ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

2018-12-11

, ২ রবিউস সানি ১৪৪০

মার্কিন লেখক স্ট্যান লি আর নেই

প্রকাশিত: ১২:৩৫ , ১৩ নভেম্বর ২০১৮ আপডেট: ১২:৩৫ , ১৩ নভেম্বর ২০১৮

বিনোদন ডেস্ক: স্পাইডারম্যান, ইনক্রেডিবল হাল্কের মত কমিক চরিত্রের স্রষ্টা মার্কিন লেখক ও মার্ভেল কমিক্সের সাবেক প্রেসিডেন্ট স্ট্যান লি আর নেই।
লির পারিবারিক আইনজীবীর বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, সোমবার লস অ্যাঞ্জেলেসের সিডারস সিনাই মেডিকেল সেন্টারে চিকিৎসাধীন অবস্থায় স্ট্যান লির মৃত্যু হয়। তার বয়স হয়েছিল ৯৫ বছর।

লির স্ত্রী জোয়ানও গতবছর ঠিক ৯৫ বছর বয়সে মারা যান। মৃত্যুকালে এক মেয়ে মেয়ে জেসি লিকে রেখে গেছেন তারা।   

রয়টার্সকে জেসি লি বলেন, তার বাবা ভক্তদের প্রত্যাশার কথা ভেবেই একের পর এক নতুন চরিত্র সৃষ্টি করে গেছেন।

স্ট্যান লিকে বেশ কিছুদিন ধরেই নানা ধরনের অসুস্থতার মধ্যে দিয়ে যেতে হচ্ছিল। কিছুদিন আগে তিনি নিউমোনিয়াতেও আক্রান্ত হয়েছিলেন।
কিংবদন্তি এই কমিক লেখকের জন্ম ১৯২২ সালে, রুমানিয়া থেকে নিউ ইয়র্কে অভিবাসী হওয়া এক শ্রমজীবী পরিবারে। দারিদ্র্যের সঙ্গে লড়াইয়ের সেই দিনগুলোতেই হয়ত তার মনের গভীরে জন্ম নিতে শুরু করে ভবিষ্যতের দুনিয়া কাঁপানো সুপারহিরোরা।  

কৈশোরেই স্ট্যান লি কাজ শুরু করেন টাইমলি পাবলিকেশনসের কমিক বিভাগে। মাত্র ১৮ বছর বয়সে তিনি কমিক এডিটর হয়ে যান। ওই কোম্পানিই পরে মার্ভেল কমিকসে পরিণত হয়।

১৯৬১ সালে কমিক শিল্পী জ্যাক কারবিকে নিয়ে লি সৃষ্টি করলেন ফ্যান্টাস্টিক ফোর। টাইমলি পাবলিকেশনস নাম বদলে হয় মার্ভেল কমিকস। সেই সঙ্গে কমিক বইয়ের স্বর্ণযুগের সূচনা হয়।

মার্ভেল কমিকস সে সময় সারা জাগানো বেশ কিছু কমিক চরিত্রের জন্ম দেয়। তাদের মধ্যে ব্ল্যাক প্যান্থার ছিল মূল ধারার মার্কিন কমিকের ইতিহাসের প্রথম কৃষ্ণকায় সুপার হিরো। এরপর সিলভার সার্ফার, এক্স-মেন, আয়রন ম্যান আর ডক্টর স্ট্রেঞ্জের মত চরিত্রগুলো মার্ভেলকে নিয়ে যায় বিশ্বময়।    
বিবিসি লিখেছে, কমিক শিল্পীদের প্রাপ্য স্বীকৃতি দেওয়ার ক্ষেত্রেও লি একজন অগ্রপথিক। কারবি, ফ্রাঙ্ক মিলার, জন রমিতার মত শিল্পীরা তার সঙ্গে কাজ করেই প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন।    

এক সময় বছরে পাঁচ কোটি কমিক বইও বিক্রি করেছে মার্ভেল। ১৯৭১ সালে অবসরে যাওয়ার আগ পর্যন্ত মার্ভেলের প্রতিটি বই নিজে লিখেছেন লি। অবসরে যাওয়ার পরও তিনি ছিলেন কোম্পানির চেয়ারম্যান এমিরিটাস। 

দুনিয়া কাঁপানো অনেক সুপারহিরোর এই স্রষ্টা সব সময় বিশ্বাস করতেন ভাগ্যে। তার ভাষায়, সৌভাগ্যের চেয়ে বড় ‘সুপার পাওয়ার’ আর কী হতে পারে!

এই বিভাগের আরো খবর

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is