ঢাকা, শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৬

2019-08-23

, ২১ জিলহজ্জ ১৪৪০

রোজার আগে বাজারে উপচে পড়া ভিড় 

প্রকাশিত: ০২:০৬ , ০৩ মে ২০১৯ আপডেট: ০২:০৬ , ০৩ মে ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: রোজা শুরুর আগে বাজারে বেড়েছে ব্রয়লার মুরগীসহ সব ধরনের নদীর মাছের দাম। একই সাথে বেড়েছে আমদানি করা ফল মালটা, বেদানা ও নাশপাতির দাম। তবে কমেছে সবজির দাম। ছোলা, পেঁয়াজ, রসুন, সোয়াবিন তৈলসহ অন্যান্য নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দামও কেজিতে বেড়েছে পাঁচ থেকে সাত টাকা। 
সেহরি ও ইফতারের খাবারে একটু বাড়তি পুষ্টির চাহিদা মেটাতে চান সবাই। তাই রোজাকে সামনে রেখে রাজধানীর বাজারে বেড়েছে নিত্য প্রয়োজনীয় সব ধরনের পণ্যের চাহিদা। তাইতো পলাশী’র বাজারে দেখা গেল উপচে পড়া ভিড়। 
নদীর মাছ পাবদা, টেংরা, পুঁটি, চাপিলা, গোলশা প্রতি কেজিতে পঞ্চাশ থেকে ষাট টাকা বেশিতে বিক্রি করতে দেখা গেছে। রুই কাতলা তিন থেকে চারশত টাকায়, পাবদা, চাপিলা ছয়শত টাকা দাম চাচ্ছে বিক্রেতারা।
ব্রয়লার মুরগী কেজিতে বেড়েছে পনের থেকে বিশ টাকায়। প্রতি কেজি ব্রয়লার বিক্রি হচ্ছে একশত পঞ্চান্ন থেকে একশত ষাট টাকায়। আর কক মুরগি প্রতি হালি এক হাজার টাকায়।  
খাসির মাংস প্রতি কেজি সাতশত টাকায় আর গরুর মাংস ৫৫০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। 
ঢেড়শ, টমেটো, করলা গাজরের দাম স্থিতিশীল থাকলেও বেড়েছে সব ধরনের ফলের দাম। নাশপাতি একশত ষাট থেকে বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে দুইশত চল্লিশ টাকায়। এছাড়া কমলা, আপেল প্রতি কেজিতে বেড়েছে বিশ থেকে ত্রিশ টাকা।
আমদানি হওয়া এসব ফলের দাম বাড়ানোর জন্য আমদানিকারকদের দায়ী করছেন খুচরা বিক্রেতারা। 
পিয়াজ, রসুন, ছোলা বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজিতে পাঁচ থেকে দশ টাকা বেশি দরে। বাজার নিয়ন্ত্রণে মনিটরিংয়ের ওপর জোর দেয়ার দাবি ক্রেতাদের। 


 

এই বিভাগের আরো খবর

ইলিশে ভরপুর বরিশালের মোকামগুলো

বরিশাল প্রতিনিধি: মৌসুমের মাঝামাঝি সময়ে এসে বরিশালের মোকামগুলো ভরে উঠছে রূপালী ইলিশে। হাসি ফুটেছে জেলে আর মাছ ব্যবসায়ীদের মুখে। সামনের...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is