ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯, ৮ শ্রাবণ ১৪২৬

2019-07-22

, ১৯ জিলকদ ১৪৪০

নিউজিল্যান্ডে মসজিদে হামলাকারীর বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ

প্রকাশিত: ০৯:৫১ , ১৬ মার্চ ২০১৯ আপডেট: ০৬:১৭ , ১৬ মার্চ ২০১৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলাকারী অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক ব্রেন্টন ট্যারন্টের বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে। আগামী ৫ই এপ্রিল পর্যন্ত পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদের পর আবার আদালতে হাজির করা হবে তাকে। এদিকে, এই নারকীয় হামলার পর আগ্নেয়াস্ত্র আইনে পরিবর্তন আনার ঘোষণা দিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী। ক্রাইস্টচার্চ এখনো শোকে স্তব্ধ। ফুল দিয়ে নিহতদের স্মরণ করছে মানুষ।

শুক্রবার জুমার নামাজের সময় দুটি মসজিদে নির্বিচারে গুলি চালিয়ে বাংলাদেশিসহ ৪৯জনকে হত্যার পর এখনো শোকে স্তব্ধ নিউ জিল্যান্ডের দক্ষিণাঞ্চলীয় শান্ত শহর ক্রাইস্টচার্চ।

এই হামলার মূল হোতা খ্রিস্টান সন্ত্রাসী অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক ২৭ বছরের ব্রেন্টন ট্যারান্টকে শনিবার ক্রাইস্টচার্চ ডিস্ট্রিক্ট আদালতে হাজির করে পুলিশ। এ সময় তার পরনে ছিল হাজতির পোশাক। হাতে হাতকড়া। তবে আদালতের নির্দেশে তার ছবি প্রকাশ করা হয় মুখমন্ডল অস্বচ্ছ করে।

পুলিশ তার বিরুদ্ধে মসজিদে গুলি চালিয়ে ৪৯জনকে হত্যার অভিযোগ আনে। আদালত তাকে ৫ই এপ্রিল পর্যন্ত পুলিশের হেফাজতে রেখে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আবার হাজির করার আদেশ দেন। পুলিশ বলেছে ট্যারান্টের বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ আনা হবে। এদিন সন্দেহভাজন আরও দু’জনকে আদালতে নেয়া হয়।

পুলিশ ও আদালতের সূত্রের বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থাগুলো  জানায়, আদালতে হাজির করার সময় ট্যারান্টকে স্বাভাবিক দেখা যায়। তাকে কোনভাবেই অনুতপ্ত মনে হয়নি। হাতকড়া অবস্থায় তিনি শ্বেতাঙ্গদের শ্রেষ্ঠত্বের প্রতীক দেখান। এটা বিভিন্ন দেশে বর্ণবাদীদের প্রতীক। এর মাধ্যমে ধর্মীয় ও বর্ণবাদের ঘৃণা ছড়ানো হয়।

এদিকে, শনিবার ক্রাইস্টচার্চের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন। নিহত ও আহতদের পরিবারের স্বজনদের সাথে কথা বলেন তিনি। পরে, এক কমিউিনিটি কনফারেন্সে জেসিন্ডা আরডার্ন জানান, অন্যান্য এলাকাতেও সন্ত্রাসী হামলার উদ্দেশ্য ছিল আটক ব্রেন্টন ট্যারেন্টের। তার কাছ থেকে লাইসেন্স করা অত্যাধুনিক ৫টি রাইফেল উদ্ধার করেছে পুলিশ। বর্বরোচিত এ হত্যাকাণ্ডের পর দেশটির অস্ত্র আইনে পরিবর্তন আনার ঘোষণা দেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী।

শুক্রবারের ওই হামলায় ৪৯ জন নিহত ও আহত হন আরও ৪৮ জন। তবে, এখনো কারো পরিচয় প্রকাশ করেনি দেশটির পুলিশ। এদিকে, নিহতদের স্মরণে ঘটনাস্থলে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান স্বজন ও ক্রাইস্টচার্চের বাসিন্দারা।

 


 

এই বিভাগের আরো খবর

ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোতে বন্যা অপরিবর্তিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোতে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। আসাম ও বিহারে চলমান বন্যা পরিস্থিতিতে এ পর্যন্ত...

আটক ট্যাংকার দ্রুত ছেড়ে দিতে ইরানের প্রতি যুক্তরাজ্যের আহ্বান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: হরমুজ প্রণালী থেকে আটককৃত ব্রিটিশ পতাকাবাহী ট্যাংকার দ্রুত ছেড়ে দিতে ইরানের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাজ্য। শনিবার...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is