ভোটের মহারণ কাল সকালে শুরু

প্রকাশিত: ০৯:১৯, ২৯ ডিসেম্বর ২০১৮

আপডেট: ০৫:২২, ২৯ ডিসেম্বর ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট দিতে প্রস্তুত দেশের সাড়ে দশ কোটি ভোটার। রোববার সকালেই শুরু হবে ভোটের মহারণ। ৩শ’ সংসদীয় আসনের মধ্যে ভোট হবে ২৯৯ আসনে। একজন প্রার্থীর মৃত্যুর কারণে একটি আসনের নির্বাচন স্থগিত আছে। সর্বোচ্চ সংখ্যক রাজনৈতিক দল ও প্রার্থী অংশ নিয়েছে এবারের নির্বাচনে। যেখানে নতুন ভোটার এক কোটি ২৩ লাখ। আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত থাকবে বিভিন্ন বাহিনীর ৬ লাখ সদস্য। নির্বাচন পর্যবেক্ষণে থাকছে দেশি-বিদেশি ২৬ হাজার পর্যবেক্ষক।
দশ বছর পর আবারও মুখোমুখি নৌকা ও ধানের শীষ মার্কা। ২০১৪ সালে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন করলেও এবার শুরু থেকেই বিএনপি জোট আছে ভোটের মাঠে। ফলে একাদশ সংসদ নির্বাচন যে উৎসবমুখর আর প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হতে যাচ্ছে, দলীয় মনোনয়ন ফরম বিক্রি থেকে শুরু করে গেলো একমাসের প্রচার প্রচারণায় তার আভাস মিলছিল।
৩০০ আসনের বিপরীতে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ থেকে ৪ হাজার ২৩ জন মনোনয়ন সংগ্রহ করলেও শেষ পর্যন্ত ১৪ দলীয় জোট, মহাজোট ও দলীয় প্রার্থী মিলিয়ে ২৭৪ আসনে নৌকার প্রার্থী দেয় দলটি। বাকি ২৬টি আসনে মহাজোটের শরিক জাতীয় পার্টির জন্য ছেড়ে দেয়া হয়। নতুন মুখ আওয়ামী লীগে ৪৬ জন। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিত্ব করছেন ১৮ জন।
অন্যদিকে বিএনপির দলীয় মনোনয়ন ফরম বিক্রি হয় ৪ হাজার ৫৮০টি। পরে বিশ দলীয় জোটের শরিক এবং ঐক্যফ্রন্টের দলগুলোর জন্য ৫৯টি আসন ছেড়ে দেয় বিএনপি। তবে শেষ পর্যন্ত ২২৪টি আসনে বিএনপির প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নতুন মুখ ৮৮ জন। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিত্ব করছেন ৬ জন।
একাদশ সংসদ নির্বাচনে ৩৯টি দল থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ১ হাজার ৮শ’ ৬১ প্রার্থী যেখানে নারী প্রার্থী রয়েছেন ৬৯জন। মোট ভোটার ১০ কোটি ৪২ লাখ ৩৮ হাজার ৬৭৭। পুরুষ ভোটার ৫ কোটি ২৫ লাখ ৭২ হাজার ৩৬৫। নারী ভোটার ৫ কোটি ১৬ লাখ ৬৬হাজার ৩১২। ১ কোটি ২৩ লাখ নতুন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন এ নির্বাচনে। ২০১৪ সালে সংখ্যাটা ছিল এক কোটি ৩৭ লাখ। যদিও  ৩০ বছরের নিচে ভোটারের সংখ্যা আড়াই কোটি। যার ফলে তরুন ভোটার দাড়ায় ২৫ শতাংশ।
এবার আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে ছাড়িয়ে সর্বোচ্চ ২৯৯ আসনে প্রার্থী দিয়েছে চরমোনাই পীরের দল ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ। হাত পাখা প্রতীকে লড়ছেন তারা।
সারাদেশে এবার ভোটকেন্দ্র করা হয়েছে ৪০ হাজার ১৮৩টি। যারমধ্যে ২৫ হাজার ৮২৭টি কেন্দ্রকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করছে কমিশন। এসব কেন্দ্রে কক্ষ থাকছে ২ লাখ ৬ হাজার ৪৭৭টি।
নির্বাচনকে সুষ্ঠু করার পাশাপাশি সহিংসতা এড়াতে সারাদেশে মোতায়ন করা হয়েছে আইন শৃংখলা বাহিনীর প্রায় ৬ লাখ সদস্য। ভোটের পরিবেশ নির্বিঘœ করতে ২৪ ডিসেম্বর থেকে মাঠে নেমেছে সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা। দেশের ৩৮৯টি উপজেলায় নিয়মিত টহল কার্যক্রম পরিচালনা করছে তারা। ৬৬জন রিটার্নিং কর্মকর্তা ও ৫৮২জন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তাসহ ভোট গ্রহণে নিয়োজিত করা হয়েছে প্রায় ৭ লাখ কর্মকর্তাকে।
এবারের নির্বাচনে অন্যতম আকর্ষণ ইভিএম। বিএনপি জোটের আপত্তি সত্ত্বেও ছয়টি আসনে এবারই প্রথম পুরোপুরি ভোটগ্রহণ করা হবে ইভিএমে। সিটি কর্পোরেশন এলাকার সংসদীয় আসন থেকে লটারির মাধ্যমে এই ছয়টি আসন বাছাই করে নির্বাচন কমিশন। আসনগুলো হচ্ছে ঢাকা-৬ ও ১৩, চট্টগ্রাম-৯, রংপুর-৩, খুলনা-২ এবং সাতক্ষীরা-২।
নানা হিসেব-নিকেষের পর ৩০ ডিসেম্বর পরিষ্কার হবে আগামী পাঁচ বছরের জন্য সরকার গঠন করতে যাচ্ছে কোন জোট। একদিকে টানা তিন মেয়াদে নির্বাচিত হতে আওয়ামী লীগের সংকল্প, অন্যদিকে ২০১৪ সালের রাজনৈতিক ভুল সিদ্ধান্তের খড়গ কাটিয়ে ওঠা বিএনপি’র আপ্রাণ চেষ্টা লক্ষ্যণীয়।

 

এই বিভাগের আরো খবর

সংরক্ষিত নারী আসনের ভোট ৪ মার্চ

নিজস্ব প্রতিবেদক : সংসদের সংরক্ষিত...

বিস্তারিত
গাইবান্ধা-৩ আসনে প্রতীক বরাদ্দ

গাইবান্ধা প্রতিনিধি: একাদশ জাতীয়...

বিস্তারিত
এমন নির্বাচন ইতিহাসে আর হয়নি

নিজস্ব প্রতিবেদক: একাদশ জাতীয় সংসদ...

বিস্তারিত
নতুন ৫২ সংসদ সদস্যের মধ্যে ৪৬ আওয়ামী লীগের

নিজস্ব প্রতিবেদক: একাদশ জাতীয় সংসদে...

বিস্তারিত
ব্যয়ের হিসাব: প্রার্থীর ৩০, দলের ৯০ দিন

নিজস্ব প্রতিবেদক: সদ্য সমাপ্ত- ৩০...

বিস্তারিত
শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন বার্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক: কেবল দেশের ভেতর...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *