ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

2019-08-21

, ১৯ জিলহজ্জ ১৪৪০

আগুনে সৎ মেয়েকে হত্যার পর বাবার আত্মহত্যা

প্রকাশিত: ১১:৩৬ , ১৩ জুন ২০১৯ আপডেট: ০২:৪২ , ১৩ জুন ২০১৯

বরগুনা প্রতিনিধি: বরগুনার পাথরঘাটায় ঘরে পেট্রল ঢেলে আগুন পুড়িয়ে সৎ মেয়েকে হত্যা ও মাকে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনার পর অগ্নিদগ্ধ মহিলার সাবেক স্বামীও আত্মহত্যা করছে বলে ধারনা করা হচ্ছে। দগ্ধের মেয়েকে হত্যা উদ্দেশ্যে ঘরে পেট্রোল ঢেলে আগুন দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

এলাকাবাসী জানিয়েছে বুধবার রাতে পাথরঘাটা সদর রুহিতা গ্রামে সাজেনুর বেগমের ঘরে পেট্রল ঢেলে আগুন দিলে ঘটনাস্থলেই পুড়ে মারা মায় মেয়ে ছকিনা, আর গুরুতর দগ্ধ হন শাজেনুর বেগম। তাকে প্রথমে পাথরঘাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে, পরে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

শাজেনুর বেগম অভিযোগ করেন, ‘তার সাবেক স্বামী বেলাল হোসেনসহ কয়েকজন তার ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়। এদিকে, বৃহস্পতিবার শাজেনুর বেগমের সাবেক স্বামী বেলাল হোসেনের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শাজেনুর বেগমের ঘরে আগুন দেওয়ার পর বেলাল হোসেন আত্মহত্যা করেছেন বলে স্থানীয়রা ধারণা করছেন।

পাথরঘাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অ্যাম্বুলেন্সের ভেতরে দগ্ধ শাজেনূর বিভিন্ন গণমাধ্যমকে জানান, ‘ঘরে আগুন দেখে আমি বাইরে এলে আমার দ্বিতীয় স্বামী বেলাল হোসেনসহ কয়েকজন লোক আমাকে জাপটে ধরে পেট্রল ঢেলে গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়।’

প্রতিবেশি আব্বাছ আকন, মো. আলমসহ স্থানীয় কয়েকজন জানান, রাত দুইটার দিকে চিৎকার শুনে তাঁরা দৌড়ে যান। এ সময় ঘরে আগুন জ্বলছিল। ১৫ মিনিটের মধ্যে ঘর পুড়ে যায়। ওই ঘর থেকে সখিনার পুড়ে যাওয়া মরদেহ উদ্ধার করা হয়। আগুন থেকে বাঁচতে শাজেনূর ঘর থেকে বাইরে এলে তাঁর শরীরে পেট্রল দিয়ে আগুন দেয় বেলাল হোসেনসহ কয়েকজন।

পাথরঘাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক মেডিকেল কর্মকর্তা মো. জিয়া উদ্দিন আজ (১৩ জুন) সকালে বলেন, শাজেনূরের শরীরের ৮০ ভাগেরও বেশি অংশ পুড়ে গেছে। তাঁর অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক।

পাথরঘাটা থানার ওসি  হানিফ সিকদার বলেন, এ ঘটনায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। পুলিশ ও পাথরঘাটার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এই বিভাগের আরো খবর

অযত্ন-অবহেলায় মাগুরার ২টি গণকবর

মাগুরা প্রতিনিধি: আজ ২২শে আগস্ট (বৃহস্পতিবার), ১৯৭১ সালের এই দিনে মাগুরায় ১৩ মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। সেদিন ভারত থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে ফরিদপুর...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is