ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ৪ পৌষ ১৪২৫

2018-12-18

, ৯ রবিউস সানি ১৪৪০

হুমায়ূন আহমেদের ৭০তম জন্মবার্ষিকী আজ

প্রকাশিত: ১০:৩৮ , ১৩ নভেম্বর ২০১৮ আপডেট: ১১:৩৯ , ১৩ নভেম্বর ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলা সাহিত্যের নন্দিত লেখক হুমায়ূন আহমেদের ৭০তম জন্মবার্ষিকী আজ। ১৯৪৮ সালের এই দিনে নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। ছাত্রজীবনে লেখা প্রথম উপন্যাস ‘নন্দিত নরকে’ তাঁকে এনে দেয় বিপুল জনপ্রিয়তা। এছাড়াও রয়েছে জোছনা ও জননীর গল্প, শঙ্খনীল কারাগার, মধ্যাহ্ন ও মাতাল হাওয়াসহ নন্দিত অনেক গ্রন্থ। সৃষ্টি করেছেন হিমু কিংবা মিসির আলীর মতো জনপ্রিয় চরিত্র। বিশিষ্টজনদের মতে, হুমায়ূন আহমেদ সাহিত্যে নিজস্ব ধারা তৈরি করেছেন। সঙ্গীত ও চলচ্চিত্রেও তিনি সংবেদনশীল নির্মাতা। সৃষ্টির মধ্য দিয়েই তিনি বেঁচে থাকবেন কোটি মানুষের হৃদয়ে।
বাংলা কথাসাহিত্যের অন্যতম জনপ্রিয় লেখক হুমায়ূন আহমেদ। কোন একটি বিশেষণে আটকে রাখা যায় না নন্দিত এই সাহিত্যিককে। অপূর্ব দক্ষতায় তিনি যেমন উপন্যাস লিখেছেন, তেমনি লিখেছেন ছোটগল্প ও নাটক। সেইসাথে তিনি গীতিকার, চিত্রনাট্যকার ও চলচ্চিত্র নির্মাতা। সব ক্ষেত্রেই রেখেছেন সাফল্যের ছাপ। বাংলা সাহিত্যের উজ্জ্বল এই নক্ষত্রের ৭০তম জন্মবার্ষিকী আজ।
সত্তুরের দশক থেকে শুরু করে মৃত্যু অবধি বাংলা কথাসাহিত্যের অপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্যক্তিত্ব হুমায়ূন আহমেদ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালে লেখেন প্রথম উপন্যাস ‘নন্দিত নরকে।’ ১৯৭২ সালে প্রকাশিত এই উপন্যাসই তাঁকে নন্দিত করে করে তোলে। লেখালেখির জন্য ভূষিত হয়েছেন একুশে পদকে। স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে জনপ্রিয় উপন্যাসিক ইমদাদুল হক মিলন বলেন, হুমায়ূন আহমেদ এক অনন্য উচ্চতার লেখক।
বিশিষ্ট লেখক অধ্যাপক সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, হুমায়ূন আহমেদের সাহিত্য এখনো তরুণদের উদ্বুদ্ধ করে। বিজ্ঞান, যুক্তি ও পরাবাস্তবতার যে ভুবন তিনি সৃষ্টি করেছেন, তা সকলের কাছে আগ্রহের।
নাটক ও চলচ্চিত্রেও সংবেদনশীল সৃজনের সাক্ষর রেখেছেন হুমায়ূন আহমেদ। মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র আগুনের পরশমনির জন্য পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর অভিনয় করেছেন হুমায়ূন আহমেদের অনেক নাটকেই। স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তিনি বলেন, হুমায়ূন তাঁর সৃষ্টিকর্ম নিয়ে বেঁচে থাকবেন মানুষের হৃদয়ে।
২০১২ সালের ১৯ জুলাই না ফেরার দেশে চলে যান বাংলা সাহিত্যের এই উজ্জ্বল নক্ষত্র। তবে এখনো তাঁর সৃজনকর্ম আন্দোলিত করে কোটি হৃদয়।

 

এই বিভাগের আরো খবর

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is