ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

2018-12-11

, ২ রবিউস সানি ১৪৪০

ওমরাহ পালনে যাচ্ছেন শেখ হাসিনা

প্রকাশিত: ০৮:৪১ , ১৩ অক্টোবর ২০১৮ আপডেট: ০৮:৪১ , ১৩ অক্টোবর ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: পবিত্র ওমরাহ পালনে সৌদি আরব যাচ্ছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আগামী ১৫ অক্টোবর রাতে ওমরাহ পালনে সৌদি আরবের উদ্দেশে বাংলাদেশ ত্যাগ করবেন প্রধানমন্ত্রী। এ লক্ষ্যে ১৭ অক্টোবর পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর দৈনিক কার্যসূচিতে কোনো কর্মসূচি রাখা হয়নি। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সূত্র এমন তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সূত্র জানান, প্রধানমন্ত্রী নৌকার জয়ের ধারা অব্যাহত রাখতে সিলেট সফরে প্রধানমন্ত্রী হজরত শাহজালাল (র.), হজরত শাহপরান (র.) ও হজরত গাজী বুরহান উদ্দিন (র.) এর মাজার জিয়ারত করেন এবং সরকারি আলিয়া মাদ্রাসা মাটের জনসভায় নৌকার ভোট প্রার্থনা করেন। এরপর নির্বাচনকে সামনে রেখে বিভাগীয় শহরের বিভিন্ন জেলার জনসভায় করে তৃতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের লক্ষ্যে জনগণের কাছে নৌকা মার্কায় ভোট আহ্বান করেন।  ওমরাহ পালন শেষে হ্যাটট্রিক জয়ের লক্ষ্যে নির্বাচনী কর্মকাণ্ডে জোরকদমে ঝাঁপিয়ে পড়বেন শেখ হাসিনা।
প্রধানমন্ত্রীর কার্যসূচিতে উল্লেখ আছে, ১৪ অক্টোবর পদ্মাসেতুর নামফলক উদ্বোধনসহ ‘পদ্মাসেতু রেল সংযোগ নির্মাণ’ প্রকল্প, ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা পর্যন্ত এক্সপ্রেসওয়ে,পদ্মাসেতুর কাজের অগ্রগিতসহ প্রকল্প এলাকার অন্যান্য কাজের ভিত্তিপ্রস্তর ও গতি দেখতে প্রকল্প এলাকায় যাবেন প্রধানমন্ত্রী। ওইদিনে প্রধানমন্ত্রী দুটি সুধী সমাবেশে যোগ দেবেন।
উল্লেখ্য, দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষের স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে ২০০১ সালের ১২ জুলাই মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের কুমারভোগ এলাকায় পদ্মা সেতু নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু সরকার পরিবর্তন পটভূমিতে ওই ৯ বছর কাজের কোনো অগ্রগতি হয়নি।
এরপর ২০০৯ সালে শেখ হাসিনা সরকার গঠনের পর ফের সেতুটি নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। ২০১২ সালে বিশ্বব্যাংক দুর্নীতির অভিযোগ তুলে ঋণ চুক্তি বাতিল করে। বিশ্বব্যাংকের অভিযোগ মিথ্যা দাবি করে ২০১৩ সালের ৪ মে নিজ অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী।
১২ ডিসেম্বর ২০১৫ সালে মুন্সীগঞ্জের মাওয়ায় পদ্মা সেতুর বাস্তবায়নের মূল পাইলিং কাজের উদ্বোধন করেন। এর আগে শরীয়তপুরের জাজিরার নাওডোবায় পদ্মা সেতু প্রকল্পের মূল কাজ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। দেশীয় অর্থায়নে নির্মিত পদ্মা সেতু হচ্ছে অর্থ ব্যয়ের দিক থেকে বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্ববৃহৎ প্রকল্প।

ছয় দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ সেতুটি হবে দেশের সবচেয়ে দীর্ঘ ও দক্ষিণ এশিয়ার দ্বিতীয় দীর্ঘতম সেতু। দ্বিতল এই সেতুর নিচতলা দিয়ে ট্রেন চলবে।
সড়ক ও রেলপথে যুক্ত হবে দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলা। প্রকল্প পরিকল্পনা অনুযায়ী, ২০১৮ সালের মধ্যে সেতুর কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলে বিভিন্ন কারণে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হওয়ার সংশয় রয়েছে।
এ কারণে রোববার পদ্মাপাড়ে দুই সুধী সমাবেশে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের সময়সীমা ঘোষণা করবেন এবং টানা তৃতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের সুযোগ চেয়ে নৌকার ভোট দেওয়ার আহ্বান জানাবেন প্রধানমন্ত্রী।
১৫ অক্টোবর ওমরাহ পালনে বাংলাদেশ বিমানের একটি বিশেষ ফ্লাইটে প্রধানমন্ত্রী ও তার সফর সঙ্গীরা হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করবেন। এর আগে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগেও পবিত্র ওমরাহ পালনের জন্য তিনদিনের সফরে সৌদি আরব যান শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সূত্র এমন তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এ লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর কর্মসূচিতে ১৫ অক্টোবর থেকে ১৭ অক্টোবর পর্যন্ত কোন কর্মসূচি রাখা হয়নি। প্রধানমন্ত্রী কার্যসূচি ১৮ অক্টোবর থেকে নির্ধারিত হয়েছে। এদিন তিনি জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠান (নিটোর) সম্প্রসারণ (১ম সংশোধীত) শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় নির্মিত হাসপাতাল ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগদান করবেন।
১৯ অক্টোবর গণভবনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শহীদ শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে যোগদান করবেন। ২০ অক্টোবর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সম্মেলনে যোগদান।
২৪ অক্টোবর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগদান।
২৫ অক্টোবর সাড়ে এগারটায় বিমান বাহিনী একাডেমী যশোর’ এর বঙ্গবন্ধু কমপ্লেক্স উদ্ধোধন এবং ভিডিও কনফারেন্সিং-এর মাধ্যমে বিমান বাহিনীর ঘাঁটি জহুরুল হক চট্টগ্রাম বিমানসেনা প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট-এর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের কার্যক্রমের উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে যোগদান করবেন।
২৭ অক্টোবর সাড়ে দশটায় পুটুয়াখালীর পায়রায় থার্মাল পাওয়ার প্ল্যান্ট প্রকল্পের আওতায় ‘স্বপ্নের ঠিকানা’ পুনর্বাসন কেন্দ্রের উদ্ধোধন করবেন।
২৮ অক্টোবর সাড়ে দশটায় ঢাকার বেহলী রোডে পার্বত্য চট্টগ্রাম কমপ্লেক্স ভবনের উদ্বোধনীতে যোগদান করেবেন।
৩১ অক্টোবর সকাল সাড়ে দশটায় রাজধানীর মহাখালীতে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ডাইজেস্টিভ ডিজিজেস রিসার্স অ্যান্ড হসপিটাল স্থাপন (১ম সংশোধিত) শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় নির্মিত হাসপাতাল ভবনসহ অবকাঠামো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন।

এই বিভাগের আরো খবর

প্রার্থিতা ফিরে পেলেন হিরো আলম

বগুড়া প্রতিনিধি: বগুড়া-৪ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলমের মনোনয়ন বাতিল করে নির্বাচন কমিশনের দেয়া সিদ্ধান্ত স্থগিত...

সিইসিসহ ৫ কমিশনারের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল

নিজস্ব প্রতিবেদক : নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল নাগরিক আন্দোলনের বিষয়ে আদালতের আদেশ অমান্য করায় প্রধান নির্বাচনার কমিশনসহ পাঁচজন কমিশনার ও কমিশন...

চলছে প্রতীক বরাদ্দ

নিজস্ব প্রতিবেদক : মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার ও প্রার্থিতা চূড়ান্ত হওয়ার পর সারাদেশে চলছে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ। রিটার্নিং...

ঠিকভাবেই এগোচ্ছে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ প্রস্তুতি- মাশরাফি

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বিশ্বকাপ ক্রিকেটের জন্য প্রস্ততি ঠিক পথেই এগোচ্ছে বলে মনে করছেন বাংলাদেশ ওয়াডে দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা।...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is