ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২ আশ্বিন ১৪২৬

2019-09-17

, ১৭ মহররম ১৪৪১

সঙ্গীত শিল্পী আতিফ আসলামের ৩৬তম জন্মদিন

প্রকাশিত: ০৯:১১ , ১২ মার্চ ২০১৯ আপডেট: ০৯:১২ , ১২ মার্চ ২০১৯

ডেস্ক প্রতিবেদন: জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী আতিফ আসলামের ৩৬তম জন্মদিন। ১৯৮৩ সালের এই দিনে পাকিস্তানের পাঞ্জাবে জন্ম গুণী এই সঙ্গীত তারকার। এ পর্যন্ত বেশ কয়েকটি একক অ্যালবাম প্রকাশিত হয়েছে তাঁর।

পাকিস্তানে সঙ্গীত জীবনের শুরু করলেও পরবর্তীতে ভারতে কাজ শুরু করেন আতিফ। বলিউডের বিভিন্ন চলচ্চিত্রে করা আতিফের গানগুলো সবসময়ই পেয়েছে দর্শক প্রিয়তা।

আতিফ আসলাম, শৈশবের বেশিরভাগ সময়টাই কেটেছে ক্রিকেট খেলে। বড় হয়ে ক্রিকেটার হওয়ার স্বপ্ন দেখেন। খেলেছেন পাকিস্তানের অনুর্ধ্ব-১৯ দলেও। তারকার খ্যাতি তিনি অর্জন করেছেন ঠিকই তবে তা ক্রিকেটাঙ্গনে নাহয়ে সঙ্গীতাঙ্গনে। ভক্তদের পাশাপাশি নিন্দুকেরও মন জয় করে নিয়েছেন তিনি।

সঙ্গীতে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সুযোগ কখনো হয়নি। খেলা শেষে ক্লান্ত শরীরের অবসাদ কাটাতেই কণ্ঠে তুলেছিলেন সুর। তাঁর সপ্রতিভ গায়কীতে মুগ্ধ হতেন শ্রোতারা। বন্ধুদের উৎসাতেই প্রথম অ্যালবাম ‘জলপরী’ প্রকাশিত হয় তাঁর। কণ্ঠের মদিরতা ছুঁয়ে যায় সঙ্গীতাঙ্গনের মহারথীদেরও। এসময় থেকেই সঙ্গীতে দীক্ষা নিতে আগ্রহী হয়ে উঠেন আতিফ।

আতিফের গান শুনে মুগ্ধ হন ভারতীয় সঙ্গীত পরিচালক প্রিতম ও অমিতাভ ভার্মা। জনপ্রিয় সঙ্গীত তারকা সুনিধি চৌহান ও কেকে’র সাথে ‘বাস এক পাল’ চলচ্চিত্রে কাজ করে পান তুমুল দর্শকপ্রিয়তা। তাঁর গাওয়া ‘তেরে বিন’ গানটি বেশকিছুদিন টপলিস্টে প্রথম স্থান দখল করে। এছাড়াও বে ইন্তেহান, পেহলি নাজার ম্যায়, পিয়া ওরে পিয়া, বেখুদা গানগুলো তাঁকে পৌঁছে দেয় জনপ্রিয়তার শীর্ষে।

পাকিস্তান ও ভারতে আতিফ আসলাম বেশ কয়েকবার সেরা সঙ্গীত শিল্পীর সম্মাননা পেয়েছেন। জন্মদিনে ভক্ত ও শুভানুধ্যায়ীরা শুভেচ্ছা জানাতে ভুল করেননি।

এই বিভাগের আরো খবর

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is