ঢাকা, বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ৯ শ্রাবণ ১৪২৬

2019-07-23

, ২০ জিলকদ ১৪৪০

আলোচনায় ২০১৪ সালের নির্বাচন ও আগুন সন্ত্রাস

প্রকাশিত: ০৮:৫৪ , ০৭ নভেম্বর ২০১৮ আপডেট: ০২:১৪ , ০৭ নভেম্বর ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিগত ২০১৪ সালে বিএনপির জাতীয় নির্বাচন বয়কট, নির্বাচন ঠেকানোর জন্য ভয়াবহ সন্ত্রাসÑ এবারের ঢাকা বিভাগীয় ভোটের মাঠে আলোচনার বড় বিষয়গুলোর একটি। আর সে কারণেই কিছু আতংক আছে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে এবারের জাতীয় নির্বাচনের আগে। পাশাপাশি নানা নির্বাচনী আসনে যেমন পৃথক পৃথক ভোটের অংক রয়েছে, তেমনি এই অঞ্চলের ক্ষুদ্র জাতি গোষ্ঠীদের এলাকায় ভোটের হিসেবে আছে একবারেই অন্যরকম  চর্চা।

নির্বাচন মানে উৎসব, কোলাহলপূর্ণ এক পরিবেশ। মিছিল মিটিংয়ে দিনরাত সরগরম থকে এলাকা। নেতার কাছে রাজনৈতিক দলের কর্মীদের কদর বাড়ে। তবে এসবের মাঝেও আছে আতঙ্কের ছায়া। নির্বাচনোত্তর সহিংসতার আশঙ্কাও থাকে অনেকের মাঝে। তাই আগে থেকেই নানা কিছু ভাবছে এক শ্রেনীর ভোটাররা।  

ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী গারোদের অধ্যূষিত এলাকায় কথা হয় তাদের এক স্থানীয় দলনেতার সাথে। গারো পাহাড়ের পাদদেশের এই মানুষগুলো খুব সহজ সাবলিল ভাবেই জানালেন এখনো তারা তাদের দলনেতার সিদ্ধান্তেই সবাই ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। সম্মিলিত সিদ্ধান্তের মাধ্যমে ভোট দেয়াকে তারা চিরায়ত চর্চা বলে সম্মান করেন সেই সিদ্ধান্তকে।

নির্বাচন নিয়ে ইতিমধ্যে মিছিল মিটিংয়ে সরগমর অনেক ভোটের মাঠ। নিয়মিত গণসংযোগ করে যাচ্ছেন মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। বিভিন্ন আসনে বর্তমান এমপিদের চাপে রেখেছে দলের তরুণ নেতারা। নিয়মিত গণসংযোগে তরুণদের দলে ভেড়ানোর পাশাপাশি তমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা চলছে ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়ন পাওয়ার।

এদিকে মাঠে এখনও কোন ভাবেই দাঁড়াতে না পারলেও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী এক দশকের বেশী ক্ষমতার বাইরে থাকা বড় রাজনৈতিক দল বিএনপি। টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির এই নেতা জানালেন তাদের নিজস্ব মাঠ জরিপসহ প্রতিটি আসনের জন্য দলের প্রার্থীও প্রস্তুত আছে। এখন শুধু অপেক্ষা নির্বাচনে যাওয়া নিয়ে দলের সিদ্ধান্ত ও সুষ্ঠু নির্বাচনের।

এদিকে পেশাজীবী নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা বলছেন, এখনো মাঠে না থাকলেও কোন ভাবেই এবার নির্বাচন বয়কট করার সিদ্ধান্ত বিএনপির জন্য বড় ভুল হবে। জনগণের প্রতি আস্থা রেখে নির্বাচনের মাধ্যমে সরকারি দলকে মোকাবেলা করার আহ্বান জানান তারা।

দলের মনোনয়ন পেতে নিজের শক্তি ও সমর্থন প্রদর্শন করতে বিপুল সংখ্যাক নেতাকর্মীদের নিয়ে আগ্রহী প্রার্থীরা গণসংযোগ করে গেলেও শেষ পর্যন্ত প্রর্থীতার ব্যাপারে দলীয় সিদ্ধান্ত মেনে নেওয়ার বিষয়েও একমত হতে পারবেন বলে জানালেন এই নেতারা।

 

এই বিভাগের আরো খবর

কাপ্তাই হ্রদ সৃষ্টির পরই কৃষিবাণিজ্য সম্প্রসারিত

নিজস্ব প্রতিবেদক: পাহাড়ী এলাকা বিচিত্র কৃষিপণ্য উৎপাদনের বিশাল ক্ষেত্র হলেও সেখানের ক্ষুদ্র জাতি গোষ্ঠীগুলোর মধ্যে কৃষি বাণিজ্যের ধারণা...

উচ্চ ফলনের তাগিদ ছিল না, কৃষি উন্নয়নে হয়নি গবেষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক: ১৩ সহস্রাধিক বর্গ কিলোমিটারের পার্বত্য চট্টগ্রাম ১৮৬০ সাল পর্যন্ত পরিচিত ছিল কোরপস নামে। ১৩০ বছর আগে এখানকার লোকসংখ্যা...

চাহিদার তুলনায় অর্ধেক সবজি উৎপাদন

নিজস্ব প্রতিবেদক: এক দশকে উৎপাদন দ্বিগুণ হলেও চাহিদার তুলনায় অর্ধেক সবজি উৎপাদন হচ্ছে প্রতি বছর। দুর্বলতা ও সীমাবদ্ধতাগুলো দূর করে চাষের...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is