ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ৪ পৌষ ১৪২৫

2018-12-18

, ৯ রবিউস সানি ১৪৪০

অনির্দিষ্টকালের জন্য ভিকারুননিসার ক্লাস-পরীক্ষা স্থগিত

প্রকাশিত: ০২:০২ , ০৫ ডিসেম্বর ২০১৮ আপডেট: ০২:০২ , ০৫ ডিসেম্বর ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে রাজধানীর বেইলি রোডের ভিকারুননিসা স্কুল অ্যান্ড কলেজের সব ক্লাস-পরীক্ষা অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ।

বুধবার অধ্যক্ষ্যের পক্ষে শিক্ষক মুশতারি সুলতানা সাংবাদিকদের বলেন, “শিক্ষার্থীদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। প্রথম থেকে দ্বাদশ পর্যন্ত সকল শ্রেণির ক্লাস-পরীক্ষা পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত থাকবে। এটা সব শাখার জন্য সিদ্ধান্ত।”
“পরে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হলে শিক্ষার্থীদের এসএমএসের মধ্যে জানিয়ে দেব।”

বুধবার পরীক্ষা হলেও কোনো ক্লাস হয়নি বলে জানা গেছে।

গভর্নিং বডির শিক্ষক প্রতিনিধি মুশতারি পদত্যাগের বিষয়ে শিক্ষার্থীদের দাবি প্রসঙ্গে বলেন, “শিক্ষা মন্ত্রণালয় তদন্ত কমিটি করেছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে যে কারোর বিরুদ্ধে তারা সিদ্ধান্ত নিতে পারে। পরবর্তী যে কোনো সিদ্ধান্তের বিষয়ে যেকোনো সময় গভর্নিং বডি বসতে পারে।”
সামনে জাতীয় নির্বাচন, এই অবস্থায় পরীক্ষা কিভাবে শেষ হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “অতীতেও আমরা বিভিন্ন অস্থিতিশীল পরিস্থিতির সময় শুক্রবারে ক্লাস-পরীক্ষা নিয়েছি। এবারও সেরকম হতে পারে।”

মেয়েরা হয়তো প্রস্তুতি নিতে পারেনি- পরীক্ষা পেছানোর জন্য এটিকেও একটি কারণ হিসেবে দাবি করেন তিনি।

শিক্ষার্থী-অভিভাকদের বিক্ষোভের মধ্যে বুধবার প্রতিষ্ঠানটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষককে বরখাস্ত এবং তাদের এমপিও বাতিলের সিদ্ধান্ত আসে শিক্ষামন্ত্রীর কাছ থেকে। একই সঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ারও নির্দেশ দেন তিনি।

এদিকে বুধবার দ্বিতীয় দিনের মত স্কুলের সামনে সকাল থেকে শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা সামনে নিয়ে বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন।

তবে সেখানে অভিভাকদের মধ্যে বিভক্তি দেখা দিয়েছে। স্কুলের ভেতরে অবস্থান নেওয়া একদল অভিভাবক বলছেন, শিক্ষকদের বিরুদ্ধে বিভ্রান্তি তৈরি করা হচ্ছে।

ওই সময় শিক্ষকদের পক্ষে মুশতারি সুলতানা বলেন, “পুরো বিষয় আদালতে চলে গেছে, সিদ্ধান্ত আদালত নেবে।”

বেলা সাড়ে ১২টার দিকে শিক্ষকরা বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীদের পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার আহ্বান জানালেও শিক্ষার্থীরা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার কথা বলে অধ্যক্ষের পদত্যাগ দাবি করে।

উল্লেখ্য, গত সোমবার শান্তিনগরে নিজের বাসায় গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রী। স্কুল কর্তৃপক্ষের দাবি, আগেরদিন রোববার অরিত্রী পরীক্ষায় মোবাইল ফোনে নকল নিয়ে টেবিলে রেখে লিখছিল। অন্যদিকে স্বজনদের দাবি, নকল করেনি অরিত্রী।

এরপর সোমবার অরিত্রীর বাবা-মাকে ডেকে নেওয়া হয় স্কুলে। তখন অরিত্রীর সামনে তার বাবা-মাকে অপমাণ করা হয়েছিল বলে অভিযোগ উঠেছে। অরিত্রীর স্বজনরা বলছেন, বাবা-মার ‘অপমান সইতে না পেরে’ ঘরে ফিরে আত্মহত্যা করেন এই কিশোরী।

তবে অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস শিক্ষার্থী অরিত্রীর অভিভাবকদের অপমান করার কথা অস্বীকার করেছেন। মেয়ের মৃত্যুর ঘটনায় বরখাস্ত ওই তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধে ‘আত্মহত্যায় প্ররোচনার’ অভিযোগে মামলা করেছেন অরিত্রীর বাবা।

এই বিভাগের আরো খবর

কমিশনের সাথে বৈঠকে ঐক্যফ্রন্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সাথে বৈঠকে বসেছে ডক্টর কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের একটি প্রতিনিধি দল।...

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র ও নেদারল্যান্ডসের রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাত

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেছেন বাংলাদেশে নবনিযুক্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত রবার্ট...

শহীদ পুলিশ সদস্যদের প্রতি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

নিজস্ব প্রতিবেদক : স্বাধীনতাযুদ্ধে শহীদ বীর পুলিশ সদস্যদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। সকালে,...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is