ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

2019-05-22

, ১৭ রমজান ১৪৪০

শীতের শুরুতে ঘুরে আসুন ইনানী সমুদ্রসৈকত

প্রকাশিত: ০২:২৯ , ০২ নভেম্বর ২০১৮ আপডেট: ০২:২৯ , ০২ নভেম্বর ২০১৮

ডেস্ক প্রতিবেদন: ইনানী সমুদ্রসৈকত যেমন সুন্দর তেমনি আকর্ষণীয়। ইনানী সমুদ্রসৈকত কক্সবাজারের প্রধান সমুদ্রসৈকত থেকে সম্পূর্ণ আলাদা। সাগরপাড়ে বালুর ওপর বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে আছে শত শত বছরের পুরাতন পাথর। সাগরের ঢেউ আছড়ে পড়ে পাথরের ওপর। ইনানী সমুদ্রসৈকতের পানি কক্সবাজার সমুদ্রসৈকতের পানির চেয়ে তুলনা মূলক বেশি স্বচ্ছ। তাই আর দেরি না করে আসছে ছুটির দিনগুলোতে ঘুরে আসতে পারেন ইনানী সমুদ্রসৈকত থেকে। আর বছরের এ সময়টা সমুদ্রসৈকতে বেড়াতে যাওয়ার জন্য উপযোগী সময়। 

কক্সবাজার থেকে ২৭ কিলোমিটার আর হিমছড়ি থেকে ১৫ কিলোমিটার দূরে ইনানী সমুদ্রসৈকত অবস্থিত। ভাটার সময় ইনানী সমুদ্রসৈকতে সেন্টমার্টিনের মতো প্রবাল পাথরের দেখা মেলে। 

এখানে কক্সবাজারের মতো সাগর এত উত্তাল থাকে না। আর এই শান্ত সাগরই পর্যটকদের আরও বেশি বিমোহিত করে। সাধারণত বিকেল বেলায় ইনানী সৈকত ভ্রমণের জন্য আদর্শ সময়।

কক্সবাজার থেকে টেকনাফ পর্যন্ত দীর্ঘ ১২০ কিলোমিটার সমুদ্রসৈকতের মধ্যে সবচেয়ে আকর্ষণীয় ইনানী সৈকত। এখানে রয়েছে বিস্তীর্ণ প্রবাল পাথর। সেন্টমার্টিন সমুদ্রসৈকতের সঙ্গে এর অনেকাংশেই মিল খুঁজে পাওয়া যায়। চমৎকার, ছিমছাম ও নিরিবিলি এলাকা হিসেবে এর সুনাম রয়েছে । 

আপনি চাইলে সমুদ্রসৈকতে বিচ বাইকে ঘুরে বেড়াতে পারবেন এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে।  তাছাড়া সৈকতে প্রবালের ওপর দাঁড়িয়ে সাগরের দৃশ্য দেখার মজাই আলাদা। সাগরের ঢেউগুলো প্রবালের গায়ে আঘাত লেগে পায়ের বাছে আছড়ে পড়ে। স্বচ্ছ পানির তলায় দেখা যায় নয় বালুর স্তর। অনেক সময় হরেক রকম মাছের ছোটাছুটি দেখা যায়। বিস্তীর্ণ বালুকা বেলায় ছুটে বেড়ায় হাজারো লাল কাঁকড়ার দল। পাহাড়ে নানা রকম ঝোপঝড়ের সঙ্গে সঙ্গে সমুদ্রসৈকত পাড়ে দেখা যায় সুদূর ঝাউগাছের সারি। মাঝে মাঝে থাকা নারিকেলগাছের সারি সৌন্দর্য আরও বাড়িয়ে দেয়। 

যেভাবে যাবেন
কক্সবাজার কলাতলী সৈকত থেকে লোকাল জিপে চড়ে যাওয়া যায় ইনানী সমুদ্রসৈকতে। ভাড়া ১৮০ থেকে ২০০ টাকা। রিজার্ভ জিপে এক হাজার ৮০০ থেকে দুই হাজার ৫০০ টাকা। একটি জিপে ১০-১৫ জন বসা সম্ভব।
 

এই বিভাগের আরো খবর

আলুটিলা গুহা: রোমান্সকর অভিজ্ঞতা

ডেস্ক প্রতিবেদন: আলুটিলা গুহা পার্বত্য চট্টগ্রামের খাগড়াছড়ি জেলার একটি প্রাকৃতিক গুহার নাম। এটি আলু টিলা নামক পর্যটন কেন্দ্রে অবস্থিত।...

রূপ বৈচিত্রে ভরপুর ভাটিয়ারী লেক

ডেস্ক প্রতিবেদন: চট্টগ্রাম সিটি গেট থেকে মাত্র ২০ মিনিটের দূরত্বে ভাটিয়ারী লেক অবস্থিত। পাহাড়ের পাদদেশে জমে থাকা পানি থেকে সৃষ্ট রূপ...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is