ঢাকা, শনিবার, ২৫ মে ২০১৯, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

2019-05-24

, ১৯ রমজান ১৪৪০

বিশ্বজুড়ে ডাইভিংকে ঘিরে দেখা দিচ্ছে অপার সম্ভাবনা

প্রকাশিত: ১০:১৪ , ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ আপডেট: ১২:০১ , ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: সাগরতলের জগত দেখতে যাওয়া, বিশ্বের সমুদ্র নির্ভর পর্যটনগুলোর মধ্যে বর্তমানে অন্যতম আকর্ষণীয় বিষয়। স্বল্প পরিসরে এর প্রচলন শুরু হলেও দেশে এবং বিশ্বজুড়ে ডাইভিংকে ঘিরে রয়েছে অপার সম্ভাবনা।

রহস্যময় পৃথিবীর স্থল ও জলের উপরিভাগে যে সৌন্দর্য রয়েছে তার চেয়ে কম কিছু নয় সাগরের নীচে। বরং কারও কারও মতে বেশি। সেই সৌন্দর্যই উপভোগ করতে বিশ্বের অগণিত পর্যটক ছুটছেন নানা সাগরের তলদেশে। বাংলাদেশের এস এম আতিকুর রহমান তাদের একজন। ছোটকাল থেকেই প্রকৃতিপ্রেমি এই মানুষটির সাগরের প্রতি ছিল আকাশ সমান আগ্রহ। সাগরের নীচে কি আছে তা জানতে মুখরোচক বেতনের চাকরি ছেড়ে ডাইভিংকে বেছে নেন পেশা হিসেবে। ২০০০ সালে ডাইভ বাংলাদেশ স্লোগানে শুরু করেন ওশানিক স্কুবা ডাইভিং সেন্টার।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, প্রথমদিকে সাগরের বিষয়ে সচেতনতা তৈরির কাজ করা হলেও, পরবর্তিতে এখানে ডাইভিং শেখানো শুরু করা হয়। বর্তমানে এ বিষয়ের ওপর আমাদের প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন গবেষনাধর্মী কাজ করছে।

সাগরতলের জগত নিয়ে কাজ শুরু করেন আতিক। কখনো ব্যক্তিগত উদ্যোগে আবার কখনো বা কোন প্রতিষ্ঠানের হয়ে কক্সবাজার, সেন্টামার্টিনসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার পানির নীচে, এমনকি বিশ্বের বিভিন্ন সমুদ্রে চালাচ্ছেন গবেষণা। আবিস্কার করে চলেছেন সাগরতলের অজানা নতুন নতুন প্রাণ ও অপার সম্ভাবনা।

দীর্ঘ ত্রিশ বছর ধরে সাগর তলের জগৎ গবেষণার সাথে তার সম্পৃক্ততা থাকলেও প্রথম পছন্দ সাগরে ডাইভিং বা ডুব সাঁতার। শুধু অভিযানের জন্য নয়, বরং এই সখকে পেশা হিসেবে নিতে রয়েছে আতিকুর রহমানের ব্যক্তিগত পরামর্শও। জানান, এই পেশা এবং সাগর থেকে প্রাপ্ত সম্পদ নিয়ে সম্ভাবনার কথাও।

আতিকুর রহমান বলেন, মালয়েশিয়া এবং সিঙ্গাপুরে এ পেশার বেশ কদর রয়েছে। আমাদের প্রতিষ্ঠান থেকে প্রশিক্ষন নিয়ে বর্তমানে অনেকেই সেসব দেশে কাজ করছে।

পর্যাপ্ত সুযোগ পেলে দেশের বঙ্গপোসাগর পর্যটনের এক বিশাল খাত হতে পারে বলে আশাবাদী ডাইভার ও গবেষকরা।    

 

এই বিভাগের আরো খবর

বিষের বাজারেও ভেজাল আছে

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে বছরে বিষের যে চাহিদা, তা অর্থমূল্যে আড়াই হাজার কোটি টাকার। যার পুরোটাই আমদানি করতে হয় বিভিন্ন দেশে থেকে। অন্যদিকে...

দেশে ক্রমেই বড় হচ্ছে বিষের বাজার

নিজস্ব প্রতিবেগ: বিষ কথাটায় সাধারণত নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া হয়, কিন্তু নিজেদের স্বার্থে জেনে না জেনে বিচিত্র বিষের ব্যবহারে অভ্যস্ত মানুষ।...

ফল রপ্তানীতে সুপরিকল্পনা ও উদ্যোগ চান ব্যবসায়ীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের ফল বাণিজ্য অভ্যন্তীণ বাজার কেন্দ্রিক। সাম্প্রতিক দশকগুলোতে কিছু দেশীয় ফল বিদেশে রপ্তানী হলেও পরিমাণ খুব কম। তাই...

চাহিদা-পুষ্টিগুণ বিবেচনায় ফল চাষ পদ্ধতিতে এসেছে পরিবর্তন

নিজস্ব প্রতিবেদক : মৌসুমী ফলের উৎপাদন ক্রমেই বাড়ছে। চাহিদা এবং পুষ্টিগুণ বিবেচনায় চাষ পদ্ধতিতেও পরিবর্তন হচ্ছে। অপ্রচলিত এবং বিলুপ্ত...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is