ঢাকা, সোমবার, ২৭ মে ২০১৯, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

2019-05-26

, ২১ রমজান ১৪৪০

আলুটিলা গুহা: রোমান্সকর অভিজ্ঞতা

প্রকাশিত: ০৯:২০ , ২০ এপ্রিল ২০১৯ আপডেট: ০৯:২০ , ২০ এপ্রিল ২০১৯

ডেস্ক প্রতিবেদন: আলুটিলা গুহা পার্বত্য চট্টগ্রামের খাগড়াছড়ি জেলার একটি প্রাকৃতিক গুহার নাম। এটি আলু টিলা নামক পর্যটন কেন্দ্রে অবস্থিত। স্থানীয়দের কাছে আলুটিলা গুহা ‘মাতাই হাকড়’ বা ‘দেবতার গুহা’ নামে পরিচিত।

আলুটিলা গুহার দৈর্ঘ্য ৩৫০ ফুট। গুহার ভেতরে সব সময় অন্ধকার থাকে এজন্য গুহায় প্রবেশ করতে হলে মশালের প্রয়োজন হয়। চাইলে মশালের বিকল্প হিসাবে মোবাইল টর্চ বা চার্জ লাইট নিয়ে যেতে পারেন। তাছাড়া গুহার অভ্যন্তরের পাথর গুলো বেশ পিচ্ছিল তাই ভালো গ্রিপের জুতা পড়ে যাওয়া উচিত। আলুটিলা গুহায় প্রবেশের আগে মূল গেটের কাছ থেকে ১০ টাকা দিয়ে টিকেট সংগ্রহ করতে হয়। গুহার এক প্রান্ত দিয়ে ঢুকে অন্য প্রান্ত দিয়ে বের হতে মাত্র ১০ থেকে ১৫ মিনিট সময় লাগে। আর আলুটিলা গুহার কাছেই রয়েছে রিসাং ঝর্ণা। আলুটিলায় ঘুরতে এসে এত কাছের ঝর্ণাটি না দেখে চলে যাওয়া মোটেও ঠিক হবে না।

কিভাবে যাবেন
আলুটিলা গুহা দেখতে যেতে চাইলে প্রথমে খাগড়াছড়ি আসতে হবে। তারপর খাগড়াছড়ি থেকে স্থানীয় পরিবহণে আলুটিলা গুহায় যেতে হবে। খাগড়াছড়ি শহর থেকে ৭ কিলোমিটার দূরে মাটি রাঙ্গা উপজেলায় আলুটিলা গুহা অবস্থিত।

ঢাকা থেকে খাগড়াছড়ি
ঢাকা হতে সৌদিয়া, হানিফ, শ্যামলী পরিবহনের বাসে চড়ে সরাসরি খাগড়াছড়ি যাওয়া যায়। বাস ভেদে জনপ্রতি ভাড়ার পরিমান ৫২০ হতে ১২০০ টাকা হয়ে থাকে।

আর চট্টগ্রামের অক্সিজেন মোড় থেকে বি আর টি সি ও শান্তি পরিবহণের বাস খাগড়াছড়ি ছেড়ে যায়। এইসব বাসের ভাড়া ১৮০ থেকে ২৫০ টাকার মধ্যে। চট্টগ্রাম থেকে যেতে সময় লাগবে ৪-৫ ঘন্টা।

খাগড়াছড়ি থেকে আলুটিলা গুহা
খাগড়াছড়ি শহর থেকে চান্দের গাড়ি, সিএনজি, মোটরবাইক অথবা লোকাল বাস পাওয়া যায়। আপনারা একসাথে কতজন যাবেন সেই অনুযায়ী সুবিধামত পরিবহণ ব্যবস্থা ঠিক করে নিতে হবে। এছাড়া আলুটিলা গুহার কাছেই বৌদ্ধ মন্দির ও রিসাং ঝর্ণা। তাই সবচেয়ে ভালো আপনি যদি একসাথে এই সব গুলো জায়গা ঘুরে দেখে নিন। গাড়ি ঠিক করার সময় কোথায় কোথায় ঘুরবেন তা বলে নিবেন। সব গুলো জায়গা ঘুরতে সাধারণত চান্দের গাড়ি (১০-১৫ জনের জন্যে) রিসার্ভ করতে লাগবে ২০০০-৩০০০ টাকা, সিএনজি রিসার্ভ করতে লাগবে ৮০০-১০০০ টাকা। এই জায়গা গুলো ঘুরে দেখতে ৪-৫ ঘন্টা লাগবে। আর অবশ্যই ভাড়ার জন্যে দরদাম করে নিবেন।

কোথায় থাকবেন
খাগড়াছড়ি শহরে রাত্রি যাপনের জন্য বিভিন্ন মানের আবাসিক হোটেল রয়েছে। রুম দেখে দরদাম করে আপনার পছন্দমত হোটেলে রাত্রিযাপন করতে পারবেন। হোটেলে ভেদে এক রাত অবস্থানের জন্য আপনাকে ৪০০ টাকা থেকে ৩৫০০ টাকা প্রদান করতে হবে। খাগড়াছড়ি শহরে ভালো মানের আবাসিক হোটেলের মধ্যে রয়েছে।

কোথায় খাবেন
খাগড়াছড়ি শহরের শাপলা চত্বর এবং বাস স্ট্যান্ড এলাকায় বেশ কিছু রেস্টুরেন্ট রয়েছে। এছাড়া পানথাই পাড়ায় অবস্থিত ‘সিস্টেম রেস্তোরা’ তে কফি, হাসের কালাভূনা, বাশকুড়ুল এবং ঐতিহ্যবাহী পাহাড়ি খাবারের স্বাদ নিতে পারেন।

 

এই বিভাগের আরো খবর

আধুনিক হচ্ছে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: বদলে যেতে শুরু করেছে চট্টগ্রামের পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত। আধুনিক ও বিশ্বমানের পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে এই...

জলে ভাসা মায়াবী নগরী ভেনিস!

অনলাইন ডেস্ক: পৃথিবীর ভাসমান শহরের তালিকার শীর্ষে যে শহরের নাম উঠে আসে সেটি হলো ভেনিস। নান্দনিক সৌন্দর্যের ঐতিহাসিক এক নগরী হলো ভেনিস।...

হরিণঘাটা পর্যটন কেন্দ্র

ডেস্ক প্রতিবেদন: প্রাকৃতিক বন আর সাগর হাতছানিতে মুগ্ধ হতে ঘুরে আসতে পারেন দক্ষিণ বরগুনা জেলায় অবস্থিত হরিণঘাটা পর্যটন কেন্দ্র থেকে।...

ট্রাভেল এজেন্সির সাহায্যে বেড়াতে যে সব বিষয় মাথায় রাখবেন!

অনলাইন ডেস্ক: প্রতিদিনের কর্মব্যস্তার ক্লান্তি দূর করতে মাঝে মধ্যেই ছুটি নিয়ে অথবা ছুটি পেলে নিশ্চয়ই বাইরে বেড়াতে চলে যেতে চান। পরিবার,...

মেঘের রাজ্য ‘মেরাই থং’

অনলাইন ডেস্ক: মেঘের রাজ্য সাজেক। পার্বত্য অঞ্চলের রাঙ্গামাটি জেলায় সৌন্দর্য ও রূপবতী কন্যা সাজেক ভ্যালীর অবস্থান। সাজেক এমন একটি জায়গা...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is