ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

2019-05-23

, ১৮ রমজান ১৪৪০

এসএসসি ফল প্রকাশ, পাশের হার ৮০.৩৫%

প্রকাশিত: ০৫:৩৫ , ০৪ মে ২০১৭ আপডেট: ০৫:৩৫ , ০৪ মে ২০১৭

অনলাইন ডেস্ক:  এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে। এ বছর কারিগরি, মাদ্রাসা ও আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডে গড় পাসের হার ৮০.৩৫ শতাংশ। জিপিএ ফাইভ পেয়েছে ১,০৪,৭৬১ জন শিক্ষার্থী।

এ বছর মোট পাসের হার ও জিপিএ ফাইভ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে। এবার সর্বোচ্চ পাসের হার রাজশাহী বোর্ডে ৯০ দশমিক ৭০ এবং সর্বনিু কুমিল্লা বোর্ডে- ৫৯ .০৩ শতাংশ। ৯৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে কোনো শিক্ষার্থীই পাস করেনি।

শিক্ষার্থীদের এমন উচ্ছ্বাস-আনন্দের, ভালো অর্জনের। শিক্ষাজীবনের গুরুত্বপূর্ণ ধাপ এসএসসি  ও মাদ্রাসা বোর্ডের দাখিল পরীক্ষার আনুষ্ঠানিক ফল প্রকাশের আগেই বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জড়ো হয় শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা।

দেশের আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড, এসএসসি কারিগরি এবং মাদ্রাসা বোর্ডে মোট পরীক্ষার্থী ছিল ১৭,৮৬,৬১৩ জন, যার মধ্যে পাস করেছে ১৪,৩১,৭২২ জন। ১০ বোর্ডে পাসের গড় হার ৮০.৩৫ শতাংশ। শুধু এসএসসিতে ৮টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডে গড় পাসের হার ৮১.২১ শতাংশ।

গত বছরের তুলনায় গড় পাসের হার ৭.৯৪ শতাংশ কম। এ বছর মোট জিপিএ ফাইভ পেয়েছে ১,০৪,৭৬১ জন। গত বছরের তুলনায় এ বছর জিপিএ ফাইভ পাওয়া শিক্ষার্থী কমেছে পাঁচ হাজার।

সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ফলাফলের বিস্তারিত তুলে ধরেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। জানান, উত্তরপত্র মূল্যায়ন পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনায় এবার পাসের হারে প্রভাব পড়েছে। তবে এ নিয়ে চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী।

এসএসসিতে এবার ঢাকা বোর্ডে পাসের হার ৮৬.৩৯ শতাংশ, জিপিএ ফাইভ পেয়েছে ৪৯৫৮১ জন। রাজশাহীতে পাসের হার ৯০.৭০, জিপিএ ফাইভ এর সংখ্যা ১৭ হাজার ৩৪৯ জন। যশোর বোর্ডে পাসের হার ৮০.০৪, জিপিএ ফাইভ পেয়েছে ৬,৪৬০ জন। কুমিল্লায় পাসের হার ৫৯.০৩ ভাগ, জিপিএ ফাইভ পেয়েছে ৪৪৫০ জন। চট্টগ্রামে পাসের হার শতকরা ৮৩.৯৯ শতাংশ, জিপিএ ফাইভ অর্জন করেছে ৮৩৪৪ জন। সিলেট বোর্ডে পাসের হার ৮৩০.২৬ শতাংশ, জিপিএ ফাইভ পেয়েছে ২৬৬৩ জন শিক্ষার্থী। বরিশাল বোর্ডে পাসের হার ৭৭.২৪ শতাংশ, জিপিএ ফাইভ পেয়েছে ২২৮৮ জন।  দিনাজপুর বোর্ডে পাসের হার শতকার ৮৩.৯৮ ভাগ, যেখানে জিপিএ ফাইভ পেয়েছে ৬৯২৯ জন।

এসএসসি কারিগরি বোর্ডে এবার পাসের হার শতকরা ৭৮.৬৯, জিপিএ ফাইভ পেয়েছে ৪১৮৭ জন। মাদ্রাসা বোর্ডের দাখিল পরীক্ষায় পাসের হার ৭৬.২০ ভাগ, জিপিএ ফাইভ পেয়েছে ২৬১০ জন শিক্ষার্থী।

এ বছর ফল বিপর্যয় ঘটেছে কুমিল্লা বোর্ডে। যেখানে পাসের হার ৫৯.০৩ শতাংশ। এবং সর্বোচ্চ পাসের হার রাজশাহীতে ৯০.৭০ শতাংশ। ২৮ হাজার ৩৪৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে কোনো শিক্ষার্থীই পাস করেনি এমন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৯৩টি। গত বছরের চেয়ে বেড়েছে ৪০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

মাধ্যমিকে এবারের ফলাফলে ছাত্রদের তুলনায় ছাত্রীদের পাসের হার বেশি। ছাত্রদের পাসের হার ৭৯.৯৩ শতাংশ। যেখানে ছাত্রীদের পাসের হার ৮০.৭৮ শতাংশ। দশমিক ৮৫ শতাংশ বেশি।

ফল জানার উপায়:
শিক্ষার্থীরা দুপুর ২টা থেকে ইন্টারনেট, মোবাইল এসএমএস ও নিজ নিজ প্রতিষ্ঠান থেকে ফলাফল জানতে পারবে।
এসএমএসে ফল: যে কোনো মোবাইল অপারেটর থেকে এসএমএস করে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল জানা যাবে। SSC/DAKHIL লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখতে হবে, এরপর স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০১৭ লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠিয়ে ফল জানা যাবে।

এছাড়া শিক্ষা বোর্ডগুলোর ওয়েবসাইট (http://www.educationboardresults.gov.bd) থেকেও পরীক্ষার্থীরা ফল জানতে পারবেন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো (www.educationboardresults.gov.bd) ওয়েবসাইটে গিয়ে ফল ডাউনলোড করতে পারবে। বোর্ড থেকে ফলাফলের কোনো হার্ডকপি সরবারহ করা হবে না। তবে বিশেষ প্রয়োজনে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দপ্তর থেকে ফলাফলের হার্ডকপি সংগ্রহ করা যাবে বলে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটি জানিয়েছে।

ফল পুনঃনিরীক্ষা:

রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল অপারেটর টেলিটক থেকে আগামী ৫ থেকে ১১ মে পর্যন্ত এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করা যাবে। ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন করতে RSC লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে বিষয় কোড লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে।

ফিরতি এসএমএসে ফি বাবদ কত টাকা কেটে নেওয়া হবে তা জানিয়ে একটি পিন নম্বর (পার্সোনাল আইডেন্টিফিকেশন নম্বর) দেওয়া হবে। আবেদনে সম্মত থাকলে RSC লিখে স্পেস দিয়ে YES লিখে স্পেস দিয়ে পিন নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে যোগাযোগের জন্য একটি মোবাইল নম্বর লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে। প্রতিটি বিষয় ও প্রতি পত্রের জন্য ১২৫ টাকা হারে চার্জ কাটা হবে।

যে সব বিষয়ের দুটি পত্র (প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র) রয়েছে,  সে সকল বিষয়ের ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করলে দুটি পত্রের জন্য মোট ২৫০ টাকা ফি কাটা হবে। একই এসএমএসে একাধিক বিষয়ের আবেদন করা যাবে, এক্ষেত্রে বিষয় কোড পর্যায়ক্রমে ‘কমা’ দিয়ে লিখতে হবে।

এই বিভাগের আরো খবর

অভিযোগ আনা শুধু ১৭ জনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে: ছাত্রলীগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: ছাত্রলীগের ঘোষিত কমিটি থাকবে কিন্তু অভিযোগ যে ১৭ জনের বিরুদ্ধে আনা হয়েছে প্রমাণ হলে শুধু তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া...

এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় পাসের হার ৮২.২০, এগিয়ে মেয়েরা

নিজস্ব প্রতিবেদক : চলতি বছরের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে। সব শিক্ষা বোর্ডে এবার গড় পাসের হার ৮২ দশমিক ২০ শতাংশ। জিপিএ ৫...

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শনিবারের পরীক্ষা স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদক: শনিবারের সব পরীক্ষা স্থগিত করেছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। শুক্রবার সকালে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে এক নোটিশে এ তথ্য...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is