ঢাকা, শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৫ আশ্বিন ১৪২৬

2019-09-20

, ২০ মহররম ১৪৪১

ঈদের আগে পোষাক শ্রমিকদের অসন্তোষ ঠেকাতে সতর্ক চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন

প্রকাশিত: ০৯:১৭ , ২৩ মে ২০১৯ আপডেট: ১১:১৮ , ২৩ মে ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঈদের আগে বেতন-বোনাস নিয়ে শ্রমিক অসন্তোষ হতে পারে এমন ১৩৫টি পোশাক কারখানা চিহ্নিত করেছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন। অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি এড়াতে এরই মধ্যে মালিক-শ্রমিক প্রতিনিধিদের সাথে বৈঠক শুরু করেছে শিল্প পুলিশ। তবে, বিজিএমইএ বলছে, পোশাক শ্রমিকদের সময়মতো বেতন-বোনাস দেয়ার ব্যাপারে তারা তৎপর আছেন। 

চট্টগ্রামে তৈরি পোশাক কারখানা মোট ৬৯৭টি। এসব কারখানায় কর্মরত শ্রমিকের সংখ্যা প্রায় সাড়ে পাঁচ লাখ। এর বাইরেও সরকারি পাটকল আছে আটটি। আসন্ন ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে এসব কারখানায় বেতন-বোনাস নিয়ে যাতে কোন অসন্তোষ না হয়, সেজন্য বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছে শিল্প পুলিশ।

শ্রমিক অসন্তোষ হতে পারে এমন ১৩৫টি পোশাক কারখানা চিহ্নিত করেছে চট্টগ্রাম  জেলা প্রশাসন। এগুলোকে তিনটি পৃথক জোনে ভাগ করে মালিকদের সাথে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে শিল্প পুলিশ। 

মে মাসের শেষ সপ্তাহে উৎসব ভাতা এবং জুন মাসের ৩ তারিখ বেতন দিতে কারখানা মালিকদের তাগিদ দিচ্ছে  জেলা প্রশাসন। এদিকে, তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ বলছে, নুতন মজুরি কাঠামোয়  ডিসেম্বর থেকে শ্রমিকদের বেতন বেড়েছে প্রায় ৬০ শতাংশ। বেড়েছে কারখানার ব্যয়। এরপরও পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে বিশেষ সেল গঠন করে বেতন বোনাস পরিশোধের সর্বোচ্চ চেষ্টার কথা বলছেন শিল্প মালিকরা।

তারা বলছেন, মালিক-শ্রমিক সম্পর্ক উন্নয়নের মাধ্যমে রপ্তানীমুখি এই খাতকে আরো এগিয়ে নেয়া হবে।

এই বিভাগের আরো খবর

সমঝোতার ভিত্তিতে জিপি ও রবির বকেয়া আদায়: অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: রবি ও গ্রামীণফোনের কাছ থেকে সরকারের রাজস্ব ও বিটিআরসির পাওনা আদায়ে অ্যাকশনে নয়, আলোচনা ও সমঝোতার ভিত্তিতে সমাধান করা হবে...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is