসেনের শারীরিক অবস্থা ক্রমশই অবনতির দিকে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।...

মা হলেন নেহা ধুপিয়া 

বিনোদন ডেস্ক: মা হলেন বলিউড অভিনেত্রী নেহা ধুপিয়া। রোববার বেলা ১১ টায় মুম্বাইয়ের খার উইমেন্স হসপিটালে কন্যাসন্তানের জন্ম দেন এ অভিনেত্রী।...

শ্যুটিং করতে গিয়ে আহত সালমান খান

বিনোদন ডেস্ক: শ্যুটিং করতে গিয়ে আহত হয়েছেন বলিউডের অন্যতম অভিনেতা সালমান খান। চিকিৎসার জন্য তাকে দ্রুত পাঞ্জাব থেকে মুম্বাইয়ে নিয়ে আসা...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is