ঢাকা, শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৬

2019-08-23

, ২১ জিলহজ্জ ১৪৪০

পারদ ছড়িয়ে পড়ায় ঝুঁকিতে বাংলাদেশ : কর্মশালায় অভিমত

প্রকাশিত: ০৮:০৬ , ১৮ এপ্রিল ২০১৯ আপডেট: ০৮:১১ , ১৮ এপ্রিল ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক : দাঁতের চিকিৎসা, রং ফর্সাকারি ক্রিম ও বাল্বসহ বিভিন্ন পণ্যে পারদের ব্যবহার বাড়ায় দূষণের তীব্র ঝুঁকিতে বাংলাদেশ। প্রতিবছর পঁচিশ হাজার কেজিরও বেশি পারদ পরিবেশে ছড়িয়ে পড়ায় মানবস্বাস্থ্য ও পরিবেশ হুমকিতে রয়েছে বলে অভিমত বিশেষজ্ঞদের। সকালে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে পরিবেশ অধিদপ্তর ও বেসরকারি সংস্থা  ‘এসডো’ আয়োজিত কর্মশালায় এসব তথ্য উঠে আসে।

পারদের ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি ও পারদযুক্ত পণ্যের ব্যবহার বন্ধে রাজধানীতে এই কর্মশালার আয়োজন করে বাংলাদেশ পরিবেশ অধিদপ্তর ও এনভায়রনমেন্ট এণ্ড সোশাল ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন-এসডো।

এসময় আলোচকরা বলেন, বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহারের জন্য দেশে পারদের আমদানি বেড়েই চলেছে। ব্যাটারি, থার্মোমিটার, রক্তচাপ মাপার যন্ত্র, বাল্ব, টিউবলাইট, দাঁতের চিকিৎসা ও প্রসাধনী তৈরীসহ বিভিন্ন কাজে পারদের ব্যবহার বাড়তে থাকায় তা পরিবেশের বড় ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এসডো’র মহাসচিব শাহরিয়ার হোসেন বলেন, পারদ ব্যবহার করা পণ্য বর্জ্য হিসেবে যত্রতত্র ফেলা হলে সেই পারদ সহজেই পানি ও মাটিতে মিশে যায়। পরবর্তীতে সবজি ও মাছের মাধ্যমে তা মানবদেহে প্রবেশ করে। এতে ত্বক, ফুসফুস, কিডনি ও  øায়ুতন্ত্রের মারাত্মক ক্ষতি হয়।

কর্মশালায় পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সুলতান আহমেদ বলেন, পারদের ক্ষতি থেকে মানব স্বাস্থ্য ও পরিবেশ রক্ষায় কাজ চলছে। যত দ্রুত সম্ভব পারদযুক্ত পণ্যের ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হবে বলেও জানান তিনি।

পারদের বিকল্প দ্রব্যের ব্যবহার বাড়ানো ও এর ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে জানানোর পরামর্শও দেন বিশেষজ্ঞরা।

 

এই বিভাগের আরো খবর

সাগরে লঘুচাপ, সমুদ্র বন্দরে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত

ডেস্ক প্রতিবেদন: উত্তরপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও আশেপাশের এলাকায় সৃষ্ট লঘুচাপটি একই এলাকায় অবস্থান করছে। এর প্রভাবে দেশের অধিকাংশ জায়গায়...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is