ঢাকা, বুধবার, ২০ মার্চ ২০১৯, ৬ চৈত্র ১৪২৫

2019-03-20

, ১৩ রজব ১৪৪০

গোলমরিচের গুণাগুণ

প্রকাশিত: ০৩:০২ , ০৭ মার্চ ২০১৯ আপডেট: ০৩:০২ , ০৭ মার্চ ২০১৯

অনলাইন ডেস্ক: গোলমরিচকে বলা হয় মশলার রাজা। খুব কম পরিমাণ মশলাই আছে গোলমরিচের চেয়ে বেশি গুনাগুণ সমৃদ্ধ। গোলমরিচ মশলা ও ওষুধ হিসেবেও ব্যবহার করা হয়। এবার এর কিছু ভেষজি গুণ জেনে নেওয়া যাক।

ওজন কমাতে: সঠিক পদ্ধতি মেনে ওজন কমাতে যথেষ্ট সময় লেগে যায়। এমনটা নয় যে আপনি ক্র্যাশ ডায়েটের খপ্পড়ে পড়ে গেলেন আর দ্রুত ওজন কমিয়ে ফেললেন। সেটা কিন্তু পরে আপনার শরীরের উপরে বিরূপ প্রভাব ফেলবে। আর এ জন্য প্রয়োজন সঠিক ডায়েট। ভালো মেটাবলিজম বা হজমশক্তি ওজন কমাতে গোলমরিচ ভালো সাহায্য করে। এটি নিয়মিত খাদ্য তালিকায় রাখলে ওজন কমবে দ্রুত। পাশাপাশি শরীর থাকবে একদম সুস্থ ও ঝরঝরে।

ক্যালোরি কমায়: কেউ যদি তাঁর ডায়েট চার্টে রোজ গোলমরিচ রাখেন, তাহলে শরীর থেকে টক্সিন ঘামের মধ্যে দিয়ে বেরিয়ে যায়। টক্সিন শরীরের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকারক। ইউরিক অ্যাসিডের সমস্যা থাকলেও গোলমরিচ কাজে দেয়। গোলমরিচ ফ্যাট সেলগুলিকে ভেঙে দেয় এবং ক্যালোরি কমায় ও এনার্জি বাড়াতে সাহায্য করে।

ক্যান্সারের অন্যতম ওষুধ: গোলমরিচের মধ্যে যে পিপারিন নামক উপাদানটি থাকে সেটি ক্যান্সারের অন্যতম ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। এতে আছে ভিটামিন এ , সি ও প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। যেটি ক্ষতিকারক ফ্রি রেডিকেলসে হাত থেকে এবং আমাদের শরীরকে ক্যান্সারে আক্রান্ত হবার হাত থেকে বাঁচায়।

হজমে সাহায্য করে: গোলমরিচের মধ্যে পিপারিন নামক উপাদান থাকে, সেই জন্যই এটি ঝাঁঝালো স্বাদের হয়। এটি হজমে দারুন ভাবে সাহায্য করে। এর মধ্যে থাকা হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড হজমে সাহায্য করে। আর ঠিক ভাবে খাবার হজম হলে ডায়রিয়ার মত সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

পেটে গ্যাস হলে: পেটে গ্যাস হলে আপনার খাবারে যোগ করুন গোলমরিচ। বদহজম এবং তার ফলে পেট ভারী লাগা এই সব কিছু কমায় গোলমরিচ। পেটে গ্যাসের অসহ্য ব্যাথা করলেও সেই ব্যাথা কমায় গোলমরিচ।

সর্দি কমাতে সহায়তা করে: সর্দি কাশিতেও এই গোলমরিচ দারুন ভাবে কাজ করে। এক চামচ গোলমরিচ গুড়ো ও মধু এই সমস্যার সমাধান করে। এটি বুকে জমা সর্দি তুলতেও সাহায্য করে। যেকোনো ভাইরাল ইনফেকশন রোধ করে। গরম জলে গোলমরিচ আর একটু ইউক্যালিপটাস অয়েল মিশিয়ে, সেই স্টিমটা নিলে বন্ধ নাক ছেড়ে যায়। হালকা সর্দি কাশি ছাড়াও যদি জ্বর আসে তাতেও গোলমরিচ কাজে দেবে। এতে আছে প্রচুর ভিটামিন সি, যা অ্যান্টিবায়োটিকের মত কাজ করে। জ্বরের সময় গোলমরিচ খেলে অত্যন্ত ঘাম হয় এবং জ্বর ছেড়ে যায়। গলা ব্যাথা কমাতেও সাহায্য করে। তাই ঠাণ্ডা লাগলে গোলমরিচ খান। সর্দি কাশি হলে মুখে অরুচি আসে। কিছুই খেতে ভালো লাগেনা। তা সারাতে ভীষণ ভাবে সাহায্য করে গোলমরিচ। জিভের স্বাদকোরকগুলিকে সক্রিয় করে তোলে। মুখে স্বাদ আনার জন্য গোলমরিচের সঙ্গে একটু গুড় মিশিয়ে খেলে উপকার হয়।

ত্বকের জন্য: ত্বকের জন্যও গোলমরিচ বেশ উপকারি। এটি শরীরকে ভেতর থেকে সচল রাখে। বাইরের ক্ষতিকারক সূর্য রশ্মির হাত থেকে ত্বককে রক্ষা করে। আর এটি ত্বকের বুড়িয়ে যাওয়াকেও নিয়ন্ত্রণ করে।

এছাড়া গোলমরিচ ডায়রিয়া, কলেরা ও আরথারাইটিস কমাতেও সাহায্য করে। গোলমরিচ খেলে শরীরের সব দিকে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক হয়। তার ফলে ব্যাথা কমে। ফুসফুস ও ব্রঙ্কিয়ালের ইনফেকশন কমায়। এ ছাড়া স্ট্রেস ও শক কমাতেও এর জুড়ি নেই।

 

এই বিভাগের আরো খবর

মাইগ্রেনের ব্যথায় করণীয়  

ডেস্ক প্রতিবেদন: মাইগ্রেন হলো একটি ভিন্ন ধরনের মাথাব্যথা। মেয়েদের মধ্যে এ রোগ যেমন দেখা যায় তেমনি পুরুষের বেলায়ও দেখা যায়। তবে মাইগ্রেন...

বাসি রুটিতে মিলবে উপকার!

অনলাইন ডেস্ক: বাসি খাবার খেলে শরীরে নানা অসুখ বাসা বাঁধতে পারে, এটাই সাভাবিক। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো, এটি অনেকক্ষেত্রে ঠিক নয়। বাসি রুটি...

নানা রোগ নিয়ন্ত্রণে কলার থোড়

ডেস্ক প্রতিবেদন: কলা গাছের কাণ্ডের মজ্জাকেই থোড় বলা হয়। থোড় খেতেও যেমন উপাদেয় তেমনই তা পুষ্টিগুণে ভরপুর! থোড়ে রয়েছে এমন বেশ কয়েকটি...

আগুনে পোড়াক্ষত সারায় তেলাপিয়া!

ডেস্ক প্রতিবেদন: তেলাপিয়া এমন একটি মাছ, যা সারা বছরই বাজারে পাওয়া যায়। মাছে-ভাতে বাঙালির কাছেও এটি অত্যন্ত প্রিয়। শুধু স্বাদেই নয়...

কামরাঙার পুষ্টিগুণ

ডেস্ক প্রতিবেদন: দেশি ফলের মধ্যে কামরাঙা অন্যতম। পুষ্টির জোগান আর নানা রোগ প্রতিরোধে কাজ করে। চিকিৎসকরা বলছেন, ভিটামিন বি নাইন ফলিক...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is