ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

2018-12-11

, ২ রবিউস সানি ১৪৪০

লাদাখ ও সিকিমেও যেতে পারবেন বাংলাদেশিরা

প্রকাশিত: ০১:০৩ , ২১ নভেম্বর ২০১৮ আপডেট: ০১:০৩ , ২১ নভেম্বর ২০১৮

ডেস্ক প্রতিবেদন: দীর্ঘদিনের কড়াকড়ি তুলে নিয়ে ভারতের অন্যতম আকর্ষণীয় পর্যটনকেন্দ্র লাদাখ ও সিকিমের দুয়ার বাংলাদেশি পর্যটকদের জন্য খুলে দেওয়া হল।

ঢাকায় ভারতীয় হাই কমিশনের ওয়েবসাইটে নতুন একটি ফরম দেওয়া হয়েছে, যা পূরণ করে লাদাখ বা সিকিমে ভ্রমণের অনুমতি চাওয়া যাবে। 

ভারতীয় হাই কমিশনের একজন মুখপাত্র বলেন, “আমরা নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছি।”

ভারতের জম্মু ও কাশ্মিরে হিমালয় আর কারাকোরামের মাঝে লাদাখ প্রকৃতিপ্রেমী ও পর্যটকদের কাছে পরিচিত ‘ভূস্বর্গ’ হিসেবে। অন্যদিকে তিব্বত, ভুটান, নেপাল ও পশ্চিমবঙ্গের লাগোয়া ক্ষুদ্র ভারতীয় রাজ্য সিকিমে রয়েছে পৃথিবীতে তৃতীয় সর্বোচ্চ পর্বত শৃঙ্গ কাঞ্চনজঙ্ঘা।

এ দুটি জায়গায় পর্যটকদের যাতায়াতে এতদিন কড়াকড়ি ছিল। বাংলাদেশ থেকে কেউ যেতে চাইলে তাকে আবেদন করতে হত দিল্লিতে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই অনুমতি মিলতো না।

এখন বাংলাদেশের পর্যটকরা ওয়েবসাইট থেকে ফরম পূরণ করে লাদাখ বা সিকিমে যাওয়ার আবেদন করতে পারবেন।

গতবছর ১৪ লাখ বাংলাদেশি ভারত ভ্রমণ করেছেন, যা দেশটির মোট বিদেশি পর্যটকের ১৫ শতাংশের বেশি। যুক্তরাষ্ট্রের পর বাংলাদেশ থেকেই সবচেয়ে বেশি মানুষ প্রতিবছর ভারত ভ্রমণ করছেন।

ঢাকার যমুনা ফিউচার পার্কে ভারতের যে নতুন ভিসা সেন্টারটি চালু করা হয়েছে, সেটিকে বলা হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভিসা সেন্টার। এর স্বীকৃতির জন্য ‘গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ডে’ আবেদন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্টেট ব্যাংক অব ইনডিয়ার একজন কর্মকর্তা, যিনি ওই ভিসা সেন্টার পরিচালনায় যুক্ত আছেন।  

এদিকে বাংলাদেশ থেকে ভারতে যাওয়া-আসার সময় দেশটির ২৪টি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এবং গেদে/হরিদাসপুর রেল ও সড়কপথ ছাড়াও অতিরিক্ত দুটি রুট ব্যবহারের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে।

শনিবার থেকে সকল ভারতীয় ভিসা আবেদন কেন্দ্রে (আইভিএসি) অতিরিক্ত রুটের আবেদন গ্রহণ করা হবে বলে ভারতীয় হাই কমিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এই আবেদনের জন্য আলাদাভাবে ৩০০ টাকা ফি দিতে হবে। সব আইভিএসিতে রুট অনুমোদনের আবেদন জমার জন্য আলাদা কাউন্টার থাকবে। ভারতীয় হাই কমিশন ও ভারতীয় ভিসা আবেদন কেন্দ্রের ওয়েবসাইটে আবেদন ফরম পাওয়া যাবে।

এই বিভাগের আরো খবর

ঘুরে আসুন রাজেশপুর ইকোপার্ক

ডেস্ক প্রতিবেদন: বিনোদনের অন্যতম স্থান রাজেশপুর ইকোপার্ক। বর্ষা মৌসুম ছাড়া বছরের বাকি সময়টাতে ঘুরে দেখার মতো এখানে রয়েছে মনোমুগ্ধকর...

সাগরের নিচে আবাসিক হোটেল!

ডেস্ক প্রতিবেদন: সাগরের নিচে আবাসিক হোটেল শুনে আশ্চর্য হচ্ছেন। স্বপ্ন মনে হচ্ছে? একবারেই নয়, মালদ্বীপে বাস্তবে তৈরি হয়েছে এই আবাসিক হোটেল।...

ঘুরে আসুন মেঘের রাজ্য নীলগিরি

ডেস্ক প্রতিবেদন: প্রকৃতির এক অনন্য দান বান্দরবানের নীলগিরি। যেখানে গেলে দেখতে পারবেন মেঘ আর পাহাড়ের মিতালী। যেখানে মেঘেরা আপন থেকে ছুঁয়ে...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is