ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২ আশ্বিন ১৪২৬

2019-09-17

, ১৭ মহররম ১৪৪১

মেহেরপুরে চাল কেনায় অনিয়মের অভিযোগ

প্রকাশিত: ০২:০৩ , ১২ জুন ২০১৯ আপডেট: ০২:০৩ , ১২ জুন ২০১৯

মেহেরপুর প্রতিনিধি: মেহেরপুরে সরকারীভাবে চাল কেনায় অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। চালকল মালিকরা নিজেদের মিল বন্ধ রেখে জেলার বাইরে থেকে চাল কিনে সরকারী গুদামে সরবরাহ করছে।  এতে ধানের ন্যায্য দাম থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন জেলার কৃষকরা।

অন্যদিকে স্থানীয় প্রভাবশালী সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে চাল বিক্রিতে কমিশন দাবির অভিযোগ তুলেছেন মিল মালিকরা।

সচল মিল, ধান সিদ্ধ করার বয়লার ও গুদামঘর থাকলেই কেবল চালকল মালিকরা চাল বিক্রির জন্য খাদ্য অধিদপ্তরের সাথে চুক্তিবদ্ধ হতে পারেন। সরকারীভাবে চাল সংগ্রহ শুরুর পর কৃষকরা আশা করেছিলেন ভাল দামে ধান বিক্রির সুযোগ পাবেন তারা। কিন্তু  মেহেরপুরের  গাংনীর চুক্তিবদ্ধ ১৪ চালকল মালিকের অনেকেরই মিল বন্ধ। তারা জেলার বাইরে থেকে চাল কিনে সরকারী খাদ্যগুদামে সরবরাহ করছেন। এতে কৃষকরা যেমন ধান বিক্রি করতে পারছেন না, তেমনি বেকার হয়ে পড়েছেন মিলের শ্রমিকরাও।

চাল সংগ্রহ নিয়ে মেহেরপুরে প্রভাবশালীদের তিনটি সিন্ডিকেট তৎপর। এদের সাথে যোগসাজশের অভিযোগ রয়েছে খাদ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদেরও।

গত ২২ মে চাল সংগ্রহের  প্রথম দিনে খাদ্য গুদামে এদের দুই পক্ষ হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে। সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে প্রতি কেজি চালে ৬ টাকা কমিশন দাবির অভিযোগ মিল মালিকদের।

এদিকে, সিন্ডিকেট তৈরির জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান এম এ খালেক দায় চাপাচ্ছেন স্থানীয় সাংসদের ওপর। তবে পাল্টা অভিযোগ তুলে সাংসদ বললেন, কৃষকদের স্বার্থ রক্ষায় কোনভাবেই বাইরের জেলার চাল ঢুকতে দেওয়া হবেনা।

তবে চাল সংগ্রহে কোনও অনিয়ম হচ্ছেনা বলে দাবি খাদ্য অধিপ্তরের

গাংনী  উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক অফিসার খলিলুর রহমান।

এ বছর গাংনী উপজেলায় ৩৬ টাকা কেজি দরে ৫৭৭ মেট্রিকটন চাল সংগ্রহ করবে খাদ্য অধিদপ্তর।

 

এই বিভাগের আরো খবর

রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে কক্সবাজারে সুইডিশ রাষ্ট্রদূত

কক্সবাজার প্রতিনিধি: রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন ও তাদের খোঁজ-খবর নিতে কক্সবাজার পৌঁছেছেন সুইডেনের রাষ্ট্রদূত চারলোটা সিলিটার ও...

পুঠিয়ার ওসির অভিযোগ বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীর পুঠিয়া থানার ওসি শাকিল উদ্দিন আহমেদের বিরুদ্ধে মামলার এজাহার বদলে দেওয়ার অভিযোগ তদন্তে বিচার বিভাগীয় তদন্তের...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is