ঢাকা, রবিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১২ ফাল্গুন ১৪২৫

2019-02-24

, ১৮ জমাদিউস সানি ১৪৪০

বৈচিত্রময় ভ্রমণ হতে পারে সীতাকুণ্ড ইকো পার্ক

প্রকাশিত: ১২:২৪ , ৩১ জানুয়ারী ২০১৯ আপডেট: ১২:২৪ , ৩১ জানুয়ারী ২০১৯

ডেস্ক প্রতিবেদন: সীতাকুণ্ড ইকো পার্ক চট্টগ্রাম শহর থেকে মাত্র ৩৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। যা বর্তমানে অসাধারণ এক পর্যটন স্থান হিসাবে বিবেচিত হচ্ছে। এখানে রয়েছে সহস্র ধারা এবং সুপ্তধারা নামে দুইটি ঝর্ণা। এছাড়া সীতাকুণ্ড ইকো পার্কে রয়েছে অসংখ্য দুর্লভ প্রজাতির গাছ। রয়েছে অর্কিড হাউস, যেখানে প্রায় ৫০ ধরনের দেশি-বিদেশি বিভিন্ন প্রজাতির অর্কিড সংরক্ষিত রয়েছে।

পাহাড়, বৃক্ষরাজি, বন্যপ্রাণী, ঝর্ণা, পাখির কলরব ইকো পার্কটিকে আরো সমৃদ্ধ করেছে। উঁচুনিচু পাহাড় , বানর, খরগোশ এবং হনুমানসহ বিভিন্ন বন্যপ্রাণীর সমাহার, আছে অর্জুন, চাপালিশ, জারুল, তুন, তেলসুর, চুন্দুলসহ আরও অনেক ফুল, ফল ও ওষুধি গাছ। সূর্য ডোবার সময় গোধূলীর রক্তিম আভায় ইকোপার্কটিকে অপার্থিব মনে হয়।
 
ইকো পার্কে প্রবেশ করলে একটি বড় ডিসপ্লে চোখে পড়ে, এই ডিসপ্লেতে ঘুরতে আসা সমস্ত পর্যটকদের জন্য জায়গাটি সর্ম্পকে ধারনা দেয়া আছে। সিএনজিসহ ইকো পার্কে প্রবেশ করতে ৮০/- টাকা লাগে। আর সিএনজি ছাড়া প্রবেশ করলে লাগে ২০ টাকা। সীতাকুণ্ড ইকো পার্কে চাইলে পিকনিক করতে পারবেন।

কিভাবে যাবেন

সড়ক পথে ঢাকা থেকে : এস.আলম, সৌদিয়া, গ্রীনলাইন, সিল্ক লাইন, সোহাগ, বাগদাদ এক্সপ্রেস, ইউনিক ইত্যাদি পরিবহণের বিভিন্ন এসি, ননএসি বাস গুলো সায়দাবাদ বাস ষ্টেশন থেকে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে ছাড়ে। সবগুলো বাসই সীতাকুণ্ডে প্রয়োজন অনুযায়ী থামে। বাসে করে ঢাকা থেকে আসলে সীতাকুন্ড বাস স্টপেজ থেকে ২ কিলোমিটার দূরে ফকিরহাট নামক জায়গা দিয়ে সীতাকুণ্ড ইকো পার্কে যেতে হয়।

চট্টগ্রাম থেকে : চট্টগ্রামের মাদারবাড়ী ও কদমতলী বাস ষ্টেশন থেকে সীতাকুণ্ড যাবার বাসগুলো ছাড়ে। এ ছাড়া অলঙ্কার থেকে মেক্সিতে করে সীতাকুণ্ডের ফকিরহাট যাওয়া যায়।

সীতাকুণ্ড থেকে সারাদিনের জন্য সিএনজি ভাড়া নিয়ে নিতে পারেন। সেক্ষেত্রে ১০০০ থেকে ১২০০ টাকা লাগতে পারে। আর ইচ্ছা করলে পায়ে হেটে পার্কে ঘুরতে পারবেন, তবে তাতে সময় বেশি লাগবে। সময় বাঁচাতে পারলে সহজেই সীতাকুণ্ড ও মিরসরাই এলাকার ঝর্ণা ও ঝিরি ট্রেইলগুলো দেখে নিতে পারেন।

কোথায় থাকবেন
সীতাকুণ্ডে থাকার জন্য তেমন কোন ভালো মানের আবাসিক হোটেল নেই। সীতাকুণ্ড বাজারে কয়েকটি মাঝারি মানের আবাসিক হোটেল আছে। এছাড়া এখানে টেলি-কমিউনিকেশনের অধীনস্থ একটি ডাকবাংলো আছে। অনুমতি নিয়ে সেখানে থাকার চেষ্টা করতে পারেন।

 

এই বিভাগের আরো খবর

টানা তিন দিনের ছুটিতে পর্যটকের পদভারে মুখরিত কক্সবাজার

কক্সবাজার প্রতিনিধি: টানা তিন দিনের ছুটিতে দেশি-বিদেশি পর্যটকের পদভারে মুখরিত বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার। জেলার অন্য বিনোদন...

বঙ্গবন্ধুর সমাধি পরিদর্শনে আসছেন দেশি-বিদেশি পর্যটক

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি: টুঙ্গিপাড়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধি পরিদর্শনে প্রতিদিনই আসছেন দেশি-বিদেশি পর্যটক। ঘুরে ঘুরে...

ভ্রমনপিপাসুদের পছন্দের তালিকায় চট্টগ্রামের খেজুরতলা বীচ

ডেস্ক প্রতিবেদন: চট্টগ্রামের সমুদ্র সৈকত গুলোর মধ্যে খেজুরতলা বীচ ভ্রমনপিপাসুদের কাছে ক্রমেই আগ্রহের অন্যতম কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত...

প্রকৃতির নিস্বর্গ শিলং

ডেস্ক প্রতিবেদন: শিলং উত্তর-পূর্ব ভারতের মেঘালয় রাজ্যের রাজধানী। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪ হাজার ৯০৮ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত শিলং-এ প্রচুর বৃষ্টিপাত...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is