ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯, ১০ বৈশাখ ১৪২৬

2019-04-22

, ১৬ শাবান ১৪৪০

অমর একুশে ফেব্রুয়ারি আজ, শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস

প্রকাশিত: ০৫:২২ , ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ আপডেট: ০৫:২২ , ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজ অমর একুশে ফেব্রুয়ারি। মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। ১৯৫২ সালের এই দিনে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে রাজপথে বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়েছিলো বাঙালি ছাত্র-জনতা। আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় বায়ান্ন’র ২১শে ফেব্রুয়ারি একটি মাইলফলক। ভাষার দাবিতে রক্ত দেবার বিরল ইতিহাস বিশ্বে কেবল বাংলাদেশেরই রয়েছে। তাই ২১শে ফেব্রুয়ারি অমর ও চির অমলিন।
৫২’র ২১শে ফেব্রুয়ারি ১৪৪ ধারার নিষেধাজ্ঞা মানেনি বাঙ্গালী ছাত্র জনতা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আমতলায় বেলা ১১টায় বিস্ফোরণোম্মুখ ছাত্র যুবকরা সভা করে। সভা থেকে সিদ্ধান্ত হয় ১০ জনের দল করে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করা হবে। বিকেলে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হোস্টেল প্রাঙ্গণে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে বের হওয়া ছাত্রছাত্রীদের বিক্ষোভ মিছিলে গুলি চালায় পুলিশ। ঘটনাস্থলেই শহীদ হন রফিক উদ্দিন আহমদ, আবুল বরকত, আব্দুল জব্বার এবং আহত ও গ্রেফতার হন অনেকে।
তবে পত্রিকার প্রতিবেদনে জানানো হয়, ভাষাশহীদের সংখ্যা ছিল আরো বেশি। প্রশাসন শহীদদের আজিমপুর গোরস্তানে দ্রুত দাফন করে। ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে সেদিনের আন্দোলনে ছাত্রদের পাশাপাশি অনেক ছাত্রীও রেখেছিলেন ঐতিহাসিক সাহসী ভূমিকা।
পুলিশি হামলা ও রক্তপাতের প্রতিবাদ উঠে পাকিস্তান বিধান সভায়। পশ্চিম পাকিস্তানে বেতার শিল্পীরা তাৎক্ষণিকভাবে ধর্মঘট করে। বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা প্রকাশ করে লিফলেট, বুলেটিন, রচনা করে প্রতিবাদী কবিতা। গঠন করা হয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ। ৫২’র ২২ ফেব্রুয়ারি আরো কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেয়া হয়, এর মধ্যে ২২ থেকে ২৫ ফেব্র“য়ারি টানা ৯৬ ঘন্টা হরতাল ডাকে আন্দোলনকারীরা। তীব্রতর হয় রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে বাঙ্গালী ছাত্র-জনতার আন্দোলন। প্রতিষ্ঠিত হয় রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবি।

 

 

 

এই বিভাগের আরো খবর

২৯ এপ্রিলের মধ্যে শপথ না নিলে বিএনপির ৬ সংসদ সদস্যের আসন শূন্য হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপির নির্বাচিত ৬ সংসদ সদস্য ২৯ এপ্রিলের মধ্যে শপথ না নিলে তাদের আসন শূন্য হয়ে যাবে। ফলে বিষয়টি নিয়ে দলের মধ্যে ব্যাপক...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is